ইতালি

ইতালি দেশটি প্রসঙ্গে অবস্থান, সীমানা, জলবায়ু, জনসংখ্যা, রাজধানী, রেনেসাঁ, ঔপনিবেশিক সাম্রাজ্য, নামকরণ, প্রশাসনিক অঞ্চল, অর্থনীতি, খেলাধুলা, ইতিহাস, নবজাগরণের যুগ ও যোগাযোগ সম্পর্কে জানবো।

ইতালি

দেশ ইতালি
রাজধানী রোম
ভাষা ইতালিয়
ধর্ম রোমান ক্যাথলিক
রাষ্ট্রপতি সের্জো মাত্তারেল্লো
প্রধানমন্ত্রী জর্জিয়া মেলোনি
ইতালি

ভূমিকা :- পশ্চিম ইউরোপের একটি প্রজাতান্ত্রিক সংসদীয় রাষ্ট্র হল ইতালি। ইতালি ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত একটি দেশ। ইউরো অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় এই দেশের মুদ্রা ইউরো। ইতালিতে সংসদীয় গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা চালু আছে।

অবস্থান

ইতালি একটি ভূমধ্য দেশ দক্ষিণ ইউরোপে অবস্থিত। এটি পূর্ব উপকূলে অ্যাড্রিয়াটিক সাগর, পশ্চিমে টেররিয়ান সাগর বা ভূমধ্য সাগর এবং দক্ষিণে আইওনীয় সাগর দ্বারা বেষ্টিত

সীমা

ইতালির উত্তর সীমান্তে আল্পস পর্বতমালা সংলগ্ন ফ্রান্স, সুইজারল্যান্ড, অস্ট্রিয়া ও স্লোভেনিয়া অবস্থিত এবং দক্ষিণে সম্পূর্ণ ইতালীয় উপদ্বীপ, মেডিটারিয়ান সমুদ্র সংলগ্ন দুই মহাদ্বীপ সিসিলি ও সারদিনিয়া এবং আরো অনেক ছোট ছোট দ্বীপে পরিবেষ্টিত। সান মারিনো ও ভ্যাটিকান সিটি নামের দুটি স্বাধীন রাষ্ট্র ইতালির অধিভুক্ত।

সীমানাক্ষেত্র

ইতালির সীমানাক্ষেত্রটি প্রায় ৩,০১,৩৩৮ বর্গ কিমি (১,১৬,৩৪৬ বর্গ মাইল) এলাকা জুড়ে বিস্তৃত।

জলবায়ু

ঋতুময় ইতালীয় জলবায়ু নাতিশীতোষ্ণ। ইতালি তার ভূমধ্য জলবায়ু জন্য পরিচিত, যা প্রধানত উপকূলে পাওয়া যায়। অভ্যন্তরীণ ক্ষেত্রে সাধারণত শীতল এবং আর্দ্র কিন্তু সাধারণত গ্রীষ্মকালে গরম।

জনসংখ্যা

৬০ মিলিয়নের (সাড়ে ছয় কোটির উপরে) বেশি অধিবাসী সংবলিত ইতালি জনসংখ্যার দিকে ইউরোপে পঞ্চম ও বিশ্বে ২৩ তম জনবহুল দেশ।

রাজধানী

ইতালির রাজধানী রোম (ইতালীয় শব্দে রোমা) শহর। পশ্চিমা সভ্যতায় রোমান সাম্রাজ্যের রাজনৈতিক কেন্দ্রস্থল হওয়ার কারণে এটিকে রাজধানী করা হয়।

রেনেসাঁ

পরবর্তী শতাব্দীতে ইতালি রেনেসাঁ বা নবজাগরণের জন্মভূমি হয়ে উঠে। ইতালির অখণ্ড আকারের পরবর্তীকালীন ইউরোপীয় বুদ্ধিদীপ্ত গতিবিধি ও চিন্তা ধারণা ব্যাপকভাবে উর্বরতা পায়।

ইল রিসর্জিমেন্টো

রোমানোত্তর ইতিহাসে যদিও ইতালি অনেক রাজ্য ও নগরে বিভক্ত ছিলো। ১৮৬১ সালে সারদিনিয়া রাজ্য, দুই সিসিলিয়া রাজ্য, ডাচি অব মিলান একীভূত হয়, ইতিহাসের এক বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে, যা ‘ইল রিসর্জিমেন্টো’ (পুনরুত্থান) নামে পরিচিত।

ঔপনিবেশিক সাম্রাজ্য

উনিশ শতকের শেষের দিকে এবং প্রথম বিশ্বযুদ্ধ থেকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন সময়ে ইতালি ঔপনিবেশিক সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করে। এর শাসন লিবিয়া, ইরিথ্রিয়া, সোমালিয়া, ইথিওপিয়া, আলবেনিয়া, ডোডেকানিস পর্যন্ত বর্ধিত হয়।

সদস্য

ইতালি ইউরোপিয় ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। এটি ইউরোজোনেরও একটি অংশ। এছাড়াও ইতালির জি ৮, জি ২০ এবং ন্যাটোর সদস্যপদ রয়েছে। ইতালি অরগানাইজেশন ফর ইকনোমিক কোঅপারেশন অ্যান্ড ওয়ার্ল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশন, কাউন্সিল অব ইউরোপ, ওয়েস্টার্ন ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এবং ইউনাইটেড ন্যাশন্সের সদস্য।

নামকরণ

ইতালিয়া নামের ব্যুৎপত্তিটির অনেক সংখ্যক পুর্বধারণা আছে এবং এর সমাধানের পথ নিয়ে ইতিহাসবিদরা ও ভাষাবিদরা বিস্তৃত ধারণা দিয়েছেন। যেমন –

(১) ইতালিয়া শব্দটি ল্যাটিন ইতালিয়া থেকে এসেছে, যার অর্থ ছোটো গবাদিপশুদের চারণভূমি। গ্রিক ইতিহাসবিদ ডাওনিসিয়াস লোককাহিনীর বরাত দিয়ে ইতালিকে ইটালুস আখ্যা দেন। এরিস্টটল ও থুকিডিডিসও একই মত দেন। ইতালি নামটি প্রকৃত অর্থে বর্তমান দক্ষিণ ইতালির জন্য প্রযোজ্য।

প্রশাসনিক অঞ্চল

ইতালির প্রধান প্রশাসনিক অঞ্চল গুলি হল লোম্বার্ডি, কাম্পানিয়া, তাসকেনি, থ্রিয়েস্তে।

অর্থনীতি

১.৮ বিলিয়ন জিডিপি নিয়ে ইতালি ইউরোপের চতুর্থ বৃহত্তম ও বিশ্বের অষ্টম বৃহত্তম অর্থনীতি । ২০২০ সালের ইতালীয় অর্থনীতির জন্য জিডিপি বৃদ্ধির পূর্বাভাস + ০.৪%।

খেলাধূলা

  • (১) ইতালির সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা ফুটবল। ইতালি ৪ বার ফিফা আয়োজিত বিশ্বকাপ জিতেছে। ফুটবলের পাশাপাশি আরও বিভিন্ন খেলায় ইতালি অংশগ্রহণ করে থাকে।
  • (২) সান সিরো মিলান এ অবস্থিত ৭৫,০০০ আসনবিশিষ্ট ইতালির বৃহত্তম মাঠ। রোমে অবস্থিত ৭০,০০০ আসনবিশিষ্ট স্টাডিও ওলিম্পিকো ইতালির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মাঠ।

ইতিহাস

  • (১) দুই লক্ষ বছর আগের প্রাচীন প্রস্তর যুগেও (Paleolithic period) সমগ্র ইতালি জুড়ে আধুনিক সভ্য মানুষের অস্তিত্ব পাওয়া যায়। খ্রিষ্টপূর্ব সপ্তাদশ থেকে একাদশ শতাব্দীর মধ্যবর্তী কোন এক সময়ে মাইসেনিয়ান গ্রিকরা ইতালির সাথে সম্পর্ক স্থাপন করে।
  • (২) ষষ্ট শতাব্দীতে বাইজান্টাইন সম্রাট প্রথম জাস্টিনিয়ান ওস্ট্রুগথদের হাত থেকে ইতালি পুনরায় জয় করেন। দ্বাদশ শতাব্দীতে উত্তর ইতালির মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল মিলান। রাজনৈতিক এবং বাণিজ্যিক সুবিধা নিয়ে সকল প্রজাতন্ত্র সক্রিয়ভাবে ক্রুসেডে অংশগ্রহণ করেছিল।

নবজাগরণের যুগ

  • (১) সংস্কৃতিক অর্জনের দিক দিয়ে মানবতা এবং রেনেসাঁ বা নবজাগরণে সাফল্যমন্ডিত হয় ইতালি। রেনেসাঁর সাহিত্য বিবেচনায় পেত্রার্ক, বোকাচ্চি (‘ডেকামেরন’ এর লেখক) বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেন।
  • (২) ইউরোপীয় চিত্রকলার পিছনে ইতালীয় রেনেসাঁর চিত্রকলা শতাব্দী ধরে প্রাধান্য বিস্তার করে। চিত্রকরদের মধ্যে মাইকেল অ্যাঞ্জেলো, রাফায়েল, বোত্তিচেলি, লিওনার্দো দা ভিঞ্চির নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

নেপোলনীয় যুদ্ধ

আধুনিক সময়ে শুরুর দিকে ইতালির ইতিহাস ছিল বিদেশী শাসন ফলশ্রুতিতে ইতালীয় যুদ্ধ (১৪৯৪ থেকে ১৫৫৯ সাল)। নেপোলিনীয় (নেপোলিয়ন বোনাপার্ট) যুদ্ধের সময় (১৭৯৬-১৮১৪) দেশটির উত্তরাঞ্চল পুনর্গঠন করে ইতালির নতুন রাজ্য গঠন করা হয়। তখন এটি ছিল ফান্স সাম্রাজ্যের অধীন একটি রাষ্ট্র।

ভিয়েনা কংগ্রেস

অষ্টাদশ শতকের শেষের দিকে ভিয়েনা সম্মেলন (১৮১৪ সাল) পূর্বাবস্থা ফিরিয়ে এনেছিল যা ইতালির একীকরণের অংশ হিসেবে উপক্রমিক আন্দোলনের মধ্য দিয়ে খুব দ্রুত ঐক্যবদ্ধ হয়েছিল।

ঐক্য আন্দোলন

ঐক্যবদ্ধ দেশ গঠনের উদ্দেশ্যে ইতালির ঐক্য আন্দোলন শুরু হয়। কার্বোনারি আন্দোলন, ইয়ং ইতালি আন্দোলন, ম্যাৎসিনী, ক্যাভুর ও গ্যারিবল্ডীর সক্রিয় উদ্যোগে ১৮৭০ খ্রিস্টাব্দে ইতালি ঐক্যবদ্ধ হয়।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধে যোগদান

১৯১৪-১৯১৮ খ্রিস্টাব্দে সংঘটিত প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ইতালি যোগদান করে। মিত্রপক্ষে যোগদান করেও যুদ্ধশেষে ইতালি বঞ্চিত হয়।

ফ্যাসিবাদী একনায়ক তন্ত্র

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর মুসোলিনি ও তাঁর নাৎসি দল ইতালিতে ফ্যাসিবাদী একনায়কতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করে। এই একনায়কতন্ত্রের সময়কাল ছিল ১৯২২-১৯৪৩ সাল পর্যন্ত।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যোগদান

১৯৩৯ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে মুসোলিনি তথা ইতালি যুদ্ধে যোগ দেয় নি। কিন্তু জার্মানির হিটলারের একের পর এক বিজয় লক্ষ্য করে মুসোলিনি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যোগ দেয়।

যোগাযোগ

রোমের বৃহত্তম বিমানবন্দর লিওনার্দো দা ভিঞ্চি ফিয়ামিকিনো বিমানবন্দর, মিলান মালপেন্সা বিমানবন্দর, ভেনিস মার্কো পোলো বিমানবন্দর প্রভৃতি ইতালির বিখ্যাত বিমানবন্দর।

উপসংহার :- ইতালি ইউরোপীয় ও পৃথিবীব্যাপী সামরিক, সাংস্কৃতিক এবং কূটনৈতিক সম্পর্কে বিশাল ভূমিকা পালন করে। ইউরোপীয় রাজনৈতিক, সামাজিক এবং অর্থনৈতিক প্রভাব দেশটিকে দিয়েছে আঞ্চলিক শক্তি।

(FAQ) ইতালি দেশটি সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. ইতালির রাজধানীর নাম কি?

রোম।

২. ইতালির দুজন বিখ্যাত সাহিত্যিকের নাম লেখ।

পেত্রার্ক ও বোকাচ্চিও।

৩. ইতালির দুজন বিখ্যাত চিত্রশিল্পীর নাম লেখ।

লিওনার্দো দা ভিঞ্চি ও রাফায়েল।

৪. ইতালির বর্তমান রাষ্ট্রপতি কে?

সের্জো মাত্তারেল্লো।

৫. ইতালির বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর নাম কি?

জর্জিয়া মেলোনি।

Leave a Reply

Translate »