ইন্দোনেশিয়া

ইন্দোনেশিয়া স্থানটি প্রসঙ্গে, কৃষি কাজে অভ্যস্ত ইন্দোনেশিয়া, ইন্দোনেশিয়ার সম্পদ, ইউরোপীয় শক্তিগুলির ইন্দোনেশিয়ার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ, ইন্দোনেশিয়ায় বাণিজ্য, ডাচ বিরোধী আন্দোলন, ঔপনিবেশিক শাসনের বিরোধিতা, জাপানি কর্তৃত্বের অবসান ও স্বাধীন ইন্দোনেশিয়ার সম্পর্কে জানবো।

ইন্দোনেশিয়া

ঐতিহাসিক স্থানইন্দোনেশিয়া
অবস্থানপূর্ব ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জে
প্রধান জীবিকাকৃষিকাজ
স্বাধীনতা লাভ১৯৪৯ খ্রি
প্রথম রাষ্ট্রপতিড. সুকর্ণ
প্রথম প্রধানমন্ত্রীড. মহম্মদ হাত্তা
ইন্দোনেশিয়া

ভূমিকা :- প্রশান্ত মহাসাগরের বুকে বিশ্বের সর্ববৃহৎ দ্বীপরাষ্ট্র ইন্দোনেশিয়া বা পূর্ব ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জ অবস্থিত যা প্রায় ৩ হাজার দ্বীপের সমন্বয়ে গঠিত। এখানকার প্রধান দ্বীপগুলির মধ্যে অন্যতম হল সুমাত্রা, জাভা, বালি, বোর্নিও প্রভৃতি।

কৃষিকাজে ইন্দোনেশিয়া

ইন্দোনেশিয়ায় জনগোষ্ঠী ও ভাষার সংখ্যা রয়েছে অনেক। ভৌগোলিক বৈচিত্র্যে পূর্ণ ক্রান্তীয় জলবায়ুর দেশ ইন্দোনেশিয়ার প্রধান জীবিকা হল কৃষিকাজ। ধান, নারকেল, রবার, আখ, চা, বিভিন্ন মশলা প্রভৃতি হল এখানকার প্রধান কৃষিজ দ্রব্য।

ইন্দোনেশিয়ায় খনিজ সম্পদ

এ ছাড়া এই দেশে পেট্রোল, বিভিন্ন বনজ সম্পদ, টিন ও অন্যান্য ধাতুর বিপুল ভাণ্ডার রয়েছে।

ইউরোপীয় শক্তিগুলির ইন্দোনেশিয়ার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ

ইন্দোনেশিয়ার বিভিন্ন কৃষিজ পণ্য, প্রাকৃতিক সম্পদ, খনিজ সম্পদ, গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক কেন্দ্র ইউরোপীয় শক্তিগুলির দৃষ্টি আকৃষ্ট করেছিল।

ইন্দোনেশিয়ায় বাণিজ্য

আনুমানিক ১৫১১ খ্রিস্টাব্দে পোর্তুগাল এবং এরপর স্পেনীয় ও ব্রিটিশরা ইন্দোনেশিয়ায় পৌঁছোয়। সপ্তদশ শতকের শেষদিকে পোর্তুগিজ ও ইংরেজদের বিতাড়িত করে হল্যান্ডের ডাচ বা ওলন্দাজরা এখানে ঔপনিবেশিক শাসন প্রতিষ্ঠা করে এবং একচেটিয়া বাণিজ্য চালায়।

ইন্দোনেশিয়ায় ডাচ-বিরোধী আন্দোলন

ডাচ কোম্পানির শাসনের অবসানের পর ১৭৯৯ খ্রিস্টাব্দে ডাচ সরকার প্রত্যক্ষভাবে ইন্দোনেশিয়ার শাসনভার হাতে নেয়। বেশি অর্থ উপার্জনের জন্য ডাচরা কৃষকদের বাণিজ্যিক পণ্য উৎপাদন করতে বাধ্য করে ও উচ্চহারে কর আরোপ করে। ফলে কৃষকরা দারিদ্র্য ও দুর্ভিক্ষের শিকার হয়। বিংশ শতকের শুরুতে ইন্দোনেশিয়ায় ওলন্দাজ-বিরোধী জাতীয়তাবাদী আন্দোলন তীব্র থেকে তীব্রতর হতে থাকে। ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের দ্বারা ইন্দোনেশিয়ার আন্দোলন যথেষ্ট প্রভাবিত হয়। যেমন –

(ক) ঔপনিবেশিক শাসনের বিরোধিতা

অষ্টাদশ শতকের শেষদিক থেকে ইন্দোনেশিয়ার মানুষ সেখানে ডাচ বা ওলন্দাজ শাসনের বিরোধী হয়ে ওঠে। বিংশ শতকের সূচনায় ইন্দোনেশিয়ায় সাম্যবাদী বা কমিউনিস্ট ভাবধারার যথেষ্ট প্রসার ঘটে। এই সময় থেকে ইন্দোনেশিয়ায় শ্রমিক ধর্মঘট নিত্যনৈমিত্তিক বিষয়ে পরিণত হয়। জাতীয়তাবাদী নেতা ড. সুকর্ণ-এর নেতৃত্বে ইন্দোনেশিয়ায় ১৯২৭ খ্রিস্টাব্দের ৪ জুলাই ইন্দোনেশীয় জাতীয়তাবাদী দল প্রতিষ্ঠিত হয়। এই দলের নেতৃত্বে ওলন্দাজ শাসনের বিরুদ্ধে ইন্দোনেশিয়ার জাতীয়তাবাদী আন্দোলন জোরদার হয়ে ওঠে।

(খ) নিষ্ঠুর দমননীতি প্রয়োগ

১৯২৭ খ্রিস্টাব্দে ইন্দোনেশিয়ায় ব্যাপক কমিউনিস্ট বিদ্রোহ দেখা দিলে ডাচ সরকার নিষ্ঠুর দমননীতি চালিয়ে এই বিদ্রোহ দমন করে। ড. সুকর্ণকে গ্রেপ্তার করা হয় এবং তাঁর জাতীয়তাবাদী দল ভেঙে দেওয়া হয়। বিশিষ্ট জাতীয়তাবাদী নেতা ড. মহম্মদ হাত্তা, জাহরির প্রমুখ দেশ থেকে বহিষ্কৃত হন।

(গ) জাপান কর্তৃক ইন্দোনেশিয়া দখল

১৯৩৯ খ্রিস্টাব্দে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে ইন্দোনেশিয়ার পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটে। এই সময় পূর্ব এশিয়ায় জাপানের অভূতপূর্ব অগ্রগতি ঘটে। যুদ্ধের সময় জার্মানি ১৯৪০ খ্রিস্টাব্দে হল্যান্ড দখল করে নিলে হল্যান্ডের সঙ্গে ইন্দোনেশিয়ার যোগাযোগ ছিন্ন হয়। এই পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে জাপান ১৯৪২ খ্রিস্টাব্দে ইন্দোনেশিয়া দখল করে নেয়। জাপানের সহযোগিতায় ড. সুকর্ণ-এর নেতৃত্বে সেখানে জাপানের সহযোগী একটি সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়। এসময় ইন্দোনেশিয়ার জাতীয়তাবাদীরা জাপানকে মিত্র বলেই মনে করেছিল।

(ঘ) জাপানি কর্তৃত্বের অবসান

ইন্দোনেশিয়ার মানুষের কাছে জাপানি সাম্রাজ্যবাদের প্রকৃত চরিত্র শীঘ্রই প্রকাশ পায়। ইন্দোনেশিয়ায় একই সঙ্গে জাপান ও হল্যান্ড-বিরোধী আন্দোলন শুরু হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষদিকে জাপানের পরাজয় আসন্ন হলে জাপান ইন্দোনেশিয়া ত্যাগ করে। ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের ১৭ আগস্ট ইন্দোনেশিয়ায় ড. সুকর্ণ-এর নেতৃত্বে একটি প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয় যার রাজধানী হয় জাকার্তা।

(৫) ওলন্দাজদের পুনরায় আগমন

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মানি ও জাপানের পরাজয়ের পর ওলন্দাজরা আবার ইন্দোনেশিয়ায় ফিরে আসে এবং সেখানকার জাতীয়তাবাদী বিদ্রোহ দমনে তৎপর হয়ে ওঠে।

উপসংহার :- শেষপর্যন্ত সম্মিলিত জাতিপুঞ্জের (UNO) মধ্যস্থতায় উভয় পক্ষের মধ্যে ১৯৪৯ খ্রিস্টাব্দে একটি সন্ধি স্বাক্ষরিত হয়। এর দ্বারা ইন্দোনেশিয়া স্বাধীনতা লাভ করে। ড. সুকর্ণ ইন্দোনেশিয়ার প্রথম রাষ্ট্রপতি এবং ড. মহম্মদ হাত্তা প্রথম প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন।

(FAQ) ইন্দোনেশিয়া সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. কখন কার নেতৃত্বে ইন্দোনেশীয় জাতীয়তাবাদী দল প্রতিষ্ঠিত হয়?

১৯২৭ খ্রিস্টাব্দে ড. সুকর্ণর নেতৃত্বে।

২. ইন্দোনেশিয়ায় কাদের উপনিবেশ ছিল?

হল্যাণ্ডের।

৩. কখন কার নেতৃত্বে ইন্দোনেশিয়ায় একটি প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত?

ড. সুকর্ণ-এর নেতৃত্বে ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দের ১৭ আগস্ট।

৪. ইন্দোনেশিয়া কখন স্বাধীনতা লাভ করে?

১৯৪৯ খ্রিস্টাব্দে।

৫. ইন্দোনেশিয়ার প্রথম রাষ্ট্রপতি কে ছিলেন?

ড. সুকর্ণ।

৬. ইন্দোনেশিয়ার প্রথম প্রধানমন্ত্রী কে ছিলেন?

ড. মহম্মদ হাত্তা।

Leave a Comment