চিতোর

ঐতিহাসিক চিতোর বা চিতোরগড় শহরটির অবস্থান, দুর্গ শহর, সীমা, দুর্গের ধ্বংসসাধন, চিতোর দুর্গ নির্মাণ, চিতোর দুর্গ দখল, বিশিষ্টতা অর্জন, বাহাদুর শাহের দুর্গ দখল, আকবরের দুর্গ দখল, শান্তি চুক্তি, দুর্গের সংস্কার, কালিকা মাতার মন্দির, বিজয় স্তম্ভ, কীর্তি স্তম্ভ, রানা কুম্ভের প্রাসাদ, রানী পদ্মিনীর প্রাসাদ, মহারানা প্রতাপ জয়ন্তী, মীরা মহোৎসব, তিজ, গাঙ্গোর উৎসব, জওহর মেলা ও রং তেরাস উৎসব সম্পর্কে জানবো।

চিতোর

অবস্থানভারতের রাজস্থান রাজ্য
রাজবংশসিসোদিয়া
রানাউদয়সিংহ, প্রতাপ সিংহ, অমর সিংহ
যুদ্ধহলদিঘাটের যুদ্ধ
চিতোর

ভূমিকা:- পশ্চিম ভারতের রাজস্থান রাজ্যের একটি প্রধানশহর হল চিতোর বা চিতোরগড়। ঐতিহাসিক চিতোরগড় শহর চিতোরগড় জেলার প্রশাসনিক সদর দফতর।

অবস্থান

ভারতের রাজস্থান রাজ্যের ঐতিহাসিক চিতোর বা চিতোরগড় শহরটি বানাসের উপনদী বেরাচ নদীর তীরে অবস্থিত।

দুর্গ শহর

চিতোরগড় শহরটি ছিল রাজপুত মেবার রাজ্যের একটি প্রধান দুর্গ। এটি গম্ভিরি ও বেরাচ নদীর তীরে অবস্থিত।

সীমা

পূর্বে মধ্য প্রদেশের নিমুচ, মন্দসৌর ও রতলাম জেলা এবং দক্ষিণে রাজস্থানের প্রতাপগড় জেলা, পূর্বে উদয়পুর ও রাজসমন্দ এবং উত্তরে ভিলওয়ারা দ্বারা সীমাবদ্ধ। পূর্ব ও উত্তর অংশ রাজস্থানের ভিলওয়ারা, বুন্দি ও কোটা জেলা দ্বারা বেষ্টিত এবং দক্ষিণ ও পশ্চিম দিক মধ্য প্রদেশের নীমুচ জেলা দ্বারা বেষ্টিত।

দুর্গের ধ্বংস সাধন

চিতোর দুর্গের আবাসস্থল ভারত ও এশিয়ার বৃহত্তম দুর্গ। এটি তিনবার ধ্বংস হয়েছিল। প্রথম ১৩০৩ সালে আলাউদ্দিন খলজি দ্বারা, দ্বিতীয় বার ১৫৩৫ সালে গুজরাটের বাহাদুর শাহ দ্বারা এবং সর্বশেষে ১৫৬৮ সালে মুঘল সম্রাট আকবরের দ্বারা।

চিতোর দুর্গ নির্মাণ

মূলত চিত্রকূট নামে পরিচিত চিতোর দুর্গটি চিত্রাঙ্গ নামে একজন মরি রাজা নির্মাণ করেছিলেন বলে জানা যায়।

চিতোর দুর্গ দখল

গুহিলা (গাহলোট) শাসক বাপ্পা রাওয়াল ৭২৮ মতান্তরে ৭৩৪ খ্রিস্টাব্দে দুর্গটি দখল করেছিলেন বলে জানা যায়।

চিতোর দুর্গ দখল

১৩০৩ সালে দিল্লি সুলতানি শাসক আলাউদ্দিন খলজি গুহিলা রাজা রত্নসিংহকে পরাজিত করেন এবং দুর্গটি দখল করেন। দুর্গটি পরে গুহিলাদের সিসোদিয়া শাখার রাজা হাম্মির সিং কর্তৃক দখল করা হয়।

বিশিষ্টতা অর্জন

চিতোর তার উত্তরসূরিদের আমলে বিশিষ্টতা অর্জন করেছিল।এই উত্তরসূরিদের মধ্যে রানা কুম্ভ এবং রানা সঙ্গের নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

বাহাদুর শাহের দুর্গ দখল

১৫৩৫ সালে গুজরাটের বাহাদুর শাহ দুর্গটি অবরোধ করেন এবং জয় করেন। মুঘল সম্রাট হুমায়ুন তাকে তাড়িয়ে দেওয়ার পর দুর্গটি রাজপুত সিসোদিয়া বংশকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।

আকবরের দুর্গ দখল

১৫৬৭-৬৮ সালে মুঘল সম্রাট আকবর দুর্গটি অবরোধ ও দখল করেন। এই সময় রাজা উদয়সিংহ উদয়পুরে মেবারের রাজধানী স্থানান্তর করেন।

শান্তি চুক্তি

১৬১৫ সালেজাহাঙ্গীর ও মেবারের মহারানা প্রথম অমর সিংহের মধ্যে একটি শান্তি চুক্তি হয়। এর দ্বারা মেবার মুঘল আধিপত্য স্বীকার করে এবং দুর্গের পাশাপাশি চিতোরগড়ের আশেপাশের অঞ্চলগুলি মেবারকে দেওয়া হয়।

দুর্গের সংস্কার

চিতোর দুর্গটি ব্রিটিশ ভারতীয় সাম্রাজ্য দ্বারা দখল করা হয়। ব্রিটিশ রাজের সময় ১৯০৫ সালে দুর্গটি সংস্কার করা হয়েছিল।

চিতোর দুর্গ

চিতোর দুর্গটি একটি ১৮০ মিটার পাহাড়ের উপর অবস্থিত। এটি ৭০০ একর এলাকায় বিস্তৃত। এটি সপ্তম শতাব্দীতে মৌর্যদের দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। পঞ্চ পান্ডবদের ভীম এটি নির্মাণ করেছিলেন বলেও একটি বিশ্বাস রয়েছে। এই দুর্গ ছিল গোরা, বাদল, রানা কুম্ভ, মহারানা প্রতাপ, জয়মাল, পাট্টা প্রমূখের মতো অনেক মহান রাজপুত যোদ্ধার দুর্গ।

কালিকা মাতার মন্দির

কালিকা মাতা মন্দিরটি মূলত অষ্টম শতাব্দীতে সূর্য দেবতার জন্য নির্মিত হয়েছিল। পরে চতুর্দশ শতকে দেবী কালীর মন্দিরে রূপান্তরিত হয়েছিল। নবরাত্রির উৎসবের দিনগুলিতে মেলার আয়োজন করা হয় এবং বিভিন্ন স্থান থেকে তীর্থযাত্রীরা এখানে মন্দিরে প্রণাম করতে আসেন।

বিজয় স্তম্ভ

বিজয় স্তম্ভ হল একটি বিশাল নয় তলা টাওয়ার। ১৪৪০ সালে মালওয়া ও গুজরাটের শাসকদের বিরুদ্ধে বিজয়ের স্মৃতিতে মহারানা কুম্ভ দ্বারা নির্মিত হয়েছিল। এটি ১২২ ফুট উঁচু এবং ১০ ফুট উঁচুতে দাঁড়িয়ে আছে। ভিত্তি টাওয়ারের বাইরের দেয়ালে ভাস্কর্য ও খোদাই করা আছে। এর শীর্ষ থেকে চারপাশের দুর্দান্ত দৃশ্য দেখায়। টাওয়ারের ভিতরের দেওয়ালে দেবতা, অস্ত্র ইত্যাদির ছবি খোদাই করা আছে।

কীর্তি স্তম্ভ

  • (১) কীর্তি স্তম্ভ (টাওয়ার অফ ফেম) হল একটি ২২ মিটার উচ্চ টাওয়ার যা দ্বাদশ শতকে নির্মিত হয়েছিল। কীর্তি স্তম্ভ চিতোরগড় দুর্গের ভিতরে নির্মিত। এটি জৈন ধর্মের প্রথম তীর্থঙ্কর ঋষভকে উৎসর্গ করা হয়েছে।
  • (২) এটি একটি বণিক দ্বারা নির্মিত হয়েছিল এবং জৈন মন্দিরের মূর্তি দ্বারা সজ্জিত। এটি একটি সাততলা স্তম্ভ যা দিগম্বর জৈন সম্প্রদায়ের বিহারওয়াল মহাজন সানয় দ্বারা নির্মিত হয়েছিল।
  • (৩) এর চার কোণে দিগম্বর শৈলীতে শ্রী আদিনাথজির মূর্তি খোদাই করা আছে যার প্রত্যেকটি পাঁচ ফুট উঁচু এবং অন্যান্য স্থানে দেবতাদের জৈন বংশের জন্য পবিত্র বেশ কয়েকটি ছোট মূর্তি খোদাই করা আছে।

রানা কুম্ভের প্রাসাদ

  • (১) বিজয় স্তম্ভের কাছেই অবস্থিত ছিল রানা কুম্ভের প্রাসাদ। এটি উদয়পুরের প্রতিষ্ঠাতা মহারানা উদয় সিংহের জন্মস্থান।
  • (২) দাসী পান্না ধায়ের বীরত্বপূর্ণ কাজের জন্য রাজা উদয়সিংহের জীবন রক্ষা পায়।রাজা তার পুত্রকে রাজপুত্রের স্থলাভিষিক্ত করেন, ফলে তার পুত্র বনবীরের হাতে নিহত হয়।
  • (৩) তিনি রাজকুমারকে একটি ফলের ঝুড়িতে নিরাপদে নিয়ে যান। রানি মীরা বাইও এই প্রাসাদে থাকতেন। এটি সেই জায়গা যেখানে রানী পদ্মিনী অন্যান্য মহিলাদের সাথে জওহর করেছিলেন।

রানী পদ্মিনীর প্রাসাদ

কিংবদন্তি অনুসারেরানী পদ্মিনীর প্রাসাদ যেখান থেকে এমন কোণে আয়না প্রতিস্থাপন করে দিল্লির সুলতান আলাউদ্দিন খলজিকে রানীর প্রতিচ্ছবি দেখার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। খলজিকে রানীর স্বামী রাওয়াল রতন সিং সতর্ক করেছিলেন যে তিনি যদি ফিরে না যান তাহলে তার ঘাড় কেটে ফেলা হবে।

উৎসব

মেবারের উল্লেখযোগ্য উৎসব গুলি হল-

(১) মহারানা প্রতাপ জয়ন্তী

  • (ক) কিংবদন্তি মহারানা প্রতাপ ছিলেন একজন সত্যিকারের দেশপ্রেমিক যিনি প্রথম স্বাধীনতা যুদ্ধের সূচনা করেছিলেন। মহারানা দ্বিতীয় উদয়সিংহ ও মহারানি জয়বন্ত বাই সোঙ্গারার পুত্র মহারানা ১৫৪০ সালের ৯ মে রাজস্থানের রাজসামন্দ জেলার কুম্ভলগড়ে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।
  • (খ) মহারানা প্রতাপকে বীরত্ব, গর্ব, দেশপ্রেম এবং স্বাধীনতার চেতনার প্রতীক হিসাবে দেখা হয়। তাঁর জন্মবার্ষিকী (মহারানা প্রতাপ জয়ন্তী) প্রতি বছর জ্যৈষ্ঠ শুক্লা পর্বের তৃতীয় দিনে পূর্ণাঙ্গ উৎসব হিসেবে পালিত হয়।
  • (গ) মহারানা প্রতাপ জয়ন্তীর দিনে সর্বত্র তাঁর স্মরণে বিশেষ পূজা ও শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। বিতর্কের মতো বেশ কিছু সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়।

(২) মীরা মহোৎসব

  • (ক) ভগবান কৃষ্ণের একনিষ্ঠ অনুসারী ছিলেন মীরা বাই।তিনি ছিলেন প্রেমভক্তি (ঐশ্বরিক প্রেম) এর অন্যতম প্রধান প্রবক্তা এবং একজন অনুপ্রাণিত কবি।
  • (খ) মীরা বাই ছিলেন একজন রাজপুত রাজকন্যা যিনি উত্তর ভারতের রাজস্থান রাজ্যে বসবাস করতেন। মীরা ছিলেন রাজপুত রাজকন্যা ১৪৯৮ সালে রাজস্থানের মেডতায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন।
  • (গ) তার পিতা রতন সিং ছিলেন যোধপুরের শাসক ও প্রতিষ্ঠাতা রাও দুদার পুত্র। রতন সিং রাঠোর বংশের ছিলেন। তিনি চিতোরের শাসক ভোজ রাজের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।
  • (ঘ) মীরা স্মৃতি সংস্থান (মীরা মেমোরিয়াল ট্রাস্ট) চিতোরগড় জেলা কর্মকর্তাদের সাথে প্রতি বছর শারদ পূর্ণিমার দিনে (মীরাবাইয়ের জন্মবার্ষিকীতে) তিন দিন ধরে মীরা মহোৎসবের আয়োজন করে।
  • (ঙ) অনেক বিখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী এবং গায়ক এই উদযাপনে ভজন গাওয়ার জন্য একত্রিত হন। তিন দিনের উদযাপনে পূজা, আলোচনা, নাচ, আতশবাজির ব্যবস্থা করা হয়।

(৩) তিজ

  • (ক) চিতোরগড়ের অন্যতম প্রধান উৎসবতিজ, যা অত্যন্ত উৎসাহের সাথে পালিত হয়। তিজ হল দোলনার উৎসব। এটি শ্রাবণ (আগস্ট) মাসের বর্ষার আগমনকে চিহ্নিত করে।
  • (খ) বর্ষার বৃষ্টি ঝরঝরে জমিতে পড়ে এবং ভেজা মাটির মনোরম ঘ্রাণ বাতাসে ভেসে ওঠে। দোলনা গাছ থেকে ঝুলানো হয় এবং ফুল দিয়ে সজ্জিত করা হয়।
  • (গ) বর্ষার আগমন উদযাপনে সবুজ পোশাক পরা তরুণী ও নারীরা গান গায়। এই উৎসবটি দেবী পার্বতীকে উৎসর্গ করা হয়।
  • (ঘ) ভগবান শিবের সাথে পার্বতীর মিলনকে স্মরণ করে এই উৎসব। দেবী পার্বতীর মতো দাম্পত্য সুখের সন্ধানকারীরা এই উৎসবে পূজা করেন।

(৪) গাঙ্গোর উৎসব

  • (ক) রাজস্থানের রঙিন এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থানীয় উৎসব হল গাঙ্গোর উৎসব।জুলাই-আগস্ট মাসে সারা রাজ্য জুড়ে মহিলারা অত্যন্ত উৎসাহ ও ভক্তির সাথে ভগবান শিবের সহধর্মিণী গৌরীর পূজা করে।
  • (খ) গন হল শিব এবং গৌড়ের সমার্থক শব্দ যা গৌরী বা পার্বতীকে বোঝায় যিনি সৌভাগ্যের (বৈবাহিক সুখ)প্রতীক। গৌরী হল পরিপূর্ণতা এবং দাম্পত্য প্রেমের মূর্ত প্রতীক।
  • (গ) অবিবাহিত মহিলারা ভাল স্বামীর আশীর্বাদ পাওয়ার জন্য তাকে পূজা করে। বিবাহিত মহিলারা তাদের স্বামীর কল্যাণ, সুস্বাস্থ্য, দীর্ঘায়ু এবং সুখী বিবাহিত জীবনের জন্য এই পূজা করে।

(৫) জওহর মেলা

  • (ক) চিতোর দুর্গ এবং চিতোরগড় শহর “জওহর মেলা” নামে সবচেয়ে বড় রাজপুত উৎসবের আয়োজন করে। এটি প্রতি বছর একজন জওহরের বার্ষিকীতে অনুষ্ঠিত হয়, তবেতার কোনও নাম বলা হয়নি।
  • (খ) সাধারণত বিশ্বাস করা হয় যেরানী পদ্মিনীর জওহরের স্মরণে এটি পালন করা হয়। এই উৎসবটি মূলত রাজপুত পূর্বপুরুষ এবং চিতোরগড় দুর্গে ঘটে যাওয়া তিনটি জওহরের বীরত্বের স্মরণে অনুষ্ঠিত হয়।
  • (গ) বিপুল সংখ্যক রাজপুত, যার মধ্যে বেশিরভাগ রাজকীয় পরিবারের বংশধরজওহর উদযাপনের জন্য মিছিল করে।

(৬) রং তেরাস

  • (ক) মেবারের একটি জনপ্রিয় আদিবাসী উৎসব হল রং তেরাস।এটি চৈত্র মাসের ১৩তম চাঁদ রাতে পালিত হয়। এটি একটি বড় বর্ণাঢ্য মেলা।
  • (খ) গম কাটার আনন্দে উপজাতীদের বিশাল সমাবেশ পঞ্চদশ শতক থেকে রং তেরাস উদযাপন করে আসছে। এটি কৃষকদের ধন্যবাদ উৎসব।
  • (গ) কৃষকরা তাদের পরের বছরের খাদ্য সরবরাহ করার জন্য ধাত্রী মাতা তথা ভূমাতাকে তাদের সম্মান জানায়।

উপসংহার:- মেবারের রাজধানী চিতোরের হিন্দু রাজপুত শাসকরা তাদের স্বাধীনতা বজায় রাখার জন্য মৃত্যুর সাথে লড়াই করেছিল।অন্যদিকে মহিলারা জওহর (গণ আত্মহনন) দ্বারা আত্মহত্যা করেছিল।

(FAQ) চিতোর সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. মেবারের রাজধানীর নাম কি?

চিতোর বা চিতোরগড়।

২. মেবারের রাজধানী চিতোর থেকে উদয়পুরে স্থানান্তর করেন কে?

রানা উদয়সিংহ।

৩. চিতোর দুর্গ কারা অবরোধ করেছিল?

আলাউদ্দিন খলজি (১৩০৩), বাহাদুর শাহ (১৫৩৫), আকবর (১৫৬৭-৬৮)।

Leave a Reply

Translate »