মেবার

ঐতিহাসিক স্থান মেবার -এর অবস্থান, মেবারের অন্তর্ভুক্ত, নামকরণ, রাজপুত শাসিত, সীমা, মালভূমি ও পাহাড়, মেবারের কেন্দ্রে প্রবাহিত জলাশয়, উত্তর পূর্ব অঞ্চল, দক্ষিণ পশ্চিম অংশ, আরাবল্লী পর্বত, বিভিন্ন অভয়ারণ্য, মেবারের রানা ও হলদিঘাটের যুদ্ধ সম্পর্কে জানবো।

ঐতিহাসিক স্থান মেবার

অবস্থানদক্ষিণ রাজস্থান
ভাষামেবারি
প্রধান রাজবংশসিসোদিয়াস (১৩২৬-১৯৫২)
রাজারাণা প্রতাপ সিংহ, রাণা অমর সিংহ
রাজধানীচিতোরগড় ও উদয়পুর
ঐতিহাসিক স্থান মেবার

ভূমিকা:- মেবার উত্তর পশ্চিম ভারতের একটি প্রদেশ, বর্তমানে এই প্রদেশ রাজস্থান রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত।ভারতের রাজস্থান রাজ্যের দক্ষিণ মধ্য অংশের একটি ঐতিহাসিক অঞ্চল হল মেবার।

মেবারের অন্তর্ভুক্ত

ঐতিহাসিক স্থান মেবারের মধ্যে বর্তমানের ভিলওয়ারা, চিতোরগড়, প্রতাপগড়, রাজসমন্দ, উদয়পুর, নিমুচ এবং মধ্যপ্রদেশের মন্দসৌর এবং গুজরাটের কিছু অংশ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

মেবারের নামকরণ

  • (১) মেবার শব্দটি মেদাপাটার আঞ্চলিক রূপ, যা এই অঞ্চলের প্রাচীন নাম। ৯৯৬-৯৭ খ্রিস্টাব্দে বিজাপুরের হথুন্ডিতে আবিষ্কৃত প্রাচীনতম লিপিতে মেদাপাটা শব্দের উল্লেখ করা হয়েছে।
  • (২) “পাটা” বা “পটাকা” শব্দে একটি প্রশাসনিক অঞ্চল বোঝায়। ঐতিহাসিক জি.সি. রায়চৌধুরীর মতে, মেদাপাটার নামকরণ করা হয়েছিল মেদা উপজাতির নামানুসারে, যা বরাহমিহির বৃহৎ সংহিতায় উল্লেখ করেছেন।
  • (৩) ১৪৬০ সালের কুম্ভলগড় শিলালিপি মেদাদের বর্ধন-গিরি (মেওয়ার অঞ্চলের আধুনিক বদনর) সঙ্গে যুক্ত করে। ঐতিহাসিক শশী ভূষণ চৌধুরী প্রাচীন মেডাসকে আধুনিক মের মানুষের সাথে যুক্ত করেছেন।

রাজপুত শাসিত

বহু শতাব্দী ধরে এই অঞ্চলটি রাজপুতদের দ্বারা শাসিত ছিল। ভারতে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির শাসনের সময় উদয়পুর রাজ্য একটি প্রশাসনিক অঞ্চল হিসাবে আবির্ভূত হয় এবং ব্রিটিশ যুগের শেষ পর্যন্ত থেকে যায়।

মেবারের সীমা

ঐতিহাসিক স্থান মেবার উত্তর-পশ্চিমে আরাবলি পর্বত, উত্তরে আজমির, দক্ষিণে গুজরাট এবং রাজস্থানের ভাগদ অঞ্চল, দক্ষিণে মধ্যপ্রদেশ রাজ্যের মালওয়া অঞ্চল এবং পূর্বে রাজস্থানের হাডোটি অঞ্চলের মধ্যে অবস্থিত।

মালভূমি ও পাহাড়

মেবারের উত্তর ও পূর্ব অংশ একটি উঁচু মালভূমি দিয়ে গঠিত যেখানে পশ্চিম ও দক্ষিণের অংশ ছিল পাথুরে এবং ঘন পাহাড়ি অরণ্য।

মেবারের কেন্দ্রে প্রবাহিত জলাশয়

জলাশয় বিভাজনের ক্ষেত্রে বঙ্গোপসাগরও খাম্বাত উপসাগরপ্রায় মেবার কেন্দ্রের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়।

উত্তর পূর্ব অঞ্চল

মেবারের উত্তর ও পূর্ব অংশ হল একটি মৃদু ঢালু সমভূমি। বেদাচও বানাস নদী এবং এর উপনদী দ্বারা সৃষ্ট, যা উত্তর-পশ্চিমে যমুনা নদীর একটি উপনদী চম্বল নদীতে মিলিত হয়েছে।

দক্ষিণ পশ্চিম অংশ

এই অঞ্চলের দক্ষিণ এবং পশ্চিম অংশটি পাহাড়ি। বনস ও তার উপনদী এবং সবরমতি ও মাহি নদীর প্রধান জল এবং তাদের উপনদীগুলির মধ্যে বিভাজন চিহ্নিত করে, যা গুজরাট রাজ্যের মধ্য দিয়ে দক্ষিণে খাম্বাত উপসাগরে প্রবাহিত হয়।

আরাবল্লী পর্বত

এই অঞ্চলের উত্তর-পশ্চিম সীমানা তৈরি করেছে আরাবল্লী পর্বত। বেশিরভাগই পাললিক শিলা দ্বারা গঠিত, যেমন মার্বেল এবং কোটা পাথর, যা ঐতিহ্যগতভাবে একটি গুরুত্বপূর্ণ নির্মাণ সামগ্রী।

বিভিন্ন অভয়ারণ্য

অঞ্চলটি কাথিয়াবাড়-গির শুষ্ক পর্ণমোচী বনের বাস্তুতন্ত্রের অংশ। এখানে সুরক্ষিত এলাকাগুলির মধ্যে রয়েছে জয়সামান্দ বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য, কুম্ভলগড় বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য, বাসি বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য এবং সীতা মাতা বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য।

রানা

মেবারের রাজপুত শাসকদের রানা বলা হত। রানা উদয়সিংহ, রানা প্রতাপ সিংহ, রানা অমর সিংহ এখানকার উল্লেখযোগ্য শাসক।

হলদিঘাটের যুদ্ধ

মেবার রাজ্যের হলদিঘাট নামক স্থানে মানসিংহ -এর নেতৃত্বে সম্রাট আকবর -এর মোগল বাহিনীর সাথে মেবারের মহারানা প্রতাপ সিংহের হলদিঘাটের যুদ্ধ সংঘটিত হয়।

উপসংহার:- উত্তর ভারতের রাজস্থানের অন্তর্গত এই মেবার নানা ঐতিহাসিক নাটকীয় ঘটনার কেন্দ্রবিন্দু। আর মেবারের বিখ্যাত ঐতিহাসিক নায়ক ছিলেন বীর যোদ্ধা মহারানা প্রতাপ সিংহ। মেবারের সিংহ নামে পরিচিত এই মহারানা প্রতাপ মুক্তিসংগ্রাম ও দেশপ্রেমের অপর নাম।

(FAQ) ঐতিহাসিক স্থান মেবার সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. মেবার কোথায় অবস্থিত?

ভারতের রাজস্থানে।

২. মেবারের রাজধানী কোথায় ছিল?

চিতোরগড়।

৩. হলদিঘাটের যুদ্ধ কখন কাদের মধ্যে হয়?

১৫৭৬ খ্রিস্টাব্দে মেবারের মহারানা প্রতাপ সিংহের সাথে মোগল বাহিনীর।

Leave a Reply

Translate »