আলেকজান্ডার

প্রাচীন গ্রিসের ম্যাসিডন রাজ্যের বিখ্যাত বীর আলেকজান্ডার -এর জন্ম, পিতামাতা, শিক্ষা, রাজত্বকাল, পারস্য অভিযান, ভারত আক্রমণ, ভারতে পুরু ও আলেকজান্ডারের যুদ্ধ, সম্পর্কে জানবো।

আলেকজান্ডার

জন্ম৩৫৬ খ্রিস্টপূর্ব
পিতা ও মাতাফিলিপ, অলিম্পিয়া
রাজত্ব৩৩৬-৩২৩ খ্রিস্টপূর্ব
মৃত্যু৩২৩ খ্রিস্টপূর্ব
আলেকজান্ডার

ভূমিকা :- পৃথিবীর ইতিহাসে অন্যতম সফল সামরিক প্রধান আলেকজান্ডার দ্য গ্রেট। তিনি তৃতীয় আলেকজান্ডার বা ম্যাসিডনের রাজা হিসেবেও পরিচিত।

জন্ম

আলেকজান্ডার দ্যা গ্রেট প্রাচীন গ্রিসের মেসিডোনিয়াতে খ্রিস্টপূর্ব ৩৫৬ অব্দে জন্মগ্রহণ করেন। বর্তমানে মেসিডোনিয়া একটি সম্পুর্ণ স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র।

পিতামাতা

তাঁর পিতা ছিলেন মেসিডোনিয়ার রাজা দ্বিতীয় ফিলিপ এবং তাঁর মা ছিলেন উচ্চাভিলাষী রানী অলিম্পিয়া।

শিক্ষা

রাজা ফিলিপ জগৎবিখ্যাত দার্শনিক অ্যারিস্টটলকে নিযুক্ত করেছিলেন আলেকজান্ডারের শিক্ষক হিসাবে। প্রায় তিন বছর সান্নিধ্যে থাকার পর ১৬ বছর বয়সে তাঁর পাঠগ্রহণ সম্পুর্ণ হয়।

মায়ের ভূমিকা

আলেকজান্ডারের জীবনে তাঁর মায়ের ভূমিকা ছিল অসামান্য। ছেলেবেলা থেকেই তিনি শিশু আলেকজান্ডারকে বুঝিয়েছিলেন পারস্য জয় করার জন্য তাঁর জন্ম হয়েছে।

বিভিন্ন নাম

তিনি ফার্সি ভাষায় ‘ইস্কান্দর’, মধ্য পশ্চিমাস্থানে ‘যুল-কারনাইন’, আরবে ‘আল-ইস্কান্দার আল কাবের’, পস্তুতে ‘স্কান্দর’, হিব্রুতে ‘আলেকজান্ডার মোকদন’, আরমেনিয়ানে ‘ট্রে-কারনাইয়া’ ইত্যাদি নামে পরিচিত। উর্দু ও হিন্দিতে সিকান্দার নামে পরিচিত, যার অর্থ ‘পারদর্শী’ বা ‘অত্যন্ত পারদর্শী’।

সিংহাসনে আরোহণ

খ্রিস্টপূর্ব ৩৩৬ অব্দে ২০ বছর বয়সে মেসিডোনিয়ার সিংহাসনে আরোহণ করেন বিশ্ব বিখ্যাত বীর আলেকজান্ডার।

বর্তমানে ম্যাসিডন

ম্যাসিডোনিয়া বর্তমান ইউরোপের বলকান অঞ্চলের একটি স্বাধীন রাষ্ট্র। তাঁর পিতা ফিলিপ ছিলেন ম্যাসিডোনিয়ার রাজা। তাঁর মৃত্যুর পূর্বে তিনি পরিচিত পৃথিবীর বেশির ভাগ জয় করেছিলেন।

অভিশপ্ত আলেকজান্ডার

তিনি পারস্যে অভিশপ্ত আলেকজান্ডার নামে পরিচিত। কারণ, তিনি পারস্য সাম্রাজ্য জয় করেন এবং এর রাজধানী পারসেপলিস ধ্বংস করেন।

বিজয় গৌরব

আলেকজান্ডার একে একে পারস্য, আনাতোলিয়া, সিরিয়া, ফোনিসিয়া, জুডিয়া, গাজা, মিশর, ব্যাক্ট্রিয়া এবং মেসোপটেমিয়া জয় করেন।

সাম্রাজ্যের বিস্তার

আলেকজান্ডার তাঁর সামরিক কৌশল ও পদ্ধতির জন্য বিশ্ববিখ্যাত। তাঁর সাম্রাজ্য ম্যাসিডোনিয়া থেকে পাঞ্জাব পর্যন্ত বিস্তৃত হয়।

সৈন্য

আলেকজান্ডারের পদাতিক সৈন্যসংখ্যা ছিল ৫০ হাজার, অশ্বারোহী সৈন্য ছিল প্রায় ৬ হাজার। এছাড়া তাঁর ১২০ টি জাহাজে ছিল ৪০হাজারের মত নাবিক ও মাঝি মল্লা।

পারস্য অভিযান

আলেকজান্ডারের পারস্য বিজয় একদিনে কিংবা একটি যুদ্ধে সম্ভব হয়নি। যুদ্ধে

  • (১) এশিয়া মাইনর অর্থাৎ বর্তমান তুরস্কে বেশ কয়েকটি যুদ্ধে পারসিয়ানদের সাথে জেতার পর আলেকজান্ডার মিশর দখলের উদ্দেশ্যে প্রায় বিনা বাঁধায় এগিয়ে যেতে থাকেন।
  • (২) অতীত জৌলুস হারিয়ে মিশর তখন পারস্য সাম্রাজ্যের সামান্য অংশ মাত্র। তবে মিশরে প্রবেশের পথে বর্তমান ফিলিস্তিনের গাজায় শক্তিশালী বাঁধার সম্মুখীন হন আলেকজান্ডার।
  • (৩) গাজা জয়ের পর টায়ার নগর অবরোধ করেন তিনি। তারপর আলেকজান্ডার মিশরে পৌঁছালে তাঁকে মিশরের নতুন ফ্যারাও ঘোষণা করা হয়।
  • (৪) বেশ কয়েকটি যুদ্ধের পর খ্রিস্টপূর্ব ৩৩১ অব্দে বিখ্যাত গগোমেলার যুদ্ধে পারস্যের রাজা তৃতীয় দরায়ুস চূড়ান্তভাবে পরাজিত হয়ে সাম্রাজ্য ছেড়ে পালিয়ে যান। আলেকজান্ডারের পারস্য দখল সম্পূর্ণ হয়।

আলেকজান্ডারের ভারত অভিযান

পারস্য বিজয়ে পর খ্রিস্টপূর্ব ৩২৭ অব্দে হিন্দুকুশ পর্বত অতিক্রম করে ধননন্দ -এর আলেকজান্ডার ভারত আক্রমণ করেন। ভারতবর্ষের ইতিহাসে এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ঘটনা।

  • (১) এই অভিযানের সময় উত্তর-পশ্চিম ভারত অনেকগুলো পরস্পর বিবাদমান ছোট ছোট রাজ্যে বিভক্ত ছিল ।
  • (২) প্রথমে আলেকজান্ডার পুষ্কলাবতীর রাজা অষ্টককে, তারপর অশ্বক জাতিকে পরাজিত করেন। অন্যদিকে তক্ষশীলার রাজা তার কাছে স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পণ করেন।
  • (৩) ঝিলামের রাজা পুরু তাঁর বিরুদ্ধে বীরত্বের সঙ্গে হিদাসপিসের যুদ্ধ করে পরাজিত ও বন্দী হন। বন্দী পুরু ও আলেকজান্ডারের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপিত হয়।
  • (৪) সবমিলিয়ে ভারতবর্ষে প্রায় ১৯ মাসের মত ছিলেন আলেকজান্ডার।

অভিযানের ফলাফল

আলেকজান্ডারের অভিযানের ফলে বিভিন্ন সভ্যতার মিলন ঘটে এবং এক নতুন সভ্যতার শুরু হয়। এই সভ্যতাই হেলেনেস্টিক সভ্যতা। গ্রিক ও গ্রিসের বাইরের বিভিন্ন সভ্যতায় আলেকজান্ডার ইতিহাসে, সাহিত্যে, পুরাণে জীবিত হয়ে আছেন।

ক্লান্ত সেনাবাহিনী

দীর্ঘদিন মাতৃভূমির বাইরে যুদ্ধ করতে করতে ক্লান্ত আলেকজান্ডারের সেনাবাহিনী আর সামনে অগ্রসর হতে চায় নি। তাই বাধ্য হয়ে তিনি পাঞ্জাব থেকে প্রত্যাবর্তন করেন।

মৃত্যু

পথিমধ্যে ব্যাবিলনে থাকা অবস্থায় নেবুকাডনেজারের প্রাসাদে ৩২৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দে মাত্র ৩৩ বছর বয়সে অকস্মাৎ মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

উপসংহার :- মৃত্যুর পর আলেকজান্ডারের সাম্রাজ্য তাঁর ৭ জন সেনাপতি নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নেন। ভারত পড়েছিল সেনাপতি সেলুকাস -এর ভাগে। তবে চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য -এর উত্থানের কারণে ভারতবর্ষে গ্রিক শাসন বেশি দিন স্থায়ী হয়নি।

(FAQ) আলেকজান্ডার সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য ?

১. আলেকজান্ডার কোন দেশের শাসক ছিলেন?

গ্রিসের।

২. আলেকজান্ডারের সেনাপতির নাম কি?

সেলুকাস।

৩. দ্বিতীয় আলেকজান্ডার কার উপাধি ছিল? – আলাউদ্দিন খলজি

আলাউদ্দিন খলজি।

Leave a Reply

Translate »