রাজা ধননন্দ

আজ আমরা ধননন্দ -এর জন্ম, ধননন্দের গৃহীত ধর্ম, ধননন্দের সেনাবাহিনী, ধননন্দের সাম্রাজ্য, ধননন্দের সাম্রাজ্যের বিস্তার প্রভৃতি সম্পর্কে জানবো ।

রাজা ধননন্দ

রাজত্ব৩২৯ – ৩২১ খ্রিষ্টপূর্ব
পূর্বসূরিকৈবর্ত
উত্তরসূরিমৌর্য সম্রাট হিসেবে চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য
মৃত্যু৩২১ খ্রিস্টপূর্ব।
রাজা ধননন্দ

ভূমিকা :- বৌদ্ধ গ্রন্থ মহাবোধিবংশ অনুসারে প্রাচীন ভারতের নন্দ রাজবংশের শেষ শাসক ছিলেন ধননন্দ। নন্দ রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা মহাপদ্ম নন্দ -এর (উগ্রসেন নামেও পরিচিত) আট ভাইয়ের মধ্যে তিনি ছিলেন কনিষ্ঠ।

ধননন্দের জন্ম

আনুমানিক ৩৯০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ধননন্দ জন্মগ্রহণ করেন বলে মনে করা হয়।

বৌদ্ধ ঐতিহ্যে

বৌদ্ধ গ্রন্থ মহাবংশে নয় জন নন্দ রাজার নাম উল্লেখ করা হয়েছে, যারা সকলেই ভাই ছিলেন এবং মোট ২২ বছর পরপর রাজত্ব করেছিলেন। এই রাজাদের মধ্যে প্রথম ছিলেন উগ্রসেন এবং শেষ ছিলেন ধননন্দ বা উগ্র-বর্ষ (পালি ভাষায় উগ্গাসেন)

ধননন্দের গৃহীত ধর্ম

মহাবীর প্রবর্তিত জৈন ধর্মের অনুরাগী ছিলেন শেষ নন্দ রাজা ধননন্দ।

নবনন্দ

বলা হয়ে থাকে যে নয় জন রাজা পর পর নন্দ বংশে রাজত্ব করেছিলেন। এই নয়জন রাজা হলেন মহাপদ্ম নন্দ, পান্ডুকা, পান্ডুগতি, ভুটা-পাল, রাষ্ট্র-পাল, গোবিশানকা, দশা-সিদ্ধক, কৈবর্ত ও ধননন্দ। এরা একসাথে নবনন্দ নামে পরিচিত।

আলেকজান্ডারের সমসাময়িক রাজা

ধননন্দ আলেকজান্ডার -এর সমসাময়িক ছিলেন। গ্রীক লেখকদের কাছে তিনি ছিলেন ‘আগ্রামেস’। তিনি শক্তিশালী শাসক ছিলেন।

ধননন্দের সেনাবাহিনী

গ্রীক লেখকদের কাছ থেকে জানা যায় যে ধননন্দের ২০০০০ অশ্বারোহী, ২০০০০০ পদাতিক, ২০০০ রথ এবং ৩০০০ হাতি ছিল।

ধননন্দের সাম্রাজ্য

গঙ্গাহৃদি এবং প্রাসি তাঁর শাসনাধীন ছিল। মেগাস্থিনিস লিখেছেন যে ‘গঙ্গাহৃদি’ বলতে গঙ্গা নদীর ব-দ্বীপস্থ অধিবাসীদের বোঝাত এবং ‘প্রাসি’ বলতে প্রাচ্যগণ অর্থাৎ, পাঞ্চালগণ, শূরসেনগণ কোশলকাশী ও বিদেহ’র অধিবাসীবৃন্দ।

ধননন্দের সাম্রাজ্যের বিস্তার

নন্দ রাজা ধননন্দের সাম্রাজ্য পূর্বে বাংলা, পশ্চিমে পাঞ্জাব ও দক্ষিণে বিন্ধ্য পর্বতমালা পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল।

চাণক্য ও ধননন্দ

কৌটিল্য বা চাণক্য নামে একজন ব্রাহ্মণ দার্শনিক ধননন্দ দ্বারা অপমানিত হয়েছিলেন। তিনি তাকে উৎখাত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। চাণক্য বিশাল সেনাবাহিনী গড়ে তুলে ধননন্দের রাজধানী পাটলিপুত্র জয় করে।

অজনপ্রিয় রাজা ধননন্দ

সমস্ত ঐতিহাসিক বিবরণ একমত যে শেষ নন্দ রাজা তার প্রজাদের মধ্যে জনপ্রিয় ছিলেন।

  • (১) ডিওডোরাসের মতে, পোরাস আলেকজান্ডারকে বলেছিলেন যে সমসাময়িক নন্দ রাজা “অর্থহীন চরিত্রের” একজন মানুষ ছিলেন এবং তার প্রজাদের দ্বারা তাকে সম্মান করা হত না। কারণ, তাকে নিম্ন বংশোদ্ভূত বলে মনে করা হয়।
  • (২) কার্টিয়াস বলেছেন যে পোরাসের মতে, নন্দ রাজা তার প্রজাদের কাছে তুচ্ছ ছিলেন।
  • (৩) প্লুটার্ক দাবি করেন যে চন্দ্রগুপ্ত আলেকজান্ডারের সাথে দেখা করে বলেছিলেন যে আলেকজান্ডার সহজেই নন্দ রাজ্য জয় করতে পারেন। কারণ, নন্দ রাজা ধননন্দ তার প্রজাদের দ্বারা ঘৃণ্য ছিলেন।
  • (৪) শ্রীলঙ্কার বৌদ্ধ ঐতিহ্য নন্দদের লোভী হওয়ার জন্য এবং নিপীড়নমূলক কর আরোপের জন্য দায়ী করে।
  • (৫) ভারতের পুরাণগুলি নন্দদেরকে অধর্মিক হিসাবে চিহ্নিত করে।

জনগণের বিক্ষোভ

বিপুল সেনাবাহিনীর ব্যয়ভার বহনের জন্য ধননন্দকে অত্যধিক কর আদায় করতে হত। সাধারণের প্রতি ধননন্দের ব্যবহারও মোটেই ভাল ছিল না। এর ফলে জনগণমনে তীব্র বিক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছিল।

নন্দ বংশের উচ্ছেদ

চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য নন্দ সাম্রাজ্যের এই বিক্ষোভের সুযোগ গ্রহণ করেন এবং তক্ষশীলা নগরীর ব্রাহ্মণ কৌটিল্যের সাহায্যে নন্দবংশের উচ্ছেদসাধন করে মগধ -এর সিংহাসন অধিকার করেন।

মৌর্য সাম্রাজ্যের সূচনা

এই ঘটনার মধ্যে দিয়ে নন্দ সাম্রাজ্যের পতন এবং মৌর্য সাম্রাজ্যের সূচনা হয়েছিল। ধননন্দের মৃত্যু আনুমানিক ৩২৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দে রাজা ধননন্দ মৃত্যুবরণ করেন।

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে ধননন্দ

চাণক্য বা চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের জীবন চিত্রিত ভারতীয় টেলিভিশনের প্রায় প্রতিটি সিরিজে ধননন্দ প্রাথমিক প্রতিপক্ষ হিসেবে উপস্থিত হন।

  • (১) মহাকাব্যিক ঐতিহাসিক নাটক চাণক্য (টিভি সিরিজ) তে, সুরজ চাড্ডা ধননন্দের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন।
  • (২) চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য টিভি সিরিজে সূরজ থাপার ধননন্দের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।
  • (৩) In Chandra Nandini TV Serial, Arpit ranka portrayed the role of Dhana Nanda.
  • (৪) পোরাস এবং চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য ছবিতে সৌরভ রাজ জৈন ধননন্দের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন।

উপসংহার :- ধননন্দ ছিলেন উপমহাদেশের ইতিহাসে বাংলাদেশে জন্মগ্রহণকারী প্রথম সম্রাট।

(FAQ) রাজা ধননন্দ সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য ?

১. নন্দ বংশের শেষ রাজা কে ছিলেন ?

ধননন্দ।

২. নন্দ বংশের শ্রেষ্ঠ রাজা কে ছিলেন ?

ধননন্দ।

Leave a Reply

Translate »