নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়

আজ আমরা নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় -এর নামকরণ, ক্যাম্পাস, ছাত্র ও শিক্ষক সংখ্যা, লাইব্রেরি, পঠিত বিষয়, প্রাচীন নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুকরণ, প্রথম চ্যান্সেলর, বর্তমানে নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে জানবো ।

Table of Contents

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়

ধরণকেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়
প্রতিষ্ঠিত২০১৪ সাল
অবস্থানরাজগীর, নালন্দার কাছে, বিহার, ভারত
চ্যান্সেলরবিজয় পি ভাটকর
উপাচার্যসুনাইনা সিং
ওয়েবসাইটnalandauniv.edu.in
নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়

ভূমিকা :- নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় (নালন্দা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি নামেও পরিচিত) ভারতের বিহারের ঐতিহাসিক শহর রাজগীরে অবস্থিত একটি আন্তর্জাতিক এবং গবেষণা-নিবিড় বিশ্ববিদ্যালয়।

প্রাচীন নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়

ইতিহাস থেকে জানা যায় যে, নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় চতুর্থ শতাব্দীর শেষের দিকে অথবা পঞ্চম শতাব্দীর শুরুর দিকে প্রতিষ্ঠিত হয়, যা ছিলো তক্ষশিলার পরেই বিশ্বের সর্বাধিক প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রথম আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নামকরণ

নালন্দা গ্রামের নাম অনুসারেই এর নামকরণ করা হয় নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়। নালন্দা শব্দের অর্থ ‘দানে অকৃপণ’। বিদ্যাদান ও বিতরণে নালন্দা সত্যিই অকৃপণ ছিল।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস

প্রাচীন নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরো কমপ্লেক্সটি লাল ইটের চওড়া এবং উঁচু দেওয়াল দ্বারা সুরক্ষিত ছিল। পুরো বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসটি ছিলো ১৫ বর্গকিলোমিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত এবং এর মধ্যে কেবল দশ শতাংশ খনন করা হয়েছে আর বাকি ধ্বংসাবশেষ এখনও মাটির নিচে রয়েছে।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও শিক্ষক

প্রাচীন নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় প্রায় দশ হাজার ছাত্র ও ২০০০ শিক্ষক নিয়ে সুপ্রতিষ্ঠিত ছিল।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরি

প্রাচীন নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বাধিক আলোচিত এবং চিত্তাকর্ষক ভবনটি ছিল এর লাইব্রেরি। হাজার হাজার পবিত্র ও বিরল শাস্ত্রের জন্য গ্রন্থাগারটি নিজেই একটি বিশাল কমপ্লেক্স হিসাবে ব্যবহৃত হত। একটি লাইব্রেরির ভবন নয়তলা উঁচু ছিল।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ে পঠিত বিষয়

প্রাচীন নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ে শব্দবিদ্যা, হেতুবিদ্যা, চিকিৎসাবিদ্যা, দর্শনশাস্ত্র, ধর্মশাস্ত্র, বৌদ্ধধর্ম, জ্যোতির্বিজ্ঞান, গণিত, শরীরতত্ববিদ্যা, সংগীত, চিত্রকলা এসব বিষয় পড়ানো হতো। 

প্রাচীন নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যয়ভার

চিনা পরিব্রাজক হিউয়েন সাঙ -এর বিবরণ থেকে জানা যায়, নালন্দার শিক্ষা ছিলো সম্পূর্ণ বিনামূল্যে। থাকা, খাওয়া, চিকিৎসা সবই ছিল বিনামূল্যে। মূল ব্যয় বহন করতেন দেশের রাজা। জনসাধারণও স্বেচ্ছাপ্রণোদিত হয়ে সন্ন্যাসী ও ছাত্রদের জন্যে খাদ্যদ্রব্য, বস্ত্র ইত্যাদি দান করতেন।

ধর্মপাল ও নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়

পাল সম্রাট ধর্মপাল নালন্দায় এসে আচার্য দিগনাগের ছাত্র হিসাবে পড়াশোনা করেছিলেন। তিনি একটি তত্ত্ব উদ্ভাবন করেন এবং তা হল, বাহ্যিক জিনিসের কোনো অস্তিত্ব নেই এবং চেতনাই কেবল অস্তিত্বশীল।

আর্যভট্ট ও নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়

ভারতীয় গণিত ও ভারতীয় জ্যোতির্বিদ্যার শাস্ত্রীয় যুগের প্রথম গণিতবিদ-জ্যোতির্বিদদের মধ্যে প্রথম ছিলেন আর্যভট্ট। তিনি একসময় নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করেন।

অতীশ দীপঙ্কর ও নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়

বাংলার বিক্রমপুরের মানুষ জ্ঞানতাপস অতীশ দীপঙ্কর ছিলেন নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক।

প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুকরণ

এটি নালন্দার বিখ্যাত প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয়কে অনুকরণ করার জন্য সংসদের একটি আইন দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, যা পঞ্চম থেকে ত্রয়োদশ শতকের মধ্যে কাজ করেছিল।

পূর্ব এশিয়া শীর্ষ সম্মেলন  

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়কে পুনরুত্থিত করার ধারণাটি ২০০৭ সালে পূর্ব এশিয়া শীর্ষ সম্মেলনে অনুমোদন করা হয়েছিল। অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড ছাড়াও চীন, সিঙ্গাপুর, জাপান, মালয়েশিয়া এবং ভিয়েতনাম সহ এশিয়ার দেশগুলি এখানে প্রতিনিধিত্ব করেছিল।

আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান

বিশ্ববিদ্যালয়টি সংসদ কর্তৃক “আন্তর্জাতিক গুরুত্বের প্রতিষ্ঠান” হিসাবে মনোনীত হয়। ২০১৪ সালের ১ সেপ্টেম্বর নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়েরর প্রথম একাডেমিক অধিবেশন শুরু হয়েছিল।

প্রাথমিক পদক্ষেপ

প্রাথমিকভাবে রাজগীরে অস্থায়ী ভাবে ১৬০ হেক্টর (৪০০ একর) জুড়ে বিস্তৃত একটি আধুনিক ক্যাম্পাস আশা করা হচ্ছে, যা ২০২১ সালের মধ্যে শেষ হবে।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম চ্যান্সেলর

নোবেল বিজয়ী অমর্ত্য সেন নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম চ্যান্সেলর ছিলেন। তার পরে সিঙ্গাপুরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জর্জ ইয়েও চ্যান্সেলর পদে অধিষ্ঠিত হন।

বর্তমানে নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়

নালন্দা একতরফা ভাবে একটি স্নাতক স্কুল। বর্তমানে মাস্টার্স কোর্স এবং দর্শনে ডক্টরেট প্রোগ্রাম চালু আছে।

এ. পি. জে. আব্দুল কালামের অবদান

২০০৬ সালের ২৮ মার্চ ভারতের একাদশতম রাষ্ট্রপতি এ.পি.জে. আবদুল কালাম  বিহার বিধান মণ্ডলের যৌথ অধিবেশনে ভাষণ দেওয়ার সময় নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুনরুজ্জীবনের জন্য প্রস্তাব করেছিলেন।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় বিল

২০১০ সালের ২১ আগস্ট  রাজ্যসভায় এবং ২০১০ সালের ২৬ আগস্ট লোকসভায় পাস হয়েছিল নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় বিল, ২০১০।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় বিল আইনে পরিণতি

এই বিলটি ২১ সেপ্টেম্বর ২০১০ সালে রাষ্ট্রপতির সম্মতি লাভ করে যার ফলে বিলটি আইনে পরিণত হয়।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের আত্মপ্রকাশ

উপরিউক্ত আইনটি কার্যকর হলে ২০১০ সালের ২৫ নভেম্বর নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় আত্মপ্রকাশ করে।

আন্তর্জাতিক সাহায্য

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় প্রকল্পের আন্তর্জাতিক মাত্রা বারবার জোর দেওয়া সত্ত্বেও, অস্ট্রেলিয়া, চীন, থাইল্যান্ড, লাওস এবং ইন্দোনেশিয়া সহ পূর্ব এশিয়ার শীর্ষ সম্মেলনে অংশগ্রহণকারী দেশগুলি থেকে প্রাপ্ত মোট পরিমাণ হল ₹124.5 মিলিয়ন (US$1.6 মিলিয়ন)।

  • (১) চীনাদের দ্বারা প্রতিশ্রুত $1 মিলিয়ন ক্যাম্পাসে একটি চাইনিজ শৈলী বিল্ডিংয়ের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে।
  • (২) প্রাক্তন চ্যান্সেলর জর্জ ইয়োর ব্যক্তিগত উদ্যোগে সিঙ্গাপুরবাসীদের কাছ থেকে ১০ মিলিয়ন সিঙ্গাপুরিয়ান ডলার নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরি ভবনের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ করেছে।
  • (৩) জাপান নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণে অর্থায়নের প্রতিশ্রুতি দিলেও কিছুই দেয়নি। সিঙ্গাপুরও লাইব্রেরির জন্য অর্থ প্রদান করবে না, কারণ, ইয়ো পদত্যাগ করেছেন।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণে ব্যায়

অনুমান করা হয়েছে যে, নতুন বিশ্ববিদ্যালয়টি তৈরি করতে US$500 মিলিয়ন প্রয়োজন হবে। এর সাথে আশেপাশের অবকাঠামোর যথেষ্ট উন্নতির জন্য আরও US$500 মিলিয়ন প্রয়োজন হবে।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ে জমি দান

হস্তান্তর করেছে বিহার রাজ্য সরকার স্থানীয় লোকদের কাছ থেকে অধিগ্রহণ করা ১৭৯ হেক্টর (৪৪৩ একর) জমি বিশ্ববিদ্যালয়ে দান করে।  

নীতীশ কুমারের স্বপ্নের প্রকল্প

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের একটি স্বপ্নের প্রকল্প।

অবকাঠামো এবং স্থাপত্য

সেরা স্থাপত্য নকশা এবং একটি আন্তর্জাতিক অত্যাধুনিক প্রতিষ্ঠান নির্মাণের জন্য একটি বিশ্বব্যাপী প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস

স্কুল অফ হিস্টোরিক্যাল স্টাডিজ এবং স্কুল অফ ইকোলজি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল স্টাডিজে ১৫ জন ছাত্র নিয়ে ১ সেপ্টেম্বর ২০১৪ সালে নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক সেশন শুরু হয়েছে।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের হোস্টেল

রাজগীরে বিহার স্টেট ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন দ্বারা পরিচালিত একটি হোটেল প্রাথমিক হোস্টেলের থাকার ব্যবস্থা করে।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাস

৪৫৫ একর নতুন ক্যাম্পাসে ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে কার্যক্রম শুরু হয়। ২০২১ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে ক্যাম্পাসটি সম্পূর্ণরূপে চালু হবে বলে আশা করা হয়েছিল।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্থা ও প্রশাসন

  • (১) বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শনার্থী হন ভারতের রাষ্ট্রপতি। চ্যান্সেলর এবং গভর্নিং বোর্ডের চেয়ারপার্সন বিজয় ভাটকার। ভাইস চ্যান্সেলর হন সুনয়না সিং।
  • (২) চ্যান্সেলর, ভাইস-চ্যান্সেলর, সর্বোচ্চ অবদানের (ভারত, চীন, অস্ট্রেলিয়া, লাওস এবং থাইল্যান্ড) দেশগুলির পাঁচজন সদস্য, একজন সচিব, বিহার সরকারের দুইজন প্রতিনিধি, মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের একজন প্রতিনিধি নিয়ে গভর্নিং বোর্ড গঠিত।
  • (৩) বিখ্যাত শিক্ষাবিদ বিভাগে তিনজন ব্যক্তি – অরবিন্দ শর্মা, লোকেশ চন্দ্র এবং অরবিন্দ পানাগড়িয়া নিযুক্ত হন।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল এবং কেন্দ্র

বর্তমানে নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচটি কার্যকরী স্কুল রয়েছে–

  • (১) স্কুল অফ হিস্টোরিক্যাল স্টাডিজ।
  • (২) স্কুল অফ ইকোলজি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল স্টাডিজ।
  • (৩) বৌদ্ধ অধ্যয়নের স্কুল, দর্শন এবং তুলনামূলক ধর্ম।
  • (৪) ভাষা স্কুল এবং সাহিত্য/মানবতা।
  • (৫) স্কুল অফ ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন স্কুলের পরিকল্পনা

নিম্নলিখিত স্কুলগুলি পর্যায়ক্রমে শুরু করার পরিকল্পনা করা হয়েছে –

  • (১) স্কুল অফ ইন্টারন্যাশনাল রিলেশনস অ্যান্ড পিস স্টাডিজ।
  • (২) তথ্য প্রযুক্তি ও বিজ্ঞান স্কুল।
  • (৩) স্কুল অফ বিজনেস ম্যানেজমেন্ট (পাবলিক পলিসি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ)।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন কেন্দ্র

সেন্টার ফর বে অফ বেঙ্গল, সেন্টার ফর কনফ্লিক্ট রেজোলিউশন অ্যান্ড পিস বিল্ডিং এবং কমন আর্কাইভাল রিসোর্স সেন্টার – এই তিনটি কেন্দ্র শীঘ্রই নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ে চালু হবে।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষা ও সাহিত্য/মানবতার স্কুল

  • (১) এই বিভাগটি ২০১৮ সালে পালি, সংস্কৃত, তিব্বতি, কোরিয়ান এবং ইংরেজিতে এক বছরের স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা প্রোগ্রামের সাথে তার কার্যক্রম শুরু করে। মাস্টার্স এবং ডক্টরাল প্রোগ্রাম ২০২১ সালে শুরু হয়।
  • (২) ভারতীয় এবং বিদেশী ভাষায় অন্যান্য প্রোগ্রাম অন্তর্ভুক্ত করার জন্য এই বিভাগটি ধীরে ধীরে প্রসারিত করার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

উপসংহার :- প্রাচীন ভারতে গুরুকুলে বা আশ্রমের শিক্ষায় একসময় শিক্ষালাভের অধিকার ছিল কেবল ব্রাহ্মণ সন্তানদের। বৌদ্ধবিহার-কেন্দ্রিক শিক্ষাব্যবস্থায় সেই বাধা কেটে যায়। নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের যে বিষয়টি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল তা হল এর সর্বজনীনতা।

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য (FAQ) ?

বিশ্বের সর্বপ্রথম বা প্রাচীন ভারতের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় কোনটি ?

নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়।

কোন গুপ্ত সম্রাটের আমলে নালন্দা নির্মিত হয় ?

প্রথম কুমারগুপ্ত।

Leave a Reply

Translate »