ষোড়শ মহাজনপদ: অঙ্গ

ঐতিহাসিক স্থান অঙ্গ -র অবস্থান, ইতিহাস, ধর্মীয় অর্থনৈতিক সংস্কৃতির গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা করা হল। খ্রিস্ট পূর্ব ষষ্ঠ শতকে ভারতে কোনাে কেন্দ্রীয় রাজশক্তি ছিল না। ভারতে কোনাে অখণ্ড সর্বভারতীয় রাষ্ট্র এই সময় ছিল না। একটা অখণ্ড রাষ্ট্রের পরিবর্তে ছিল যােলটি রাজ্য বা যােড়শ মহাজনপদ।

ষোড়শ মহাজনপদ:- যেমন – কাশী, কোশল, অঙ্গ, মগধ, বৃজি, মল্ল, চেদি, বৎস্য, কুরু, পাঞ্চাল, মৎস, শূরসেন, অশ্মক, অবন্তী, গান্ধার এবং কম্বোজ

মহাজনপদ: অঙ্গ

অবস্থানমান বিহার রাজ্যের ভাগলপুর
রাজধানীচম্পা
উল্লেযোগ্য রাজাব্রহ্মদত্ত
বিখ্যাত নদীচম্পা
অঙ্গ

ভূমিকা :- অঙ্গ ছিল একটি প্রাচীন ভারতীয় রাজ্য যা পূর্ব ভারতীয় উপমহাদেশে বিকাশ লাভ করেছিল। এটি ষোড়শ মহাজনপদ গুলির মধ্যে একটি।

অবস্থান

বর্তমান বিহার রাজ্যের ভাগলপুরে অঙ্গ রাজ্য অবস্থিত ছিল।

ষোড়শ মহাজনপদ

গৌতম বুদ্ধ -এর আবির্ভাবের পূর্বে অঙ্গুত্তর নিকায়ে প্রাপ্ত তালিকায় প্রাচীন ভারতের ষোলটি মহাজনপদের মধ্যে একটি হল অঙ্গ।

প্রতিবেশি ও প্রতিদ্বন্দ্বী

অঙ্গ রাজ্য তার প্রতিবেশী এবং প্রতিদ্বন্দ্বী মগধের পূর্বে অবস্থিত ছিল এবং  চম্পা নদী দ্বারা এটি থেকে বিচ্ছিন্ন ছিল।  

রাজধানী চম্পা

চম্পা নদী ও গঙ্গার মিলনস্থলের গঙ্গার ডান তীরে অবস্থিত চম্পানগরীই ছিল প্রাচীন অঙ্গ রাজ্যের রাজধানী।

বাণিজ্য কেন্দ্র চম্পা

দীর্ঘ নিকায়ে ভারতের ছয়টি প্রধান নগরের মধ্যে চম্পাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে সে সময়কার সমৃদ্ধশালী বাণিজ্য কেন্দ্র হিসেবে।

অঙ্গের উল্লেখ

অঙ্গুত্তরনিকায়ের মতো বৌদ্ধ গ্রন্থে “ষোলটি মহান জাতির” মধ্যে অঙ্গকে গণনা করা হয়েছে। জৈন ব্যাখ্যা প্রজ্ঞাপতির প্রাচীন জনপদের তালিকাতেও অঙ্গের উল্লেখ পাওয়া যায়।

নামকরণ

মহাভারত এবং পুরাণ সাহিত্য অনুসারে অঙ্গের নামকরণ করা হয়েছিল রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা যুবরাজ অঙ্গর নামানুসারে।

  •  (১) বালির পুত্র কোন পুত্র ছিল না। তাই তিনি ঋষি দীর্ঘতামাসকে অনুরোধ করেন তাকে পুত্রের আশীর্বাদ করার জন্য।
  • (২) কথিত আছে যে ঋষি দীর্ঘতামাস বালির স্ত্রী রাণী সুদেসনাকে পাঁচ পুত্রের আশীর্বাদ দিয়েছিলেন। এই রাজকুমারদের নাম ছিল অঙ্গ, বঙ্গ, কলিঙ্গ, সুমহা ও পুন্ড্র।

মহাভারতের নায়ক কর্ণ

মহাভারত মহাকাব্যের প্রধান নায়ক কর্ণ ছিলেন এই “মহাজনপদ”-অঙ্গের রাজা। ভানুমতি ও কর্ণ এই অনুর্বর ভূমিকে একটি সমৃদ্ধ নগরীতে রূপান্তরিত করেন। জরাসন্ধও কর্ণকে মালিনী নগরী উপহার দিয়েছিলেন।

রামায়ণ মহাকাব্য

রামায়ণে অঙ্গ নামের উৎপত্তির বর্ণনা দেওয়া হয়েছে যেখানে শিব দ্বারা কামদেবকে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছিল এবং যেখানে তার দেহের অঙ্গগুলি (অঙ্গ) ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল।

সর্বপ্রথম উল্লেখ

অঙ্গর সর্বপ্রথম উল্লেখ পাওয়া যায় অথর্ববেদ -এ। যেখানে মগধ, গান্ধারী এবং মুজাভাতদের পাশাপাশি “জ্বর দূর করার” দূরবর্তী স্থানের উদাহরণ হিসাবে অঙ্গকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

পুরাণে স্থান

পুরাণ গ্রন্থগুলি পূর্ব-দক্ষিণ বিভাগে অঙ্গ, কলিঙ্গ, বঙ্গ, পুন্ড্র (বা পুন্ড্র রাজ্য – বর্তমানে পূর্ব বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের কিছু অংশ), বিদর্ভ এবং বিন্ধ্য-বাসীর জনপদগুলিকে স্থান দেয়।

মহাভারতে অঙ্গ  

মহাভারত অনুসারে অঙ্গরাজ্য দুর্যোধন কর্ণকে উপহার দিয়েছিলেন।

  • (১) কর্ণ যখন রাজ্য পেয়েছিলেন তখন ছিল সম্পূর্ণ অনুর্বর ভূমি কিন্তু ভানুমতি এবং কর্ণ সেই অনুর্বর জমিতে বসবাসকারী দৈত্যদের সাথে যুদ্ধ করেছিলেন।
  • (২) ভানুমতি কর্ণকে তার কাঁধে নিয়ে যান এবং তার বজ্রাস্ত্র দিয়ে তিনি রাক্ষস-ভূমিকে ধ্বংস করে একটি কৃষি জমিতে পরিণত করেন।
  • (৩) শীঘ্রই কর্ণ সমগ্র পৃথিবী জয় করেন এবং অঙ্গ একটি “মহাজনপদ” হয়ে ওঠে।

অঙ্গ ও মগধ

বিধুরা পণ্ডিত জাতক রাজগৃহকে (মগধের রাজধানী) অঙ্গের শহর হিসাবে বর্ণনা করেছেন এবং মহাভারত বিষ্ণুপদ পর্বতে (গয়ায়) অঙ্গের রাজা কর্তৃক সম্পাদিত একটি বলিদানকেও উল্লেখ করেছে। এটি ইঙ্গিত দেয় যে অঙ্গ প্রথমে মগধকে সংযুক্ত করতে সফল হয়েছিল।

বিম্বিসারের মগধ দখল

অঙ্গর এই সাফল্য বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতাব্দীর মাঝামাঝি মগধের যুবরাজ বিম্বিসার অঙ্গের শেষ স্বাধীন রাজা ব্রহ্মদত্তকে হত্যা করে চম্পা দখল করেছিলেন। এরপর থেকে অঙ্গ ক্রমবর্ধমান মগধ সাম্রাজ্য -এর একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে ওঠে।

অঙ্গ রাজ্যের বিস্তৃতি

মহাভারতের সভাপর্ব অঙ্গ ও বঙ্গকে একটি দেশ বলে উল্লেখ করেছে। কথাসরিতসাগরও সাক্ষ্য দেয় যে, অঙ্গের একটি শহর বিতাঙ্কপুর সমুদ্রের তীরে অবস্থিত ছিল। এইভাবে অঙ্গের সীমানা পূর্বে সমুদ্র পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। অঙ্গের উত্তরে কৌশিকী নদী ছিল।

রাজধানীর উল্লেখ

অঙ্গার রাজধানী ছিল চম্পা পূর্বে মালিনী নামে পরিচিত ছিল। খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতাব্দীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ শহর ছিল চম্পা। এটি গঙ্গা ও চম্পা (বর্তমানে সম্ভবত চন্দন) নদীর সঙ্গমস্থলে অবস্থিত ছিল।

  • (১) চম্পা ব্যবসা-বাণিজ্যের একটি উল্লেখযোগ্য কেন্দ্র ছিল এবং এর বণিকদেরকে দূরবর্তী সুবর্ণভূমিতে (সম্ভবত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়) পালতোলা জাহাজের বণিক হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে।
  • (২) মহাভারত ঐতিহ্যে চম্পা কৌশিকী নদীর উপর অবস্থিত। শহরটি দক্ষিণ বিহার রাজ্যের ভাগলপুর থেকে প্রায় 5 কিলোমিটার (3.1 মাইল) পশ্চিমে বর্তমান চম্পাপুর এবং চম্পানগর গ্রামের সাথে যুক্ত হয়েছে।

চম্পার সংস্কৃতি

প্রত্নতাত্ত্বিকভাবে প্রাচীন শহরটির আশেপাশের দুর্গ এবং পরিখা সহ উত্তরাঞ্চলীয় কৃষ্ণ চিকন সংস্কৃতির অন্তর্গত ছিল।

ফা হিয়েনের ভ্রমণ

চতুর্থ শতাব্দীর শেষের দিকে অঙ্গ রাজ্যে তীর্থযাত্রার সময় চীনা সন্ন্যাসী ফা হিয়েন অসংখ্য বৌদ্ধ মন্দিরের কথা উল্লেখ করেন, যা এখনও বিদ্যমান।

উপসংহার :- খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতকে অঙ্গকে মগধ রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন বিম্বিসার এবং তাঁর পুত্র অজাতশত্রু এর প্রশাসক নিযুক্ত হয়েছিলেন।

(FAQ) অঙ্গ হতে জিজ্ঞাস্য ?

১. অঙ্গ রাজ্যের রাজধানীর নাম কি ?

চম্পা।

২. অঙ্গ রাজ্য কোথায় অবস্থিত ছিল ?

বর্তমান বিহারের ভাগলপুরে।

Leave a Reply

Translate »