উজ্জয়িনী (Ujjaini)

উজ্জয়িনী (Ujjaini) -র ইতিহাস, অবস্থান ও দর্শনীয় স্থান আলোচনা করবো । আলোচনা প্রসঙ্গে প্রাগৈতিহাসিক যুগে , প্রাচীন যুগে, মধ্যযুগে উজ্জয়িনী ও উজ্জয়িনীর অর্থও জানবো।

প্রাচীন ভারতের বিখ্যাত ঐতিহাসিক স্থান উজ্জয়িনী প্রসঙ্গে এর অবস্থান, মধ্যপ্রদেশের সপ্তম বৃহত্তম শহর, সপ্তপুরির অন্যতম উজ্জয়িনী, অবন্তী রাজ্যের রাজধানী উজ্জয়িনী, উনিশ শতকে উজ্জয়িনী, উজ্জয়িনী শহরের বিকল্প, গুরুত্বপূর্ণ তীর্থস্থান উজ্জয়িনী, প্রাগৈতিহাসিক যুগে উজ্জয়িনী, প্রাচীন যুগে উজ্জয়িনী, কালিদাস ও উজ্জয়িনী, হিউয়েন সাঙ ও উজ্জয়িনী, ভাস ও উজ্জয়িনী, শূদ্রক ও উজ্জয়িনী, সোমদেব ও উজ্জয়িনী, আরবদের উজ্জয়িনী দখল, মধ্যযুগে উজ্জয়িনী, আধুনিক যুগে উজ্জয়িনী, উজ্জয়িনীর দর্শনীয় স্থান ও উজ্জয়িনী শহরে জন্মগ্রহণ কারী বিখ্যাত ব্যক্তি।

প্রাচীন শহর উজ্জয়িনী (The ancient city of Ujjain)

অবস্থানভারত -এর মধ্যপ্রদেশ রাজ্যের শিপ্রা নদীর তীরে
গুরুত্ব অবন্তী রাজ্যের রাজধানী
বিখ্যাত মেলাকুম্ভ মেলা
উজ্জয়িনী

ভূমিকা :- শিপ্রা নদীর পূর্ব তীরে অবস্থিত একটি প্রাচীন শহর উজ্জয়িনী তার ইতিহাসের জন্য মধ্য ভারতের মালওয়া মালভূমিতে সবচেয়ে বিশিষ্ট ছিল।

উজ্জয়িনীর অবস্থান (Location of Ujjain)

ভারতের মধ্যপ্রদেশ রাজ্যের শিপ্রা নদীর তীরে উজ্জয়িনীর অবস্থান।

রাজ্যের পঞ্চম বৃহত্তম শহর উজ্জয়িনী (Ujjain is the fifth largest city in the state)

জনসংখ্যার দিক থেকে মধ্যপ্রদেশের পঞ্চম বৃহত্তম শহর এবং এটি উজ্জয়িনী জেলা ও উজ্জয়িনী বিভাগের প্রশাসনিক কেন্দ্র।

সপ্ত পুরীর অন্যতম উজ্জয়িনী (Ujjain is one of Sapta Puri)

সপ্ত পুরীর হিন্দু তীর্থস্থানগুলির মধ্যে উজ্জয়িনী একটি। প্রতি ১২ বছর পর পর কুম্ভ মেলার জন্য উজ্জয়িনী বিখ্যাত। মহাকালেশ্বর জ্যোতির্লিঙ্গের বিখ্যাত মন্দিরটি শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত।

অবন্তী রাজ্যের রাজধানী উজ্জয়িনী (Ujjain is the capital of Avanti state)

উজ্জয়িনী ৬০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের দিকে মধ্য ভারতের রাজনৈতিক কেন্দ্র হিসাবে আবির্ভূত হয়। উজ্জয়িনী ছিল ষোলটি ষোড়শ মহাজনপদগুলির মধ্যে অন্যতম প্রাচীন অবন্তী রাজ্যের রাজধানী।

উনিশ শতকে উজ্জয়িনী (Ujjain in the 19th century)

উনিশ শতকের গোড়ার দিকে উজ্জয়িনী মধ্য ভারতের একটি গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক, বাণিজ্যিক ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র ছিল।

উজ্জয়িনী শহরের বিকল্প (Alternative to Ujjain city)

ইংল্যান্ড -এর ব্রিটিশ প্রশাসকরা উজ্জয়িনীর বিকল্প হিসেবে ইন্দোরকে গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নেন।

গুরুত্বপূর্ণ তীর্থস্থান উজ্জয়িনী (Ujjain is an important pilgrimage site)

উজ্জয়িনী শৈব, বৈষ্ণব এবং শাক্ত অনুসারীদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ তীর্থস্থান হিসাবে অবিরত রয়েছে।

স্মার্ট সিটি মিশনের অন্তর্গত উজ্জয়িনী শহর (Ujjain city under Smart City Mission)

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ফ্ল্যাগশিপের অধীনে স্মার্ট সিটি হিসেবে গড়ে তোলার জন্য উজ্জয়িনীকে নির্বাচিত করা হয়েছে শতাধিক ভারতীয় শহরের মধ্যে একটি।

প্রাগৈতিহাসিক যুগে উজ্জয়িনী (Ujjain in prehistoric times)

  • (১) প্রাগৈতিহাসিক যুগ -এ কায়াথা (উজ্জয়িনী থেকে প্রায় 26 কিমি) খননের ফলে খ্রিস্টপূর্ব ২০০০ অব্দের দিকে চালকোলিথিক কৃষি বসতি পাওয়া গেছে। নাগদা সহ উজ্জয়িনীর আশেপাশের অন্যান্য অঞ্চলেও চ্যালকোলিথিক স্থান গুলি আবিষ্কৃত হয়েছে।
  • (২) উজ্জয়িনীতে খননকালে কোনও চ্যালকোলিথিক বসতি পাওয়া যায়নি। প্রত্নতাত্ত্বিক এইচ.ডি. সাঙ্কালিয়ার মতে, উজ্জয়িনীর চালকোলিথিক বসতিগুলি সম্ভবত লৌহ যুগ -এর বসতি স্থাপনকারীদের দ্বারা ধ্বংস হয়েছিল।
  • (৩) হারমান কুলকে এবং ডায়েটমার রথারমুন্ডের মতে অবন্তী, যার রাজধানী ছিল উজ্জয়িনী “মধ্য ভারতের প্রথম দিকের ঘাঁটিগুলির মধ্যে একটি” এবং 700 খ্রিস্টপূর্বাব্দের দিকে এখানে প্রাথমিক নগরায়নের লক্ষণ দেখা যায়।
  • (৪) প্রাচীন প্রাচীর ঘেরা উজ্জয়িনী শহরটি বর্তমান উজ্জয়িনী শহরের উপশহর এলাকায় শিপ্রা নদীর তীরে গড় কালিকা পাহাড়ের চারপাশে অবস্থিত ছিল।

প্রাচীন যুগে উজ্জয়িনী (Ujjain in ancient times)

  • (১) খ্রিস্টপূর্ব চতুর্থ শতাব্দীতে মৌর্য সম্রাট চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য অবন্তীকে মৌর্য সাম্রাজ্য -এর সাথে যুক্ত করেন।
  • (২) মৌর্য সম্রাট বিন্দুসার -এর রাজত্বকালে যুবরাজ অশোক উজ্জয়িনীর শাসন দায়িত্ব পালন করেন। এদিক থেকে শহরটির গুরুত্ব বোধগম্য হয়।
  • (৩) উজ্জয়িনী শাসনের সময় অশোক বেদিসাগিরির (বিদিশা) এক বণিকের কন্যা দেবীকে বিয়ে করেছিলেন। সিংহলী বৌদ্ধ ঐতিহ্য অনুসারে, তাদের সন্তান মহেন্দ্র এবং সংঘমিত্রা, যারা আধুনিক শ্রীলঙ্কায় গৌতম বুদ্ধ প্রচারিত বৌদ্ধ ধর্ম প্রচার করেছিলেন।
  • (৪) সম্রাট অশোক -এর আমলে মৌর্য সাম্রাজ্যের চারটি প্রদেশের উল্লেখ রয়েছে, যার মধ্যে উজ্জয়িনী ছিল পশ্চিম প্রদেশের রাজধানী।
  • (৫) মৌর্য যুগে উজ্জয়িনী থেকে উত্তরীয় কালো পালিশের পাত্র, তামার মুদ্রা, পোড়ামাটির আংটি, কূপ এবং ব্রাহ্মী লেখা সহ হাতির দাঁতের সিল খনন করা হয়েছে।
  • (৬) উজ্জয়িনী একটি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক কেন্দ্র হিসেবে আবির্ভূত হয়। কারণ, উজ্জয়িনী মথুরা থেকে শুরু করে উত্তর ভারতকে দাক্ষিণাত্যের সাথে সংযোগকারী বাণিজ্য পথের উপর অবস্থিত ছিল।
  • (৭) উজ্জয়িনী জৈন, বৌদ্ধ এবং হিন্দু ঐতিহ্যের মধ্যে বুদ্ধিবৃত্তিক শিক্ষার একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র হিসেবেও আবির্ভূত হয়।
  • (৮) চতুর্থ ও পঞ্চম শতাব্দীতে উজ্জয়িনী গুপ্তদের একটি গুরুত্বপূর্ণ শহর হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।
  • (৯) কিংবদন্তী সম্রাট বিক্রমাদিত্যের রাজধানী হিসেবেও উজ্জয়িনীকে বিভিন্ন কাহিনীতে দেখা যায়।

কালিদাস ও উজ্জয়িনী (Kalidasa and Ujjain)

পঞ্চম শতাব্দীর মহান ভারতীয় শাস্ত্রীয় কবি কালিদাস, যিনি গুপ্ত রাজা বিক্রমাদিত্যের সময়ে বসবাস করতেন, তিনি তাঁর মহাকাব্য মেঘদূত রচনা করেছিলেন যাতে তিনি উজ্জয়িনী এবং এর জনগণের সমৃদ্ধি বর্ণনা করেছেন।

হিউয়েন সাঙ ও উজ্জয়িনী (Hiuen Sang and Ujjain)

খ্রিস্টীয় ষষ্ঠ শতাব্দীতে চীন -এর তীর্থযাত্রী জুয়ানজাং, যিনি হিউয়েন সাঙ নামে পরিচিত ভারত সফরকালে উজ্জয়িনী ঘুরে যান। তিনি অবন্তীর শাসক সম্পর্কে বলেছেন যে, তিনি দরিদ্রদের প্রতি উদার ছিলেন এবং তাদের উপহার দিয়েছিলেন।

ভাস ও উজ্জয়িনী (Bhas and Ujjain)

ভাস -এর লেখাতেও উজ্জয়িনীর উল্লেখ রয়েছে এবং তিনি সম্ভবত উজ্জয়িনী শহরেই থাকতেন।

শূদ্রক ও উজ্জয়িনী (Shudrak and Ujjaini)

শূদ্রকের মৃচ্ছকটিকেও উজ্জয়িনীর উল্লেখ পাওয়া যায়।

সোমদেব ও উজ্জয়িনী (Somdev and Ujjayini)

সোমদেবের কথাসারিৎসাগর উল্লেখ করে যে, উজ্জয়িনী শহরটি বিশ্বকর্মা দ্বারা তৈরি করা হয়েছিল এবং এই শহরকে অজেয়, সমৃদ্ধ এবং বিস্ময়কর দর্শনীয় স্থান হিসাবে বর্ণনা করে।

আরবদের উজ্জয়িনী দখল (Arab occupation of Ujjain)

খ্রিস্টীয় অষ্টম শতাব্দীতে উমাইয়া খিলাফতের আরবরা উজ্জয়িনীকে বেশ কয়েকবার দখল করেছিল। আরবরা শহরটির নাম উজায়েন বলে উল্লেখ করে।

মধ্যযুগে উজ্জয়িনী (Ujjain in the Middle Ages)

  • (১) পারমাররা (নবম – চতুর্দশ শতাব্দী) রাজধানী উজ্জয়িন থেকে ধর -এ স্থানান্তরিত করে।
  • (২) গজনীর মাহমুদ উজ্জয়িনী শহর দখল করে এবং জোরপূর্বক বশ্যতা স্বীকারে বাধ্য করে।
  • (৩) ১২৩৫ খ্রিস্টাব্দে দিল্লির সুলতান ইলতুৎমিস উজ্জয়িনী শহরটি লুণ্ঠন করেন।
  • (৪) পারমার রাজ্যের পতনের পর উজ্জয়িনীও শেষ পর্যন্ত উত্তর-মধ্য ভারতের অন্যান্য অংশের মতো ইসলামি শাসনের অধীনে আসে।
  • (৫) মুঘল সেনাপতি দ্বিতীয় জয় সিং (১৬৮৮ – ১৭৪৩) -এর সময়ে, যিনি শহরে একটি যন্তর মন্তর নির্মাণ করেছিলেন, উজ্জয়িনী ছিল মালওয়া সুবাহের বৃহত্তম শহর এবং রাজধানী।
  • (৬) উজ্জয়িনী শহরটি মুসলিম শাসনের সময় বিশেষত দিল্লির সুলতানী সাম্রাজ্য এবং মুঘল সাম্রাজ্যের অধীনে বিকশিত হতে থাকে সেই সময় উজ্জয়িনী গুরুত্বপূর্ণ সামরিক সদর দফতর হিসাবে ব্যবহৃত হত।

আধুনিক যুগে উজ্জয়িনী (Ujjain in modern times)

  • (১) অষ্টাদশ শতাব্দীতে উজ্জয়িনী শহরটি সংক্ষিপ্তভাবে মারাঠা প্রদেশের সিন্ধিয়া রাজ্যের রাজধানী হয়ে ওঠে, যখন রনোজি সিন্ধিয়া ১৭৩১ খ্রিস্টাব্দে উজ্জয়িনীতে তার রাজধানী স্থাপন করেন।
  • (২) মাধদজি সিন্ধিয়া একশত কক্ষ সহ একটি বিশাল প্রাসাদ নির্মাণ করেছিলেন যার চারপাশে মারাঠা সর্দাররা তাদের নিজস্ব প্রাসাদ তৈরি করেছিলেন।
  • (৩) ইন্দোরের হোলকার এবং উজ্জয়িনীর সিন্ধিয়াদের মধ্যে আধিপত্যের লড়াই দুই শহরের বণিকদের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতার দিকে পরিচালিত করেছিল। ১৮০১ সালের ১৮ জুলাই হোলকাররা উজ্জয়িনীর যুদ্ধে সিন্ধিয়াদের পরাজিত করে।
  • (৪) পরবর্তীতে হোলকার এবং সিন্ধিয়া উভয়েই ব্রিটিশ আধিপত্য মেনে নিলে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক প্রশাসকরা ইন্দোরকে উজ্জয়িনীর বিকল্প হিসেবে গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নেন।
  • (৫) ভারতের স্বাধীনতার পর উজ্জয়িনী মধ্যভারত রাজ্যের একটি অংশ হয়ে ওঠে। ১৯৫৬ সালে মধ্য ভারতকে মধ্যপ্রদেশ রাজ্যে যুক্ত করা হয়।

উজ্জয়িনীর দর্শনীয় স্থান (Places to visit in Ujjain)

মঙ্গলনাথ মন্দির, যন্তর মন্তর, মহাকালের গম্বুজ, কর্করাজেশ্বর মন্দির উজ্জ-য়িনীর বিখ্যাত দর্শনীয় স্থান।

উজ্জয়িনী শহরে জন্মগ্রহণকারী বা বসবাসকারী উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি (Notable persons born or living in the city of Ujjain)

ঋষি সন্দীপনি, কালিদাস, দেবী (অশোকের স্ত্রী), যশোদা দেবী, বিক্রমাদিত্য প্রমুখ।

(FAQ) ‘উজ্জয়িনী’ হতে জিজ্ঞাস্য?

১. ‘উজ্জয়িনী” কার রাজধানী ছিল?

গুপ্ত সম্রাট দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্ত -এর।

২. উজ্জয়িনী শহরটি কোন নদীর তীরে অবস্থিত?

শিপ্রা।

৩. উজ্জয়িনী কথার অর্থ কী?

জয়ের গৌরব।

৪. উজ্জয়িনীর মূল আকর্ষণ কী?

মহাকালেশ্বর, যা ভারতবর্ষের দ্বাদশ জ্যোতির্লিঙ্গের মধ্যে অন্যতম।

Leave a Comment