রাজা বিন্দুসার

আজ আমরা বিন্দুসার -এর পরিচিতি, পিতা ও মাতা, সিংহাসনে আরোহণ, বিন্দুসারের রাজত্বকাল, সাম্রাজ্য বিস্তার, বিন্দুসারের দাক্ষিণাত্য দখল সম্পর্কে জানবো ।

রাজা বিন্দুসার

জন্মখ্রিস্টপূর্ব ৩২০
রাজত্বখ্রিস্টপূর্ব ২৯৮ – খ্রিস্টপূর্ব ২৭২
রাজ্যাভিষেকখ্রিস্টপূর্ব ২৯৮
পূর্বসূরিচন্দ্রগুপ্ত মৌর্য (পিতা)
উত্তরসূরিঅশোক (পুত্র)
পত্নীচারুমিত্রা, সুভদ্রাঙ্গী
সন্তানসুসীম, অশোক, বীতাশোক
মৃত্যুখ্রিস্টপূর্ব ২৭২ (বয়স ৪৮ বছর)
রাজা বিন্দুসার

ভূমিকা :-  দ্বিতীয় মৌর্য সম্রাট ছিলেন বিন্দুসার। চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের পর ২৯৮ খ্রিস্টপূর্বাব্দে বিন্দুসার সিংহাসন লাভ করেন।

গ্রিকদের নিকট বিন্দুসারের পরিচিতি

মৌর্য সম্রাট বিন্দুসার গ্রিকদের নিকট আমিত্রোখাতেস বা আল্লিত্রোখাদেস নামে পরিচিত ছিলেন, যা সংস্কৃত শব্দ অমিত্রঘাত বা শত্রু বিনাশকারী থেকে উদ্ভূত।

বিন্দুসারের পিতা ও মাতা

প্রথম মৌর্য সম্রাট চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য ও তার পত্নী দুর্ধরার সন্তান ছিলেন। জন্মের সময় তার নাম রাখা হয় সিংহসেন।

বিন্দুসারের সিংহাসনে আরোহণ

২৯৮ খ্রিস্টপূর্বাব্দে মাত্র বাইশ বছর বয়সে পিতৃসূত্রে বিন্দুসার এক বিশাল সাম্রাজ্যের অধিকারী হন।

বিন্দুসারের রাজত্বকাল

মৌর্য সম্রাট বিন্দুসার খ্রিস্টপূর্ব ৩২০ – খ্রিস্টপূর্ব ২৭২ অব্দ পর্যন্ত রাজত্ব করেন।

বিন্দুসারের সাম্রাজ্য বিস্তার

প্রাপ্ত সাম্রাজ্যকে বিন্দুসার দক্ষিণ দিকে আরো প্রসারিত করেন এবং কলিঙ্গ, চের, পাণ্ড্য ও চোল রাজ্য ব্যতিরেকে সমগ্র দক্ষিণ ভারত ও উত্তর ভারতের সমগ্র অংশ তার করায়ত্ত হয়।

তারানাথের বিবরণ

  • (১) তৎকালীন বৌদ্ধ গ্রন্থকার তারানাথের বিবরণ থেকে জানা যায় যে, চাণক্য কৌটিল্য বিন্দুসারের মন্ত্রী হিসেবে কাজ করেছিলেন। সে সময়ে চাণক্য রাষ্ট্রশাসনে তাঁর প্রতিপত্তি রক্ষায় ব্রতী ছিলেন।
  • (২) বিন্দুসারের মন্ত্রী চাণক্য একবার ১৬টি রাজ্যের নৃপতি ও সামন্তদের পরাজিত করে তাঁর সাম্রাজ্যের পরিধি পূর্ব সমুদ্র হতে পশ্চিম সমুদ্র অবধি বিস্তৃত করেছিলেন বলে তিব্বতীয় গ্রন্থকার তারানাথের বিবরণে পাওয়া যায়।
  • (৩) তারানাথের এই বিবরণ গ্রহণযোগ্য নয়। কারণ, সৌরাষ্ট্র যে, চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের সাম্রাজ্যভুক্ত ছিল তা প্রমাণিত হয়েছে।

বিন্দুসারের দাক্ষিণাত্য দখল

দাক্ষিণাত্যের কিছু অংশ বিন্দুসারের সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত ছিল বলে ধারণা করা হয়। সম্রাট অশোক শুধু কলিঙ্গ যুদ্ধ জয় করেছিলেন, কিন্তু তাঁর রাজ্য দাক্ষিণাত্যের পেনার নদী পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। তাই অনেকেই মনে করেন যে, বিন্দুসারের শাসনকালে দাক্ষিণাত্য মৌর্য সাম্রাজ্যের অন্তর্ভূক্ত ছিল।

তক্ষশীলার বিদ্রোহ

বিন্দুসারের রাজত্বকালে তক্ষশীলা -র অধিবাসীরা দুবার বিদ্রোহ করেন কিন্তু বিন্দুসারের পক্ষে তা দমন করা সম্ভব হয়নি।

তক্ষশীলার বিদ্রোহ দমন

বিন্দুসারের রাজত্বকালে যুবরাজ অশোক তক্ষশীলার বিদ্রোহ দমন করেছিলেন।

বিন্দুসারের রাজদরবারে গ্রিক দূত

সিরিয়ার অধিপতি এন্টিয়োকস ও মিশর-রাজ দ্বিতীয় টলেমি বিন্দুসারের রাজসভায় যথাক্রমে ডায়োনিসাস ও ডেইমেকসকে রাজদূত হিসেবে পাঠিয়েছিলেন। মেগাস্থিনিস -এর পর তারাই ছিলেন গ্রিক রাষ্ট্রদূত।

বিন্দুসার গৃহীত ধর্ম

বিন্দুসার আজীবিক ধর্মসম্প্রদায়ের মত বিশ্বাস করতেন। তার আধ্যাত্মিক শিক্ষক পিঙ্গলবস্ত বা জনাসন একজন ব্রাহ্মণ আজীবিক ছিলেন।বিন্দুসারের পত্নী সুভদ্রাঙ্গীও আজীবিক ধর্মমতে বিশ্বাসী ছিলেন।

ব্রাহ্মণদের দান

বিন্দুসার বেশ কিছু ব্রাহ্মণভট্টো বা ব্রাহ্মণ মঠেও দান ধ্যান করেন।

অশোকের সিংহাসনলাভ

বিন্দুসারের মৃত্যুর পর তাঁর পুত্র অশোক অন্যান্য ভাইদের পরাজিত ও হত্যা করে সিংহাসন দখল করেছিলেন।

জনপ্রিয় সংস্কৃতি

  • (১) ২০০১ খ্রিষ্টাব্দে নির্মিত অশোকা নামক হিন্দি চলচ্চিত্রে গার্সন ডা কুনহা বিন্দুসারের চরিত্রে অভিনয় করেন।
  • (২) ২০১৫ খ্রিষ্টাব্দে নির্মিত চক্রবর্তী অশোক সম্রাট নামক হিন্দি টেলিভিশন ধারাবাহিকে সমীর ধর্মাধিকারী বিন্দুসারের চরিত্রে অভিনয় করেন।

উপসংহার :- বিন্দুসারের যখন মৃত্যু হয় তখন প্রায় সমগ্ৰ উপমহাদেশ মৌর্য সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। ভারতের সুদূর দক্ষিণ অঞ্চলও মৌর্য সাম্রাজ্যের বশ্যতা স্বীকার করতে প্রস্তুত ছিল।

(FAQ) বিন্দুসার হতে জিজ্ঞাস্য ?

১. বিন্দুসার গ্রীকদের কাছে কীনামে পরিচিত ছিলেন ?

অমিত্রাঘাত ।

২. বিন্দুসারের উপাধি কি ছিল ?

অমিত্রাঘাত ।

৩. বিন্দুসারের পুত্র কে ছিলেন ?

সম্রাট অশোক ।

৪. কোন গ্রন্থ থেকে বিন্দুসারের সময় তক্ষশীলায় বিদ্রোহের কথা জানা যায় ?

দিব্যবদান গ্ৰন্থ থেকে।

Leave a Reply

Translate »