মান সিংহ

মোগল সম্রাট আকবরের বিশ্বস্ত সেনাপতি মান সিংহ প্রসঙ্গে জন্ম, পিতামাতা, মনসব লাভ, মোগল সেনাপতি, ৭৭ টি যুদ্ধে অংশগ্রহণ, আকবরের দূত, হলদিঘাটের যুদ্ধ, কাবুল অভিযান, বাংলা জয়, কাশ্মীর জয়, বাংলার সুবাদার, সাংস্কৃতিক কৃতিত্ব ও তার মৃত্যু সম্পর্কে জানবো।

মান সিংহ

জন্ম ২১ ডিসেম্বর ১৫৫০ খ্রিস্টাব্দ
পিতামাতা ভগবন্ত দাস, ভগবতী
পরিচিতি সম্রাট আকবরের সেনাপতি
যুদ্ধ হলদিঘাটের যুদ্ধ
মৃত্যু ৬ জুলাই, ১৬১৪খ্রিস্টাব্দ
মান সিংহ

ভূমিকা :- মোগল সম্রাট আকবরের সবচেয়ে শক্তিশালী এবং বিশ্বস্ত সেনাপতিছিলেন রাজা মানসিংহ। সম্রাট আকবর তাকে নবরত্নসভার অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন।

জন্ম

তিনি ১৫৫০ সালের ২১ ডিসেম্বর রবিবার জন্মগ্রহণ করেন। তিনি মোগল সম্রাট আকবরের থেকে প্রায় আট বছরের ছোট ছিলেন, যিনি ১৫৪২ সালের ১৫ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

পিতামাতা

রাজা মানসিংহের পিতা ছিলেন রাজা ভগবন্ত দাস এবং মাতা ছিলেন ভগবতী।

মনসব লাভ

পিতার মৃত্যুর পর মানসিংহ আকবরের কাছ থেকে ১৫৮৯ সালের ১০ ডিসেম্বর মির্জা বা রাজা উপাধি এবং ৫০০০ মনসব লাভ করেন।

মোগল সেনাপতি

২৬ আগস্ট, ১৬০৫ সালে মানসিংহ মোগল বাহিনীর ৭০০০ অশ্বারোহীর একজন সেনাপতি হন। অর্থাৎ তিনি ৭০০০ সৈন্যের মনসবদার পদে উন্নীত হন।

ফরজান্দ

আকবর তাকে ফরজান্দ বা পুত্রবলে ডাকতেন। তিনি আকবরের পক্ষে অনেক গুরুত্বপূর্ণ অভিযানে লড়াই করেছিলেন।

৭৭ টি যুদ্ধে অংশগ্রহণ

মানসিংহ কাবুল, বলখ, বুখারা, বাংলা এবং মধ্য ও দক্ষিণ ভারতে ৭৭টি গুরুত্বপূর্ণ যুদ্ধ করেছিলেন। তিনি রাজপুত ও মুঘল উভয়ের যুদ্ধ কৌশলে পারদর্শী ছিলেন।

আকবরের দূত

সম্রাট আকবরের সাথে একটি চুক্তি করতে এবং মুঘল সার্বভৌমত্ব মেনে নিতে আকবর কর্তৃক মহারানা প্রতাপের কাছে মানসিংহ দূত হিসেবে গিয়েছিলেন। তিনি আকবরের সার্বভৌমত্ব মেনে নিতে অস্বীকার করেন এবং আকবরকে ‘নিচু তুর্কি’ বলে অভিহিত করেন।

হলদিঘাটের যুদ্ধ

এরপর মানসিংহ ১৫৭৬ সালে মেবার রাজ্যের বিরুদ্ধে এবং উড়িষ্যার পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্য ঐতিহাসিক হলদিঘাটের যুদ্ধে মুঘল সেনাবাহিনীর নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

যুদ্ধের ফলাফল

হলদিঘাটের যুদ্ধে মোগলরা বিজয়ী হয়েছিল কিন্তু মহারানা প্রতাপকে বন্দী করতে ব্যর্থ হয়েছিল।

কাবুল অভিযান

১৫৮০ খ্রিস্টাব্দে আকবরের কাবুল অভিযানে মানসিংহও সঙ্গে ছিলেন। আকবর মানসিংহের নেতৃত্বে গঠিত বাহিনীকে আগে কাবুলে পাঠিয়ে তিনি পরে কাবুলে পৌঁছান।

আফগান উপজাতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ

  • (১) ১৫৮৫ খ্রিস্টাব্দে কিছু আফগান উপজাতি মুঘল সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়। তাদের মধ্যে ইউসুফজাই এবং “মান্দার” উপজাতি ছিল প্রধান।
  • (২) আকবর এই বিদ্রোহী উপজাতিগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য হাকিম আবুল ফতেহ এবং রাজা বীরবলের অধীনে একটি সেনাবাহিনী পাঠান। কিন্তু তারা বিদ্রোহী আফগানদের নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ হয়।
  • (৩) বন্ধু রাজা বীরবল  যুদ্ধে নিহত হলে আকবর রাজা টোডরমলকে বিদ্রোহ দমন করতে পাঠান এবং রাজা মানসিংহকে টোডরমলকে সাহায্য করার জন্য নির্দেশ দেন।

যুদ্ধ জয়

মানসিংহ ইউসুফজাই এবং মান্দার উপজাতি সহ আফগানদের পাঁচটি প্রধান উপজাতিকে চূড়ান্তভাবে পরাজিত করেন। এই বিজয়কে স্মরণীয় করে রাখতে অম্বরের পতাকা ‘কাচনার’ (সাদা বেসে সবুজ পর্বতারোহী) থেকে ‘পাচরাঙ্গা’ (পাঁচ রঙের) করা হয়েছিল।

কাশ্মীর জয়

১৫৮৬ খ্রিস্টাব্দে আকবর মানসিংহের অধীনে আরেকটি সেনাবাহিনী পাঠান কাশ্মীর জয় করতে।কাশ্মীর দখল করে মুঘল সাম্রাজ্যের সাথে যুক্ত করা হয় এবং কাবুল প্রদেশের সরকার (জেলা) করা হয়।

বিহার জয়

  • (১) আকবর যখন দিল্লি জয় করেছিলেন, তখন তার অনেক আফগান শত্রু পূর্ব রাজাদের আশ্রয়ে পালিয়ে গিয়েছিল। প্রতিরোধকারী রাজাদের বশ্যতা স্বীকার করতে সম্রাট আকবর মানসিংকে প্রেরণ করেছিলেন।
  • (২) মানসিংহ প্রথমেই গিধাউরের রাজা পুরানমলের দুর্গ সহজেই কাচওয়াহা সেনাদের দ্বারা জয় করা হয়।এরপর তিনি গয়া ও কার্গপুরের রাজাদের পরাজিত করেন। তাদের উভয়কেই বাধ্য করা হয় সম্রাটের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য।

আবুল ফজলের বর্ণনা

ঐতিহাসিক আবুল ফজল নিম্নোক্ত শব্দে বিহারে মানসিংহের অভিযানের বর্ণনা দিয়েছেন। “রাজা কঠোর কর্মের সাথে সাহস এবং প্রতিভার সাথে ক্ষমতাকে একত্রিত করেছিলেন”।

উড়িষ্যা জয়

  • (১) বিহার জয় করার পর ১৫৯০ সালে মানসিংহ উড়িষ্যার আফগান সুলতান কতলু খান লোহানীকে পরাজিত করার জন্য রওনা হন।
  • (২) জগৎ সিংকেএকটি সেনাবাহিনী নিয়ে এলাকা অধ্যয়ন করার জন্য পাঠানো হয়েছিল, তবে তিনি সুলতান কতলু খান দ্বারা আক্রান্ত হন এবং তিনি খারাপভাবে পরাজিত হন
  • (৩) জগতসিংহকে রাজা হামির সিং রক্ষা করেন এবং বিষ্ণুপুর দুর্গে পালিয়ে যান। ১০ দিন পর কতলু মারা যান এবং তার ছেলে নাসির খানের অধীনে আফগানরা মান সিংহের কাছে আত্মসমর্পণ করে।

বাংলা, বিহার, ঝাড়খণ্ড ও ওড়িশার সুবাদার

১৬৯৪ সালের ১৭ মার্চ, রাজা মান সিং বাংলা, বিহার, ঝাড়খণ্ড এবং ওড়িশার সুবাদার (রাজ্যপাল) নিযুক্ত হন।

আকবর নগর

১৫৯৫ সালের ৯ নভেম্বর মান সিং রাজমহলে বাংলা সুবাহের একটি নতুন রাজধানীর ভিত্তি স্থাপন করেন।সম্রাট আকবরের নামানুসারে এর নামকরণ করেন আকবরনগর।

রাজা প্রতাপাদিত্যকে পরাজিত

তিনি যশোরের মহারাজা প্রতাপাদিত্যকে পরাজিত করেন এবং “শিলা দেবীর” বিখ্যাত মূর্তিটি অম্বরে নিয়ে আসেন। অম্বর দুর্গে এই দেবীর মন্দির এখনও বিদ্যমান। নবরাত্রির সময় এখানে লাখ লাখ মানুষের সমাগম হয়।

জাহাঙ্গীরের সিংহাসনে আরোহণের বিরোধিতা

আকবরের জীবদ্দশায় মানসিংহ সিংহাসনে আরোহণের ক্ষেত্রে জাহাঙ্গীরের বিরোধিতা করলেও তার রাজ্যাভিষেকের পর কখনো বিরোধিতা করেননি।

বাংলার সুবাদার

আকবরের মৃত্যুর পর জাহাঙ্গীর (সেলিম) সম্রাট হয়ে মানসিংহকে প্রাথমিকভাবে অল্প সময়ের জন্য বাংলার সুবদার হিসেবে পাঠানো হয়েছিল।

দাক্ষিণাত্য অভিযান

১৬১১ খ্রিস্টাব্দেআহমেদনগর, বেরার এবং খানদেশের দক্ষিণের প্রদেশগুলি মালিক আম্বরের অধীনে মুঘল সার্বভৌমত্বকে অস্বীকার করলে জাহাঙ্গীর রাজা মানসিংহ ও অন্যান্যদের বিদ্রোহ দমন করতে পাঠান।

সাংস্কৃতিক কৃতিত্ব

  • (১) রাজা মানসিংহ ছিলেন শ্রী কৃষ্ণের ভক্ত।বৃন্দাবনে শ্রী চৈতন্য মহাপ্রভুর শিষ্য শ্রীল রূপা গোস্বামীর জন্য নির্মিত কৃষ্ণের একটি সাততলা মন্দির ছিল। সেই সময় নির্মাণ ব্যয় হয়েছিল এক কোটি টাকা। বৃন্দাবনে এখনও চারতলা মন্দিরটি বিদ্যমান।
  • (২) তিনি তার রাজধানী অম্বরে কৃষ্ণের মন্দিরও নির্মাণ করেছিলেন। জয়পুরের আম্বর ঘাটির কাছে জায়গাটি এখন “কনক বৃন্দাবন” নামে পরিচিত। তিনি আম্বার ফোর্টে শিলা দেবীর মন্দির নির্মাণ করেন।
  • (৩) তিনি বারাণসী, এলাহাবাদ এবং অন্যান্য বিভিন্ন স্থানে বহু মন্দির নির্মাণ ও মেরামত করেন। তিনি আম্বারে তার প্রাসাদে অনেক সৌন্দর্য যোগ করেন।
  • (৪) বিশ্বাস করা হয় যে তার পুত্র জগৎ সিংহ গোস্বামী তুলসীদাসের কাছ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করেছিলেন এবং মানসিংহ নিজেও তার ধর্মীয় বক্তৃতায় যোগ দিতেন। তুলসীদাস ছিলেন আকবরের সমসাময়িক এবং রামচরিত মানসের রচয়িতা, যা তুলসী রামায়ণ নামে পরিচিত।

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে

  • (১) ২০১৩-২০১৫ সাল পর্যন্ত জি টিভিতে সম্প্রচারিত যোধা-আকবরসিরিয়ালে অঙ্কিত রাইজাদা মানসিংহের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।
  • (২) ২০১৩-২০১৫ সাল পর্যন্ত সনি এন্টারটেইনমেন্ট টেলিভিশন (ভারত) দ্বারা সম্প্রচারিত ভারত কা বীর পুত্র – মহারানা প্রতাপ সিরিয়ালে শশীকান্ত শর্মা মানসিংহ চরিত্রে অভিনয় করেছেন।
  • (৩) ১৯৮৮-৮৯ সালে দূরদর্শনে সম্প্রচারিত ভারত এক খোজ সিরিয়ালে সুরেন্দ্র পাল অভিনয় করেছিলেনমানসিংহের চরিত্রে।

মৃত্যু

মান সিংহ ১৬১৪ সালের ৬ জুলাই এলিচপুরে স্বাভাবিক মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর মৃত্যুর পর পুত্র মির্জা রাজা ভাউ সিং তাঁর স্থলাভিষিক্ত হন।

উপসংহার :- মোগল সম্রাট আকবরের বিশ্বস্ত সেনাপতি হলেও রাজা মানসিংহ দীন-ই-ইলাহি ধর্ম গ্ৰহণে অস্বীকৃত হন। তার পিতা ভগবন্ত দাসও এই ধর্মমতে ধর্মান্তরিত হতে অস্বীকার করেন।

(FAQ) মান সিংহ সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. মানসিংহ কে ছিলেন?

রাজপুত বীর মানসিংহ ছিলেন মোগল আকবরের একজন বিশ্বস্ত সেনাপতি।।

২. হলদিঘাটের যুদ্ধে আকবরের সেনাপতি কে ছিলেন?

রাজা মানসিংহ।

৩. মানসিংহের পিতার নাম কি?

রাজা ভগবন্ত দাস।

Leave a Reply

Translate »