অম্ভি

তক্ষশীলার রাজা অম্ভি -র পরিবার, আলেকজান্ডারের সতর্কতা, দূত প্রেরণের কারণ, আলেকজান্ডারের সাথে সাক্ষাৎ, আত্মসমর্পণ, প্রথম ভারতীয় রাজা, অম্ভিকে উপহার, সেতু নির্মাণে সহায়তা, হিদাস্পিসের যুদ্ধে যোগদান, রাজা অম্ভির উপলব্ধি, যবনদের বিরুদ্ধে প্রচার ও পাঞ্জাবের নিয়ন্ত্রণ সম্পর্কে জানবো।

রাজা অম্ভি বা অম্ভিকুমার

অন্য নামঅমর সেন
রাজত্ব৩২৭-৩২৬ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
রাজধানীতক্ষশীলা
বশ্যতা স্বীকারআলেকজান্ডার
সমসাময়িক রাজাপুরু
রাজা অম্ভি

ভূমিকা:- আলেকজান্ডার দ্য গ্রেটের অভিযানের সময় পাঞ্জাব অঞ্চলে সিন্ধু ও ঝিলাম নদীর মধ্যবর্তী অঞ্চলে রাজত্ব করেছিলেন রাজা অম্ভি। পাকিস্তানের আধুনিক শহর অ্যাটকের কাছে তার রাজধানী শহর তক্ষশীলা।

পরিবার

রাজা অম্ভির পিতা ও মাতা ছিলেন রাজা অম্ভিরাজ ও রাণী অলকা এবং অলকাকুমারী ছিলেন তার স্ত্রী।আর অম্বিক ছিল তার পুত্র।

আলেকজান্ডারের সতর্কতা

৩২৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ভারতে (বর্তমানে পাকিস্তান) প্রথম অবতরণে অম্ভির বাহিনী দেখে আলেকজান্ডার সতর্ক হয়েছিলেন এবং তার নিজস্ব বাহিনী গঠনের নির্দেশ দেন।

দূত প্রেরণের কারণ

সম্ভবত প্রতিবেশী শত্রুর বিরুদ্ধে নিজেকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে অর্থের বিনিময়ে সহায়তা ও সমর্থনের প্রস্তাব দিয়ে তিনি আলেকজান্ডারের কাছে একটি দূত পাঠান।

আলেকজান্ডারের সাথে সাক্ষাৎ

রাজা অম্ভি আলেকজান্ডারকে তার শঙ্কা থেকে মুক্তি দিতে তড়িঘড়ি করে এবং মূল্যবান উপহার নিয়ে তার সাথে দেখা করে নিজেকে এবং তার সমস্ত বাহিনীকে নিরাপদ করে।

আত্মসমর্পণ

৩০ টি হাতি এবং ৭০০ ঘোড়সওয়ার সমন্বিত উপহার সহ আলেকজান্ডারের কাছে দূত পাঠান এবং আত্মসমর্পণের প্রস্তাব দেন।

প্রথম ভারতীয় রাজা

অম্ভিই ছিলেন প্রথম ভারতীয় রাজা, যিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আলেকজান্ডারের কাছে আত্মসমর্পণ করেন।এই কারণে অনেকেই তাকে কাপুরুষ বলে অভিহিত করেছেন।

অম্ভিকে উপহার

আলেকজান্ডার শুধুমাত্র অম্ভিকে তার উপাধি এবং উপহার ফিরিয়ে দেননি বরং তিনি তাকে পার্সিয়ান পোশাক, স্বর্ণ ও রৌপ্য অলঙ্কার, ৩০টি ঘোড়া এবং ১০০০ প্রতিভা সোনার পোশাক দিয়েছিলেন।

সেতু নির্মাণে সহায়তা

রাজা অম্ভি সিন্ধু নদের উপর একটি সেতু নির্মাণে হেফাস্টিয়ান এবং পারডিকাসকে সহায়তা করেছিলেন। এই সময় আলেকজান্ডার নিজে এবং তার পুরো সেনাবাহিনীকে তার রাজধানীতে স্থান গ্ৰহণ করেছিল।

হিদাস্পিসের যুদ্ধে যোগদান

আলেকজান্ডারের পরবর্তী অগ্রগতিতে তক্ষশীলার ৫০০০ সৈন্য নিয়ে রাজা অম্ভি তার সাথে হিদাস্পিসের যুদ্ধে অংশ নেয়।

রাজা অম্ভির উপলব্ধি

কিছু সময়ের জন্য অম্ভি সুখের সাথে তক্ষশীলা শাসন করেছিলেন। কিন্তু ধীরে ধীরে তিনি জানতে পারেন যে তাকে রাজা ঘোষণা করা হলেও তক্ষশীলার শাসন যবনদের অন্তর্গত এবং এটি প্রজা ও মাতৃভূমির স্বার্থেঅপমান জনক।

যবনদের বিরুদ্ধে প্রচার

স্ত্রী কল্যাণী এবং তক্ষশীলা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিখ্যাত আচার্য চাণক্যের ব্যাখ্যায় প্রভাবিত হয়ে অম্ভি যবনদের বিরুদ্ধে তার প্রচারে আচার্য চাণক্যের সাথে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

পাঞ্জাবের নিয়ন্ত্রণ

আলেকজান্ডারের সেনাপতি ও তার পূর্ব সাম্রাজ্যের উত্তরাধিকারী সেলুকাস যখন ভারত আক্রমণ করেন তখনও পাঞ্জাব চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের নিয়ন্ত্রণে ছিল।

উপসংহার:- পরবর্তীতে ইউডেমাস সাময়িক ভাবে তক্ষশিলা দখল করেন। তারপর চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য ৩১৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দে উপমহাদেশে আলেকজান্ডারের স্যাট্রাপ জয় করেন।

(FAQ) রাজা অম্ভি সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. কোন ভারতীয় রাজা বিনা যুদ্ধে আলেকজান্ডারের বশ্যতা স্বীকার করেন?

তক্ষশীলার রাজা অম্ভি।

২. কোন ভারতীয় রাজা আলেকজান্ডারের বিরুদ্ধে তুমুল প্রতিরোধ গড়ে তোলেন?

রাজা পুরু।

৩. অম্ভি কোথাকার রাজা ছিলেন? তার অন্য নাম কি ছিল?

তক্ষশীলা, অমর সেন।

Leave a Reply

Translate »