কুষাণ সাম্রাজ্য

কুষাণ সাম্রাজ্য প্রসঙ্গে প্রথম স্বাধীন কুষাণ রাজা, কুজুল কদফিসেস, বিম কদফিসেস, কণিষ্ক, বশিষ্ক, হুবিস্ক, দ্বিতীয় কণিষ্ক, প্রথম বাসুদেব, তৃতীয় কণিষ্ক ও দ্বিতীয় বাসুদেব, পতন কালে কুষাণ সাম্রাজ্য ও কুষাণ সাম্রাজ্যের উপর নতুন রাজ্য সম্পর্কে জানবো।

কুষাণ সাম্রাজ্য

বিষয়কুষাণ সাম্রাজ্য
জাতিকুষাণ
প্রতিষ্ঠাতাকুজুল কদফিসেস
শ্রেষ্ঠ রাজাকণিষ্ক
শেষ রাজাদ্বিতীয় বাসুদেব
কুষাণ সাম্রাজ্য

ভূমিকা :- প্রাচীন ইউ-চি জাতির পাঁচটি শাখার অন্যতম শাখা কুষাণরা যাযাবর জীবন অতিবাহিত করত। ডঃ মুখার্জীর মতে, গোড়ার দিকে এই কুষাণরা মূল ইউ-চি জাতির অধীনে ছিল। পরবর্তীতে তারা ভারত -এ কুষাণ সাম্রাজ্য গড়ে তোলে।

প্রথম স্বাধীন কুষাণ রাজা

মিয়াওস নামে এক কুষাণ শাসনকর্তার মুদ্রা পাওয়া যায়। তাকেই এখন প্রথম স্বাধীন কুষাণ রাজা বলে মনে করা হয়। মুদ্রা ছাড়া আর কোনো তথ্য তাঁর সম্পর্কে জানা যায় নি।

কুজুল কদফিসে

কুষাণদের প্রকৃতভাবে মুক্ত করেন কুজুল কদফিসেস। খ্রিস্ট পূর্ব ৩০ নাগাদ কুই-শুয়াং বা কুষাণ শাখার নেতা কুজুল কদফিসেস তাঁর স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। তবে কুজুল কদফিসেস ভারতের গভীরে ঢুকতে পারেন নি। উত্তর-পশ্চিম ভারতের কিছু অংশ এবং কি-পিন বা কাশ্মীর তিনি অধিকার করেন।

বিম কদফিসেস

কুজুল কদফিসেসের পর তাঁর পুত্র বিম কদফিসেস বা ইয়েন কাও-চেন কুষাণ সিংহাসনে বসেন। বিম কদফিসেস তাঁর পিতার রাজ্য ব্যাকট্রিয়া সহ উত্তর-পশ্চিম ভারত ও কাশ্মীর বা কি-পিন লাভ করেন। তার সঙ্গে তিনি তক্ষশীলা ও পাঞ্জাব রাজ্যভুক্ত করেন। পরে তিনি রাজ্যসীমা আরও বাড়ান।

কণিষ্ক

বিম কদফিসেসের মৃত্যুর পর কুষাণ সাম্রাজ্যে ভাঙ্গন দেখা দেয়। কনিষ্ক ক্ষমতায় এসে এই ভাঙ্গন রোধ করে কুষাণ সাম্রাজ্যে শৃঙ্খলা পুনঃপ্রতিষ্ঠা করেন। বিজেতা হিসেবে ইতিহাসে খ্যাতি পেয়েছেন কুষাণ সম্রাট কণিষ্ক। তিনি ৭৮ খ্রিস্টাব্দে সিংহাসনে বসে ২৩ বছর রাজত্ব করেন।

বশিষ্ক

১০১ খ্রিস্টাব্দে বশিষ্ক কুষাণ সিংহাসনে বসেন। সাঁচীতে বশিষ্ক কুষাণের লিপি থেকে জানা যায় যে, তিনি ছিলেন ‘মহারাজ রাজাধিরাজ দেবপুত্র শাহী’। কণিষ্কের বিশাল সাম্রাজ্য তিনি। কিছুকাল শাসন করেন। রাজতরঙ্গিনীর বুষ্ক ও বশিষ্ক যদি একই লোক হন তবে তিনি কাশ্মীরের উপরেও শাসন করতেন বলা যায়। কারও কারও মতে, কণিষ্কের আমলে কুষাণ সাম্রাজ্যে ভাঙন আরম্ভ হয়।

হুবিষ্ক

বশিষ্কের সহযোগী সম্রাট হিসেবে কাজ করেন হুবিষ্ক। তিনি বশিষ্কের পর ১০৬ খ্রিস্টাব্দে কুষাণ সিংহাসনে বসেন। হুবিষ্ককে যদি রাজতরঙ্গিনীর হুষ্ক বলে ধরা হয়, তবে তিনি কাশ্মীরে হুষ্কপুর নামে এক নগর স্থাপন করেন। তিনি হুষ্কপুরে একটি বিহার নির্মাণ করেন বলে অনুমান করা হয়। সম্ভবত আফগানিস্থানও হুবিষ্কের অধীনে ছিল।

দ্বিতীয় কণিষ্ক

হুবিষ্কের রাজত্বকালে কণিষ্ক নামে এক ব্যক্তির একটি লিপি উত্তর-পশ্চিম সীমান্তের আরা নামক স্থানে পাওয়া গেছে। অধিকাংশ পণ্ডিত এই কণিষ্ককে বশিষ্কের পুত্র বলে চিহ্নিত করেছেন। এঁকে ইতিহাসে দ্বিতীয় কণিষ্ক বলে ধরা হয়।

প্রথম বাসুদেব

হুবিষ্কের পর বিখ্যাত কুষাণ সম্রাট ছিলেন প্রথম বাসুদেব। তিনি ১৪২ খ্রিস্টাব্দে (মতান্তরে ১৩৮ খ্রিস্টাব্দে) সিংহাসনে বসেন। তাঁর উপাধি ছিল “শাহানোশাহ বাসুদেব কুষাণ”। তার নামের ভারতীয় রূপ থেকে দেখা যায় যে, কুষাণদের ধীরে ধীরে ভারতীয়করণ সম্পূর্ণ হয়েছিল। তাঁর মুদ্রা থেকে তার শৈবধর্মের প্রতি অনুরক্তির কথা জানা যায়। শিবের মূর্তি এবং শিবের বাহন ষাঁড়ের মূর্তি তাঁর মুদ্রায় স্পষ্টভাবে দেখা যায়।

তৃতীয় কণিষ্ক ও দ্বিতীয় বাসুদেব

প্রথম বাসুদেবের পর কুষাণ রাজাদের সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানা যায়নি। শুধুমাত্র তৃতীয় কণিষ্ক ও দ্বিতীয় বাসুদেব নামে কুষাণ রাজা ছিলেন বলে জানা যায়। এই দুই রাজার নিম্ন মানের স্বর্ণমুদ্রা তাঁদের ক্ষমতার অবনতির পরিচয় দেয়।

পতনকালে কুষাণ সাম্রাজ্য

ডঃ বি এন মুখার্জী প্রমুখের অভিমত হল যে, কুষাণ সাম্রাজ্যের পতনের যুগেও এই সাম্রাজ্য ব্যাকট্রিয়া হয়ে তাসখন্দ ও কাশগড় পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। কুষাণ সাম্রাজ্যের ভারতীয় অঞ্চল স্থানীয় মাঘ ও নাগ বংশীয় রাজারা অধিকার করে নেন।

কুষাণ সাম্রাজ্যের উপর নতুন রাজ্য

কুষাণ সাম্রাজ্যের ভারতীয় অংশের উপর যে নতুন রাজ্যগুলির উদ্ভব হয় তা হল –

  • (১) মথুরা, পদ্মাবতী (উত্তরপ্রদেশে) নাগবংশ
  • (২) শতদ্রু উপত্যকায় যৌধেয় বংশ
  • (৩) মথুরার পূর্বে মাঘ বংশ,
  • (৪) রাজপুতানায় মালব,
  • (৫) যমুনা উপতাকায় কুনিন্দ,
  • (৬) পশ্চিম পাঞ্জাব ও উত্তর-পশ্চিমে শক ও শিলাদ।
  • ৭) মধ্যপ্রদেশে বা সাঁচি, দিল্লী ও আগ্রায় কাক, প্রার্জুন, খরপারিক, আভীর প্রভৃতি গোষ্ঠীর উদ্ভব হয়।

উপসংহার :- গুপ্তযুগ পর্যন্ত কুষাণ উপাধিভুক্ত কোনো কোনো রাজা উত্তর-পশ্চিমে ছিলেন বলে জানা যায়। সমুদ্রগুপ্ত -এর এলাহাবাদ প্রশস্তিতে এদের উল্লেখ আছে। এদের কিদার কুষাণ বলা হয় এবং এরা দৈবপুত্র শাহী শাহানুশাহী উপাধি বহন করতেন।

(FAQ) কুষাণ সাম্রাজ্য সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. কুষাণরা কোন জাতির শাখা?

ইউ-চি জাতির।

২. ভারতে কুষাণ সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা কে?

কুজুল কদফিসেস।

৩. কুষাণ সাম্রাজ্যের শ্রেষ্ঠ সম্রাট কে?

কণিষ্ক।

৪. কুষাণ সম্রাট কণিষ্কের রাজধানী কোথায় ছিল?

পুরুষপুর বা পেশোয়ার।

Leave a Comment