অনুচ্ছেদ ৩৭০

অনুচ্ছেদ ৩৭০ প্রসঙ্গে ভারত পাকিস্তান ও চীনের বিবাদ, ভারতের সংবিধানে অনুচ্ছেদ ৩৭০ এর স্থান, অনুচ্ছেদ ৩৭০ এ উল্লেখ, রাষ্ট্রপতি আদেশ জারি, অনুচ্ছেদ ৩৭০ ভারতের সংবিধানের স্থায়ী অংশ, ২০১৯ সালের রাষ্ট্রপতি আদেশ জারি, অনুচ্ছেদ ৩৭০ এর ধারা রদ, জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন আইন, অনুচ্ছেদ ৩৭০ তুলে দেওয়ার বিরুদ্ধে আবেদন, অনুচ্ছেদ ৩৭০ তুলে দেওয়ার উদ্দেশ্য, ৩৭০ অনুচ্ছেদের মূল লেখা, অনুচ্ছেদ ৩৭০ বিশ্লেষণ, জম্মু ও কাশ্মীরের ছয়টি বিশেষ বিধান সম্পর্কে জানবো।

অনুচ্ছেদ ৩৭০

ঐতিহাসিক বিষয়অনুচ্ছেদ ৩৭০
স্থায়ীত্ব১৯৪৭-২০১৯ খ্রি
প্রযুক্ত রাজ্যজম্মু ও কাশ্মীর
লুপ্ত৩১ অক্টোবর ২০১৯ খ্রি
অনুচ্ছেদ ৩৭০

ভূমিকা :- ১৭ নভেম্বর ১৯৫২ থেকে ৩১ অক্টোবর ২০১৯ সাল পর্যন্ত জম্মু ও কাশ্মীর ভারতের রাজ্য ছিল। এই রাজ্যের জন্য অনুচ্ছেদ ৩৭০ পৃথক সংবিধান, পৃথক পতাকা এবং অভ্যন্তরীণ প্রশাসনের জন্য স্বায়ত্তশাসন প্রদান করেছিল।

ভারত, পাকিস্তান ও চিনের বিবাদ

ভারতের সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩৭০(ক) ভারতের সাবেক জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যকে বিশেষ অধিকার প্রদান করেছিল। এই বৃহত্তর কাশ্মীর অঞ্চলের অংশ ১৯৪৭ সাল থেকে ভারত, পাকিস্তানচীন -এর মধ্যে বিবাদের কারণ হিসেবে পরিচিত।

ভারতের সংবিধানে অনুচ্ছেদ ৩৭০ এর স্থান

অনুচ্ছেদ ৩৭০ ভারতের সংবিধানের ভাগ ২১-এ বর্তমান ছিল। এর শিরোনাম ছিল “অস্থায়ী, অন্তর্বর্তিকালীন ও বিশেষ বিধানসমূহ”।

অনুচ্ছেদ ৩৭০ এ উল্লেখ

এখানে উল্লেখ ছিল যে ভারতের সংবিধানের কতটা জম্মু ও কাশ্মীরে প্রযোজ্য, তা জম্মু ও কাশ্মীর সংবিধান সভায় স্থির করা হবে। সংবিধান সভা অনুচ্ছেদ ৩৭০-কে তুলেও দিতে পারে এবং সেক্ষেত্রে সমস্ত ভারতের সংবিধানই প্রযোজ্য হবে।

রাষ্ট্রপতি আদেশ জারি

রাজ্য সংবিধান সভা গঠনের পর স্থির করে দিয়েছিল যে, ভারতের সংবিধানের কোন কোন বিধি রাজ্যে প্রযোজ্য হবে। এর উপর ভিত্তি করেই ১৯৫৪ সালে রাষ্ট্রপতি আদেশ জারি হয়েছিল।

অনুচ্ছেদ ৩৭০ ভারতের সংবিধানের স্থায়ী অংশ

অনুচ্ছেদ ৩৭০ তুলে দেওয়ার আগেই রাজ্য সংবিধান সভা অবলুপ্ত হয়েছিল বলে মনে করা হয় যে অনুচ্ছেদটি ভারতের সংবিধানের স্থায়ী অংশ।

২০১৯ সালের রাষ্ট্রপতি আদেশ জারি

৫ আগস্ট ২০১৯ সালে ভারত সরকার ১৯৫৪ সালের আদেশকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য নতুন রাষ্ট্রপতি আদেশ জারি করেছিল এবং ভারতের সংবিধানের সমস্ত বিধি জম্মু ও কাশ্মীরে প্রযোজ্য করে দিয়েছিল।

অনুচ্ছেদ ৩৭০ এর ধারা রদ

ভারতের সংসদে দুই তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার ফলে পাস হওয়া রেজোলিউশনের উপর ভিত্তি করে রাষ্ট্রপতি আদেশটি তৈরি করা হয়েছিল। ৬ আগস্ট অতিরিক্ত আদেশের দ্বারা প্রথমটি বাদে অনুচ্ছেদ ৩৭০-এর সমস্ত ধারা অকার্যকর হয়ে গিয়েছিল।

জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন আইন

২০১৯ সালে সংসদে জম্মু ও কাশ্মীর পুনর্গঠন আইন পাস হয়। এর ফলে জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্য দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিভক্ত হয়েছিল : জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ। এই পুনর্গঠন হয় ৩১ অক্টোবর ২০১৯ সালে।

অনুচ্ছেদ ৩৭০ তুলে দেওয়ার বিরুদ্ধে আবেদন

কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক অনুচ্ছেদ ৩৭০ তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ভারতের সর্বোচ্চ আদালতে ২৩টি আবেদন দায়ের হয়েছিল। এর শুনানির জন্য পাঁচজন বিচারপতির একটি বেঞ্চ গঠিত হয়েছিল।

অনুচ্ছেদ ৩৭০ তুলে দেওয়ার উদ্দেশ্য

  • (১) অন্যান্য সমস্ত রাজ্যের মতো জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের মূল যোগদান তিনটি বিষয়ে ছিল – প্রতিরক্ষা, বৈদেশিক বিষয় এবং যোগাযোগ। সমস্ত রাজ্যগুলিকে ভারতের গণপরিষদে প্রতিনিধি পাঠানোর জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। যার দ্বারা সমগ্র ভারতের জন্য একটি সংবিধান প্রণীত হয়।
  • (২) নিজেদের রাজ্যের জন্য গণপরিষদ গঠন করতেও উৎসাহিত করা হয়েছিল। সৌরাষ্ট্র ইউনিয়ন, ত্রাভাঙ্কর-কোচিন এবং মহীশূর ছাড়া বেশিরভাগ রাজ্য সময়মতো সমাবেশ স্থাপন করতে পারে নি। অবশ্য রাজ্য বিভাগ রাজ্যগুলির জন্য একটি মডেল সংবিধান তৈরি করেছিল।
  • (৩) ১৯৪৯ সালের ১৯ মে সমস্ত রাজ্যের শাসক ও মুখ্যমন্ত্রীরা স্টেট ডিপার্টমেন্টের উপস্থিতিতে মিলিত হন এবং সম্মত হন যে রাজ্যগুলির জন্য পৃথক সংবিধানের প্রয়োজন নেই। তারা ভারতের সংবিধানকেই নিজেদের সংবিধান হিসেবে গ্রহণ করে।
  • (৪) এইভাবে সমস্ত রাজ্যের অবস্থান নিয়মিত ভারতীয় প্রদেশগুলির সমতুল্য হয়ে ওঠে। প্রকৃতপক্ষে এর অর্থ হল কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকারের দ্বারা আইন প্রণয়নের জন্য উপলব্ধ বিষয়গুলি সমগ্র ভারত জুড়ে অভিন্ন।
  • (৫) রাজ্যের রাজনীতিবিদরা জম্মু ও কাশ্মীরের ক্ষেত্রে একটি পৃথক গণপরিষদ গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। ভারতীয় গণপরিষদের প্রতিনিধিরা অনুরোধ করেছিলেন যে ভারতীয় সংবিধানের শুধুমাত্র সেই বিধানগুলি রাজ্যে প্রয়োগ করা উচিত যেগুলি মূল ইনস্ট্রুমেন্ট অফ অ্যাকসেশানের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং রাজ্যের গণপরিষদ অন্যান্য বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। ভারত সরকার এই দাবিগুলি মেনে নেয়।
  • (৬) সেই অনুযায়ী ৩৭০ অনুচ্ছেদটি ভারতীয় সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। এখানে বলা হয়েছিল যে সংবিধানের অন্যান্য অনুচ্ছেদগুলি যেগুলি কেন্দ্রীয় সরকারকে ক্ষমতা দেয় সেগুলি শুধুমাত্র রাজ্যের গণপরিষদের সম্মতিতে জম্মু ও কাশ্মীরে প্রযুক্ত হবে। এটি একটি “অস্থায়ী বিধান” ছিল। এর প্রযোজ্যতা রাষ্ট্রের সংবিধান প্রণয়ন ও গ্রহণ না হওয়া পর্যন্ত স্থায়ী ছিল।
  • (৭) যাইহোক, রাজ্যের গণপরিষদ ১৯৫৭ সালের ২৫ জানুয়ারি ৩৭০ ধারা বাতিল বা সংশোধনের সুপারিশ না করেই বিলুপ্ত হয়ে যায়। এইভাবে, অনুচ্ছেদটিকে ভারতীয় সংবিধানের একটি স্থায়ী বৈশিষ্ট্য হিসাবে বিবেচনা করা হয়েছিল, যা এপ্রিল ২০১৮ সাল পর্যন্ত স্থায়ী ছিল।

৩৭০ অনুচ্ছেদের মূল লেখা

জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের ক্ষেত্রে অস্থায়ী বিধান হল ৩৭০ অনুচ্ছেদ। এর মূল দিক গুলি হল এই সংবিধানে যা কিছুই থাক না কেন –

  • (ক) ২৩৮ অনুচ্ছেদের বিধানগুলি জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের ক্ষেত্রে এখন প্রযোজ্য হবে না।
  • (খ) উল্লিখিত রাষ্ট্রের ক্ষেত্রে আইন প্রণয়নের জন্য সংসদের ক্ষমতা নিম্নলিখিত ভাবে সীমাবদ্ধ থাকবে – (i) ইউনিয়ন তালিকা ও সমবর্তী তালিকার সেই বিষয়গুলি যা, রাজ্য সরকারের সাথে পরামর্শ করে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক ঘোষণা করা হয় যেগুলি ভারতের অধিরাজ্যে রাজ্যের যোগদানকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য অন্তর্ভুক্তির ক্ষেত্রে উল্লেখিত বিষয়গুলির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ। যে বিষয়ে ডোমিনিয়ন আইনসভা সেই রাজ্যের জন্য আইন প্রণয়ন করতে পারে। এবং (ii) উল্লিখিত তালিকার অন্যান্য বিষয়গুলি রাজ্য সরকারের সম্মতিক্রমে রাষ্ট্রপতি আদেশ দ্বারা নির্দিষ্ট করতে পারেন।
  • (গ) অনুচ্ছেদ ১ ও এই অনুচ্ছেদের বিধানগুলি সেই রাজ্যের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে;
  • (ঘ) এই সংবিধানের অন্যান্য বিধানগুলির মধ্যে এই ধরনের ব্যতিক্রম এবং পরিবর্তন সাপেক্ষে সেই রাজ্যের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে যা রাষ্ট্রপতি আদেশ দ্বারা নির্দিষ্ট করতে পারেন।

৩৭০ অনুচ্ছেদের মূল লেখার ব্যাখ্যা (১৯৫০)

এখানে রাজ্য সরকার বলতে আপাতত রাষ্ট্রপতির দ্বারা জম্মু ও কাশ্মীরের মহারাজা হিসাবে স্বীকৃত ব্যক্তিকে বোঝায়, যিনি আপাতত মন্ত্রিপরিষদের পরামর্শে কাজ করবেন।

৩৭০ অনুচ্ছেদের মূল লেখার ব্যাখ্যা (১৯৫২)

এখানে রাজ্য সরকার বলতে সেই ব্যক্তিকে বোঝানো হয়েছে যাকে রাষ্ট্রপতির দ্বারা রাজ্যের আইনসভার সুপারিশে সদর-ই-রিয়াসত (বর্তমানে রাজ্যপাল) হিসাবে স্বীকৃত করা হচ্ছে। আপাতত রাজ্যের মন্ত্রী পরিষদের পরামর্শে জম্মু ও কাশ্মীর কাজ করছে।

শর্তের উল্লেখ

তবে শর্ত থাকে যে, উপ-ধারা (b) এর অনুচ্ছেদ (i) -এ উল্লিখিত রাজ্যের প্রবেশাধিকারের দলে উল্লেখিত বিষয়গুলির সাথে সম্পর্কিত এমন কোনও আদেশ রাজ্য সরকারের সাথে পরামর্শ ছাড়া জারি করা হবে না।

আরও শর্ত থাকে যে, সেই সরকারের সম্মতি ব্যতীত পূর্ববর্তী বিধানে উল্লিখিত বিষয়গুলি ব্যতীত অন্য কোনো বিষয়ের সাথে সম্পর্কিত এমন কোনো আদেশ জারি করা হবে না।

৩৭০ অনুচ্ছেদ সম্পর্কে দফা (১) এর উপ-ধারা

দফা (১) এর উপ-ধারা (b) এর অনুচ্ছেদ (ii) বা সেই ধারার উপ-ধারা (d) এর দ্বিতীয় বিধানে উল্লিখিত রাজ্য সরকারের সম্মতি যদি রাজ্যের সংবিধান প্রণয়নের উদ্দেশ্যে গণপরিষদ আহ্বান করা হয় তাহলে সেটি জাতীয় পরিষদের সামনে উত্থাপন করা হবে যাতে এটি গ্রহণ করতে পারে।

৩৭০ অনুচ্ছেদের পূর্বোক্ত শর্ত

এই অনুচ্ছেদের পূর্বোক্ত বিধানগুলিতে যা কিছুই থাকুক না কেন, রাষ্ট্রপতি, জনসাধারণের প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ঘোষণা করতে পারেন যে এই নিবন্ধটি কার্যকর হবে না। তবে শর্ত থাকে যে, ধারা (২) এ উল্লিখিত রাজ্যের গণপরিষদের সুপারিশ এই ধরনের প্রজ্ঞাপন জারি করার আগে রাষ্ট্রপতির আবশ্যক হবে৷

৩৭০ অনুচ্ছেদের বিশ্লেষণ

মহারাজা হরি সিং দ্বারা স্বাক্ষরিত একত্রিতকরণের ধারা ৭ ঘোষণা করেছে যে রাজ্যকে ভারতের ভবিষ্যতের কোনো সংবিধান মেনে নিতে বাধ্য করা যাবে না। রাজ্য তার নিজস্ব সংবিধানের খসড়া তৈরি করার এবং কেন্দ্রীয় সরকারকে কী অতিরিক্ত ক্ষমতা দিতে হবে তা নিজের জন্য সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকারের মধ্যে ছিল। ৩৭০ অনুচ্ছেদটি সেই অধিকারগুলি রক্ষা করার জন্য তৈরি করা হয়েছিল।

জম্মু ও কাশ্মীরের জন্য ছয়টি বিশেষ

অনুচ্ছেদ ৩৭০ জম্মু ও কাশ্মীরের জন্য ছয়টি বিশেষ বিধানকে মূর্ত করেছে। যথা –

  • (১) এই অনুচ্ছেদ ভারতের সংবিধানের সম্পূর্ণ প্রযোজ্যতা থেকে রাজ্যকে অব্যাহতি দিয়েছে। রাষ্ট্রকে তার নিজস্ব সংবিধান রাখার ক্ষমতা দিয়েছিল।
  • (২) রাজ্যের উপর কেন্দ্রীয় আইন প্রণয়নের ক্ষমতা, প্রতিরক্ষা, বৈদেশিক বিষয় এবং যোগাযোগ – এই তিনটি বিষয়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল।
  • (৩) কেন্দ্রীয় সরকারের অন্যান্য সাংবিধানিক ক্ষমতা শুধুমাত্র রাজ্য সরকারের সম্মতিতে রাজ্যে প্রয়োগ ও প্রসারিত হতে পারে।
  • (৪) ‘সম্মতি’ শুধুমাত্র অস্থায়ী ছিল। এটি রাজ্যের গণপরিষদ দ্বারা অনুমোদন করাও হয়েছিল।
  • (৫) ‘সম্মতি’ দেওয়ার রাজ্য সরকারের কর্তৃত্ব শুধুমাত্র রাজ্য গণপরিষদ আহ্বান না হওয়া পর্যন্ত স্থায়ী ছিল। একবার রাজ্য গণপরিষদ ক্ষমতার স্কিম চূড়ান্ত করে ক্ষমতার আর কোন বর্ধিতকরণ সম্ভব ছিল না।
  • (৬) অনুচ্ছেদ ৩৭০ শুধুমাত্র রাজ্যের গণপরিষদের সুপারিশের ভিত্তিতে বাতিল বা সংশোধন করা যেতে পারে।

উপসংহার :- পণ্ডিত এ. জি. নুরানির মতে, অনুচ্ছেদ ৩৭০ এক “সোলেম কম্প্যাক্ট” ধরে রাখে। ঐ অনুচ্ছেদের সঙ্গে সম্বন্ধযুক্ত না হলে কেন্দ্র বা রাজ্য কেউই তাকে সংশোধন বা অকার্যকর করতে পারে না।

(FAQ) অনুচ্ছেদ ৩৭০ সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. স্বাধীনতা লাভের পর ভারতের কোন রাজ্যের জন্য পৃথক সংবিধান ছিল?

জম্মু ও কাশ্মীর।

২. জম্মু ও কাশ্মীরের জন্য কোন অনুচ্ছেদ বলবৎ ছিল

অনুচ্ছেদ ৩৭০

৩. ৩৭০ অনুচ্ছেদের সমস্ত ধারা অকার্যকর করা হয় কবে?

৩১ অক্টোবর ২০১৯

৪. বর্তমানে জম্মু ও কাশ্মীর ভেঙে কি কি রাজ্য গঠিত হয়?

জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল।

Leave a Comment