আল হিলাল পত্রিকা

আল হিলাল পত্রিকা -র ধরণ, প্রকাশ কাল, প্রতিষ্ঠাতা, ভাষা, স্থায়ীত্বকাল, প্রেক্ষাপট, সরকার পন্থী মুসলিমদের বিরোধিতা, ব্রিটিশ প্রতিবেদনের উল্লেখ, পত্রিকার বিষয়, রাজনীতি, মুসলিম লীগকে অস্বীকার, জনপ্রিয়তা, সরকারের নিবিড় পর্যবেক্ষণ, প্রকাশনা বন্ধ ও পত্রিকার প্রভাব সম্পর্কে জানবো।

আল হিলাল পত্রিকা

ধরণসাপ্তাহিক
প্রতিষ্ঠাতামৌলানা আবুল কালাম আজাদ
প্রকাশকাল১৯১২ খ্রিস্টাব্দ
ভাষাউর্দু
আল হিলাল পত্রিকা

ভূমিকা :- ভারতে ব্রিটিশ রাজের সমালোচনা এবং ক্রমবর্ধমান ভারতীয় স্বাধীনতায় ভারতীয় মুসলমানদের যোগদানের উদ্দেশ্যে প্রকাশিত একটি উল্লেখযোগ্য সাপ্তাহিক পত্রিকা হল আল-হিলাল।

ধরণ

আল হিলাল উর্দু ভাষায় প্রকাশিত একটি সাপ্তাহিক পত্রিকা।

প্রকাশকাল

আল হিলালের প্রথম সংস্করণ 1912 সালে কলকাতায় প্রকাশিত হয়।

প্রতিষ্ঠাতা

ভারতীয় মুসলিম স্বাধীনতা সংগ্রামী মৌলানা আবুল কালাম আজাদ কর্তৃক আল হিলাল পত্রিকাটি প্রকাশিত হয়।

ভাষা

মৌলানা আবুল কালাম আজাদ উর্দু ভাষায় আল হিলাল সংবাদপত্রটি প্রকাশ করেন।

স্থায়ীত্ব কাল

আল হিলাল 1912 থেকে 1914 খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত চলে এবং প্রেস অ্যাক্টের ফলে এই পত্রিকা বন্ধ হয়ে যায়।

প্রেক্ষাপট

আল হিলাল প্রকাশের পূর্বে আজাদ বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ অনুসরণ করেছিল।

  • (১) তার প্রথম প্রয়াস ছিল 1899 সালে প্রকাশিত নায়রাং-ই-আলম নামে একটি কাব্য সাময়িকী। তখন তার বয়স ছিল 11 বছর।
  • (২) তারপরে একটি বর্তমান ঘটনা সাময়িকী আল মিসবাহ 1900 সালে প্রকাশ করেন।
  • (৩) 1900 সালেই প্রকাশিত হয়েছিল লিসান-উস সিদক (“সত্যের কণ্ঠস্বর”)।
  • (৪) 1904 খ্রিস্টাব্দে আজাদ খাদং-ই-নজার, মাখজান এবং আল নাদভা-এর মতো জার্নালেও তিনি অবদান রাখেন।

বিদেশ ভ্রমণ

1908 সালে আজাদ এশিয়া ও আফ্রিকার কয়েকটি মুসলিম দেশে ভ্রমণ শুরু করেন এবং ইরাক, তুরস্ক ও মিশরে সাম্রাজ্যবিরোধী আন্দোলনের মুখোমুখি হন।

মিশরে গমন

তিনি মিশরীয় কর্মী মোস্তফা কামিল পাশার সাথে বিশেষভাবে ঘনিষ্ঠ হয়ে ওঠেন এবং মিশরে ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে তার সক্রিয় ও স্পষ্ট ভিন্নমতের দ্বারা অনুপ্রাণিত হন।

মিশরে আল হিলাল প্রকাশ

আজাদের চিন্তাধারার উপর মিশরীয় সাম্রাজ্য বিরোধী কর্মীদের প্রভাবের দিকে ইঙ্গিত করে মিশরে একই শিরোনামে প্রকাশনার নামানুসারে প্রকাশিত পত্রিকা আল হিলালের নামকরণ করা হয়।

সরকার পন্থী মুসলিমদের বিরোধিতা

তৎকালীন ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের মতে, আল হিলাল ভারতের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম প্রেসের সাথে মতবিরোধে ছিল যা তারা দাবি করেছিল যে তারা মূলত সরকারপন্থী ছিল।

ব্রিটিশ প্রতিবেদন উল্লেখ

ভারতীয় মুসলিম পণ্ডিত মহম্মদ আলী কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত একটি সংবাদপত্র দ্য কমরেডের পাশাপাশি আল-হিলাল প্রায়ই ব্রিটিশ প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

আল হিলাল ও কমরেড পত্রিকা

দ্য কমরেড এবং আল হিলাল ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের সমালোচনামূলক দৃষ্টিভঙ্গি ভাগ করে নিলেও, দ্য কমরেড ছিল একটি ইংরেজি ভাষার প্রকাশনা যা ব্রিটিশ শিক্ষিত মুসলমানদের ওপর লক্ষ্য রাখে। অন্যদিকে আল-হিলাল ছিল একটি উর্দু ভাষার প্রকাশনা।

পত্রিকার বিষয়

ব্রিটিশ সরকারের সমালোচনামূলক প্রতিবেদনের পাশাপাশি আল হিলাল পত্রিকা ধর্মতত্ত্ব, যুদ্ধ এবং বিজ্ঞান সম্পর্কিত বিষয়গুলিও প্রকাশ করে।

রাজনীতি

এই পত্রিকার রাজনৈতিক লক্ষ্য ছিল ব্রিটিশ শাসন থেকে সম্পূর্ণ স্বাধীনতা অর্জনকে কেন্দ্র করে হিন্দু-মুসলিম ঐক্যের গুরুত্বের উপর উল্লেখযোগ্যভাবে জোর দেওয়া।

মুসলিম লীগকে অস্বীকার

শুধুমাত্র মুসলিম লীগকে প্রকাশ্যে অস্বীকৃতি জানানো ছিল এই পত্রিকার একটি বিশেষ ভূমিকা। কারণ, আজাদ দাবি করেছেন লীগ  “জনগণের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে।”

বলকান যুদ্ধের ছবি

বলকান যুদ্ধের সময় আল হিলাল পত্রিকা তুরস্কের স্বাধীনতা কর্মীদের ছবি প্রকাশ করেন এবং ভারতের কানপুর মসজিদ ধ্বংসের প্রতি ব্রিটিশ মনোভাবের সাথে তুরস্কে ব্রিটিশ কার্যকলাপের তুলনা করেন।

ইসলামিক তত্ত্ব ও কোরানের ছবি অঙ্কন

ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামকে প্রাসঙ্গিক করার উদ্দেশ্যে আজাদ তার মুসলিম পাঠকদের জন্য ইসলামিক ধর্মতত্ত্ব এবং কোরান থেকে ছবি আঁকেন।

জনপ্রিয়তা

দুই বছর সময়কালে আল হিলাল ভারতীয় মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় সংবাদপত্র হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছিল। এর পাঠক ছিল বাংলা, যুক্তপ্রদেশ এবং পাঞ্জাব অঞ্চলের।

সরকারের নিবিড় পর্যবেক্ষণ

ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ নিয়মিতভাবে ঔপনিবেশিক সরকারের প্রতি আল হিলালের প্রতিকূল মনোভাব নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে এবং তার চলাকালীন সময়ে এটিকে নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করে।

প্রকাশনা বন্ধ

প্রেস অ্যাক্টের অধীনে 1914 সালে আজাদকে 2000 টাকা জরিমানা করা হয়। তিনি প্রাথমিক জরিমানা পরিশোধ করার পর আরও 10000 টাকা জরিমানা করা হয়েছিল। অবশেষে 1914 সালের নভেম্বরে ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ আল-হিলালকে জোর করে বন্ধ করে দেয়।

প্রভাব

আল হিলাল পত্রিকার প্রভাব ছিল সুদূর প্রসারী। যেমন –

(১) অনুপ্রেরণা

আল হিলালকে ব্যাপকভাবে স্বাধীনতা আন্দোলনের সাথে মুসলিমদের সম্পৃক্ততার একটি প্রধান টার্নিং পয়েন্ট হিসাবে বিবেচনা করা হয়। এই পত্রিকা ব্রিটিশ রাজের বিরুদ্ধে একটি নতুন সম্প্রদায়ের প্রতিরোধকে অনুপ্রাণিত করে।

(২) পত্রিকার গুরুত্ব স্বীকার

এই পত্রিকা বন্ধ হওয়ার পরও বেশ কয়েকজন বিশিষ্ট স্বাধীনতা কর্মী সংবাদপত্রের সাথে আজাদের কাজের গুরুত্ব স্বীকার করেছেন।

(৩) ইয়ং ইণ্ডিয়া পত্রিকায় উল্লেখ

মহাত্মা গান্ধী 1920 সালে তার প্রকাশনা ইয়ং ইন্ডিয়া পত্রিকায় ব্রিটিশ সরকারের প্রতি আল-হিলালের সমালোচনার গুরুত্ব তুলে ধরেন।

(৪) নেহেরুর প্রশংসা

জওহরলাল নেহেরু তার 1944 সালের গ্ৰন্থ দ্য ডিসকভারি অফ ইন্ডিয়াতে আজাদকে আল হিলালের সাথে অগ্রগামী রাজনৈতিক ও সাহিত্যিক উদ্ভাবনের জন্য প্রশংসা করেছিলেন।

উপসংহার :- আজাদ তার নিজস্ব উর্দু ভাষার ম্যাগাজিন প্রতিষ্ঠার জন্য আল হিলাল প্রকাশ করতে যে প্রেসটি ব্যবহার করেছিলেন সেটি 1921 সালে মুফতি শওকত আলী ফেহমি  কিনে নিয়েছিলেন।

(FAQ) আল হিলাল পত্রিকা সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. কে কবে আল হিলাল পত্রিকা প্রকাশ করেন?

মৌলানা আবুল কালাম আজাদ ১৯১২ খ্রিস্টাব্দে।

২. আল হিলাল পত্রিকাটি কোন ভাষায় প্রকাশিত হত?

উর্দু ভাষায়।

৩. ব্রিটিশ সরকার কখন আল হিলাল পত্রিকার প্রকাশনা বন্ধ করে দেয়?

১৯১৪ খ্রিস্টাব্দে।

Leave a Reply

Translate »