জাপানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা

জাপানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা -র জন্ম, বংশ পরিচয়, শিক্ষা, ব্যক্তিগত জীবন, কর্মজীবন, এলডিপির সদস্য, প্রতিমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী, আবে মন্ত্রীসভা ত্যাগ, প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ, মন্ত্রীসভা গঠন, প্রথম ভাষণ, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ সম্পর্কে প্রতিক্রিয়াপ্রতিক্রিয়া ও তার সম্মাননা সম্পর্কে জানবো।

Table of Contents

প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা

জন্ম29 জুলাই 1957 খ্রিস্টাব্দ
রাজনৈতিক দললিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি)
স্ত্রীইউকো কিশিদা
অবদানজাপানের ১০০ তম প্রধানমন্ত্রী
ফুমিও কিশিদা

ভূমিকা :- জাপানি রাজনীতিবিদ ফুমিও কিশিদা হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভের একজন সদস্য, যিনি 2021 সাল থেকে জাপানের প্রধানমন্ত্রী এবং লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

জন্ম

29 জুলাই 1957 খ্রিস্টাব্দে টোকিওর শিবুয়ায় একটি রাজনৈতিক পরিবারে ফুমিও কিশিদা জন্মগ্রহণ করেন।

বংশ পরিচয়

  • (১) তার বাবা ফুমিতাকে কিশিদা অর্থনীতি, বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের একজন সরকারি কর্মকর্তা এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগ সংস্থার পরিচালক ছিলেন।
  • (২) যেহেতু কিশিদা পরিবার হিরোশিমার বাসিন্দা তাই প্রতি গ্রীষ্মে পরিবারটি সেখানে ফিরে আসত। পারমাণবিক বোমা হামলায় কিশিদা পরিবারের অনেক সদস্য মারা গিয়েছিল।
  • (৩) ফুমিও পারমাণবিক বোমা থেকে বেঁচে যাওয়া ব্যক্তিদের কাছ থেকে গল্প শুনে বড় হয়েছে। তার পিতা ফুমিতাকে এবং দাদা মাসাকি কিশিদা উভয়েই প্রাক্তন রাজনীতিবিদ ছিলেন যারা প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য ছিলেন।
  • (৪) অর্থনীতি, বাণিজ্য ও শিল্পের প্রাক্তন মন্ত্রী ইয়োচি মিয়াজাওয়া তাঁর কাকার ছেলে এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী কিচি মিয়াজাওয়া তাঁর দূর সম্পর্কের আত্মীয়।

শিক্ষা

  • (১) কিশিদা তার শৈশবের কিছু অংশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কাটিয়েছেন। তিনি নিউইয়র্ক সিটিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেছেন।
  • (২) তিনি পি.এস. 013 কুইন্স, নিউ ইয়র্কের এলমহার্স্ট পাড়ায় ক্লিমেন্ট সি. মুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন। কারণ, তার বাবাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একটি চাকরিতে পোস্ট করা হয়েছিল।
  • (৩) তিনি কোজিমাচি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং কোজিমাচি জুনিয়র হাই স্কুলেও পড়াশোনা করেছেন। কিশিদা কাইসেই একাডেমি থেকে স্নাতক হন। এখানে তিনি বেসবল দলেও খেলেন।
  • (৪) কিশিদা ওয়াসেদা বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন অধ্যয়ন করেন এবং 1982 সালে স্নাতক হন। তিনি ওয়াসেদাতে ভবিষ্যতের রাজনীতিক তাকেশি ইওয়ায়ার সাথে বন্ধুত্ব করেছিলেন।

ব্যক্তিগত জীবন

কিশিদার স্ত্রী ইউকো কিশিদা ছিলেন একজন রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ীর কন্যা। তারা 1988 সালে বিয়ে করেন। তাদের তিনটি ছেলে রয়েছে।

কর্মজীবন

অর্থ বিভাগে তার কর্মজীবন শুরু করার পর কিশিদা রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। তিনি ক্রেডিট ব্যাঙ্ক অফ জাপানে কর্মরত ছিলেন। তারপর হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভের একজন সদস্যের সচিব হিসাবে তিনি কাজ করেন।

এলডিপির সদস্য

1993 সালে এলডিপির সদস্য হিসাবে তিনি প্রতিনিধি পরিষদে নির্বাচিত হন এবং হিরোশিমা প্রথম জেলার প্রতিনিধিত্ব করেন।

মন্ত্রী সভার বিভিন্ন পদে নিযুক্ত

কিশিদা 2007 থেকে 2008 সাল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এবং ইয়াসুও ফুকুদার মন্ত্রিসভায় বিভিন্ন পদে নিযুক্ত হন।

প্রতিমন্ত্রী

তিনি ২০০৮ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইয়াসুও ফুকুদার মন্ত্রিসভায় ভোক্তা বিষয়ক ও খাদ্য নিরাপত্তা বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী নিযুক্ত হন। কিশিদা ফুকুদা মন্ত্রিসভায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রীও ছিলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী

2012 সালের সাধারণ নির্বাচনে আবের জয়লাভের পর তাকে 2012 সালে পররাষ্ট্র বিষয়ক মন্ত্রী নিযুক্ত হয়। পাঁচ বছর দায়িত্ব পালন করেন এবং জাপানের ইতিহাসে দীর্ঘতম ব্যক্তি হিসেবে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন।

আবে মন্ত্রীসভা ত্যাগ

কিশিদা পরে এলডিপির নীতি গবেষণা কাউন্সিলের প্রধান হওয়ার জন্য 2017 সালে আবে মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন। তিনি চেয়েছিলেন যাতে আবের উত্তরাধিকারী হওয়ার সম্ভাবনা উন্নত করতে পারেন। কারণ দলের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পদের প্রভাব ছিল তুলনামূলকভাবে কম।

কোচিকাই গোষ্ঠীর নিয়ন্ত্রণ

কিশিদা 2012 সালে প্রাক্তন উপদলের বস মাকোতো কোগার মৃত্যুর পর এলডিপির কোচিকাই গোষ্ঠীর নিয়ন্ত্রণও গ্রহণ করেছিলেন।

বারাক ওবামার হিরোশিমা সফরের ব্যবস্থা

তিনি মে 2016 সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার ঐতিহাসিক হিরোশিমা সফরের ব্যবস্থা করতে সাহায্য করেছিলেন।

ভারপ্রাপ্ত প্রতিরক্ষা মন্ত্রী

2017 সালে তিনি ভারপ্রাপ্ত প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

সভাপতি

2017 থেকে 2020 পর্যন্ত তিনি এলডিপি নীতি গবেষণা কাউন্সিলেরও সভাপতিত্ব করেছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনে পরাজয়

ফুমিও কিশিদা 2020 সালের এলডিপি নেতৃত্বের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। তবে তিনি ইয়োশিহিদে সুগার কাছে পরাজিত হয়েছিলেন।

নির্বাচনে জয়লাভ

তিনি 2021 সালে দলের নেতৃত্বের জন্য আবার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। এইবার প্রতিপক্ষ তারো কোনোর বিরুদ্ধে তিনি জয়লাভ করেন। 4 অক্টোবর 2021 সালে ন্যাশনাল ডায়েটের দ্বারা কিশিদাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিশ্চিত করা হয়।

মধ্যবিত্তের প্রসারণ

কিশিদাকে এলডিপির মধ্যে একজন আদর্শগত মধ্যপন্থী হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে এবং বলা হয়েছে যে, তার প্রধানমন্ত্রীত্ব মধ্যবিত্তকে প্রসারিত করার জন্য পুনর্বন্টনমূলক নীতি বাস্তবায়নের মাধ্যমে “পুঁজিবাদের একটি নতুন মডেল” এর উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করবে।

বিদেশ নীতি

বিদেশী নীতিতে তিনি ফ্রি এবং ওপেন ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশল অনুসরণে কোয়াড সিকিউরিটি ডায়ালগ জোরদার করার পরিকল্পনা করেছেন।

ইয়োশিহিদে সুগার স্থলাভিষিক্ত

ক্ষমতাসীন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) নেতা হওয়ার জন্য 29 সেপ্টেম্বর 2021 কিশিদা তারোকে পরাজিত করেন এবং বিদায়ী পার্টির নেতা ইয়োশিহিদে সুগার স্থলাভিষিক্ত হন।

প্রধানমন্ত্রীত্ব

তিনি জাপানের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য 249 জন সংসদ সদস্য এবং আট র্যাঙ্ক-এন্ড-ফাইল সদস্যের থেকে মোট 257 ভোট পেয়েছিলেন।

মন্ত্রিসভা

21 সদস্য নিয়ে গঠিত কিশিদার মন্ত্রিসভা 4 অক্টোবর 2021 সালে কার্যভার গ্রহণ করেছিল। এর মধ্যে 13 জন প্রথমবারের মতো মন্ত্রিসভায় যোগ দিয়েছিলেন এবং এছাড়াও 2 জন প্রবীণ – তোশিমিতসু মোতেগি এবং নোবুও কিশিদার অন্তর্ভুক্ত ছিলেন, যারা পূর্ববর্তী মন্ত্রিসভা থেকে তাদের নিজ নিজ পদ ধরে রেখেছিলেন।

নির্বাচন ঘোষণা

কিশিদা ঘোষণা করেন যে তিনি ৩১ অক্টোবর ২০২১ সালের জন্য একটি সাধারণ নির্বাচন ডাকবেন।

প্রথম ভাষণ

কিশিদা 8 অক্টোবর 2021 সালে প্রধানমন্ত্রী হিসাবে তার প্রথম বক্তৃতা দিয়েছিলেন। তিনি জাপান -এ কোভিড-১৯ মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াই ও তাকে শেষ করার পাশাপাশি চীন ও উত্তর কোরিয়ার দ্বারা অনুভূত হুমকি মোকাবিলার ব্যবস্থা ঘোষণা করার অঙ্গীকার করেছিলেন।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ

24 ফেব্রুয়ারী 2022 সালে রাশিয়া – ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হওয়ার পরে রাশিয়ার উপর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার জন্য G-7 দেশগুলির অন্যান্য নেতাদের সাথে কিশিদাও যোগদান করেছিলেন।

নিষেধাজ্ঞা

কিশিদার প্রস্তাবিত নিষেধাজ্ঞাগুলি ছিল 2014 সালে রাশিয়ার ক্রিমিয়া অধিগ্রহণের পর রাশিয়ার উপর শিনজো আবের সরকার কর্তৃক আরোপিত বৃহত্তর প্রতীকী নিষেধাজ্ঞার চেয়ে অনেক বেশি কঠোর।

নেতাদের আশঙ্কা

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির নেতারা আশঙ্কা করছেন যে ইউক্রেনীয় সঙ্কটের প্রতি জাপানের একটি দুর্বল প্রতিক্রিয়া তাইওয়ানের বিরুদ্ধে সম্ভাব্য চীনা আগ্রাসনের ক্ষেত্রে জাপানের ইউরোপীয় মিত্রদের সমর্থনের অভাবের ফল।

সম্মাননা

  • (১) নাইট গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার অফ অরেঞ্জ-নাসাউ, ২৯ অক্টোবর 2014 (নেদারল্যান্ডস)
  • (২) নাইট গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার অফ ইসাবেলা দ্য ক্যাথলিক, 31 মার্চ 2017 (স্পেন)।

(FAQ) জাপানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. জাপানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর নাম কী?

ফুমিও কিশিদা।

২. ফুমিও কিশিদা কোন দলের সদস্য ছিলেন?

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি)।

৩. জাপানের ১০০তম প্রধানমন্ত্রী কে?

ফুমিও কিশিদা।

৪. ফুমিও কিশিদার জন্ম কোথায়?

টোকিওর শিবুয়ায়।

৫. ফুমিও কিশিদার স্ত্রীর নাম কী?

ইউকো কিশিদা।

Leave a Reply

Translate »