চৌসার যুদ্ধ

চৌসার যুদ্ধ প্রসঙ্গে যুদ্ধের প্রেক্ষাপট হিসেবে মামুদ লোদির দিল্লি দখলের পরিকল্পনা, মোগল সাম্রাজ্যের পক্ষে শঙ্কার কারণ, কালিঞ্জর দুর্গ আক্রমণ, চুনার দুর্গ অবরোধ, বাহাদুর শাহের বিরুদ্ধে হুমায়ুনের যুদ্ধযাত্রা, যুদ্ধ ও যুদ্ধের ফলাফল সম্পর্কে জানবো।

চৌসার যুদ্ধ

ঐতিহাসিক যুদ্ধচৌসার যুদ্ধ
দেশভারত
স্থানবিহার রাজ্যের বক্সারের চৌসা গ্ৰাম
সময়কাল১৫৩৯ খ্রি:
বিবাদমান পক্ষশের খাঁ ও হুমায়ুন
ফলাফলশের খাঁর জয়লাভ
চৌসার যুদ্ধ

ভূমিকা :- বাবরের মৃত্যুর পর দিল্লির সিংহাসনে বসেন তাঁর পুত্র হুমায়ুন। আফগানরা নতুন উদ্যমে মোগলদের বিরুদ্ধে সংঘবদ্ধ হয়। এই কাজে বিশেষ উদ্যোগী ছিলেন মামুদ লোদী, বাংলার আফগান শাসক গিয়াসউদ্দিন মামুদ শাহ এবং বিহারের উদীয়মান আফগান যুবক শের খাঁ।

চৌসার যুদ্ধের প্রেক্ষাপট

১৫৩৯ খ্রিস্টাব্দে সংঘটিত চৌসার যুদ্ধের প্রেক্ষাপট ছিল নিম্নরূপ –

(১) মামুদ লোদির দিল্লি দখলের পরিকল্পনা

বাবরের হাতে পরাজিত হবার পরেও আফগান নেতা মামুদ লোদী হাল ছেড়ে দেন নি। তিনি আফগানদের সংগঠিত করে দিল্লি দখলের পরিকল্পনা করতে থাকেন।

(২) মোগল সাম্রাজ্যের পক্ষে শঙ্কার কারণ

গুজরাটের আফগান শাসক বাহাদুর শাহ দিল্লি দখল করতে উদগ্রীব ছিলেন। অন্যদিকে বিহারের উদীয়মান আফগান নেতা শের খাঁর ক্ষমতা বৃদ্ধিও মোগল সাম্রাজ্যের পক্ষে শঙ্কার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল।

(৩) হুমায়ুনের কালিঞ্জর দুর্গ আক্রমণ

এমতাবস্থায় হুমায়ুন আফগানদের বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক যুদ্ধে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। প্রথমে তিনি বুন্দেলখণ্ডের কালিঞ্জর দুর্গ আক্রমণ করেন। এই দুর্গের হিন্দু অধিপতি প্রতাপরুদ্র আফগানদের প্রতি সহানুভূতিশীল ছিলেন। এখান থেকে তিনি বিপুল অর্থ আদায় করেন।

(৪) দৌরার যুদ্ধ

১৫৩২ খ্রিস্টাব্দে  বাবর দৌরার যুদ্ধে মামুদ লোদী ও তাঁর আফগান সহযোগীদের পরাজিত করেন।

(৫) হুমায়ুনের চুনার দুর্গ অবরোধ

এরপর হুমায়ুন আফগান বীর শের খার অধীনস্থ চুনার দুর্গ অবরোধ করেন। চার মাস অবরোধের পর শের খাঁ মৌখিক আনুগত্য স্বীকার করলে হুমায়ুন অবরোধ তুলে নেন।

(৬) বাহাদুর শাহের বিরুদ্ধে হুমায়ুনের যুদ্ধযাত্রা

এরপর হুমায়ুন গুজরাটের সুলতান বাহাদুর শাহের বিরুদ্ধে যুদ্ধযাত্রা করেন।

(৭) শের খাঁর ক্ষমতা বৃদ্ধি

বাহাদুর শাহের সাথে হুমায়ুনের যুদ্ধে লিপ্ত থাকার সুযোগে শের খা পূর্ব ভারতে নিজ শক্তি বৃদ্ধি করতে থাকেন। ১৫৩৪ খ্রিস্টাব্দে বাংলার বেশ কিছু এলাকা দখল করে রাজধানী গৌড় অবরোধ করেন।

(৮) হুমায়ুনের চুনার দুর্গ অবরোধ

শের খাঁর ক্ষমতাবৃদ্ধিতে হুমায়ুন শঙ্কিত বোধ করেন। হুমায়ুন চুনার দুর্গ অবরোধ করেন। শের খাঁ গৌড়ে পালিয়ে যান।

(৯) আগ্ৰার নিরাপত্তা বিপন্ন

৬ মাস পরে হুমায়ুন যখন গৌড়ে যান, তখন শের খাঁ সেখান থেকে সরে এসে কনৌজ ও জৌনপুর দখল করে নেন। ফলে আগ্রার নিরাপত্তা বিপন্ন হয়ে ওঠে।

চৌসার যুদ্ধ

হুমায়ুন দ্রুত দিল্লি প্রত্যাবর্তনের সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু পথিমধ্যে বক্সারের নিকট ‘চৌসা’ গ্রামে শের খাঁ হুমায়ুনের পথ অবরোধ করেন। শুরু হয় চৌসার যুদ্ধ (১৫৩৯ খ্রিঃ)।

চৌসার যুদ্ধের ফলাফল

চৌসার যুদ্ধে হুমায়ুন পরাজিত ও বিধ্বস্ত হন। কোনোক্রমে আগ্রায় পালিয়ে তিনি প্রাণরক্ষা করেন। এই বিজয়ের ফলে বাংলা, বিহার, জৌনপুর, শের খাঁ’র রাজ্যভুক্ত হয়।

উপসংহার :- চৌসার যুদ্ধের পর শের খাঁ ‘শাহ’ উপাধি গ্রহণ করেন। এবং নিজেকে দিল্লির মসনদের বৈধ দাবিদার বলে ঘোষণা করেন।

(FAQ) চৌসার যুদ্ধ সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. চৌসার যুদ্ধ কখন হয়?

১৫৩৯ খ্রিস্টাব্দে।

২. চৌসার যুদ্ধ কাদের মধ্যে হয়?

হুমায়ুন ও শের খাঁ।

৩. চৌসার যুদ্ধ কোথায় হয়?

বিহার রাজ্যের বক্সারের চৌসা গ্ৰামে।

৪. চৌসার যুদ্ধে পরাজিত হয় কে?

হুমায়ুন।

Leave a Comment