নূপুর শর্মা

ভারতীয় রাজনীতিবিদ নূপুর শর্মা প্রসঙ্গে তার জন্ম, বংশ পরিচয়, শিক্ষা, আইনজীবী, এবিভিপিতে যোগদান, এবিভিপিতে নূপুর শর্মার কার্যকালের উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিজেপিতে যোগদান, উর্ধ্বতন নেতাদের সাথে নূপুর শর্মার কাজ, অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধে নূপুর শর্মার প্রতিদ্বন্দ্বিতা, দিল্লীর প্রাতিষ্ঠানিক মুখপাত্র, বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র, টেলিভিশন বিতর্কে নূপুর শর্মার উপস্থিতি, নূপুর শর্মার মন্তব্যে টুইটারে ক্ষোভের সৃষ্টি, নূপুর শর্মার বিরুদ্ধে কলকাতা পুলিশের মামলা, হজরত মহম্মদ সম্পর্কে নূপুর শর্মার মন্তব্য ও পার্টি থেকে বরখাস্ত সম্পর্কে জানবো।

ভারতীয় রাজনীতিবিদ নূপুর শর্মা

ঐতিহাসিক চরিত্রনূপুর শর্মা
জন্ম২৩ এপ্রিল ১৯৮৫ খ্রি:
পেশাআইনজীবী
রাজনৈতিক দলভারতীয় জনতা পার্টি
বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র২০২০-২০২২ খ্রি:
ভারতীয় রাজনীতিবিদ নূপুর শর্মা

ভূমিকা :- একজন ভারতীয় রাজনীতিবিদ ও আইনজীবী হলেন নূপুর শর্মা। তাকে নির্লজ্জ ও স্পষ্টভাষী হিসেবে বর্ণনা করা হয়। তিনি প্রায়শই ভারতীয় টেলিভিশন বিতর্কে একজন সরকারী মুখপাত্র হিসাবে বিজেপির প্রতিনিধিত্ব করেন।

নূপুর শর্মার জন্ম

১৯৮৫ সালে নতুন দিল্লিতে রাজনীতিবিদ ও আইনজীবী নুপুর শর্মা জন্মগ্রহণ করেন।

নূপুর শর্মার বংশ পরিচয়

তার পরিবারের সদস্যরা ছিলেন সরকারী কর্মচারী ও ব্যবসায়ী। তার মা দেরাদুন থেকে এসেছিলেন।

নূপুর শর্মার শিক্ষা

মথুরা রোডের দিল্লি পাবলিক স্কুলে পড়াশোনা করেছেন নূপুর শর্মা। পরে তিনি দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের হিন্দু কলেজ থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক এবং পরে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ে আইনবিদ্যায় স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন।

আইনজীবী নূপুর শর্মা

লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিক্স থেকে আইন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের পর নূপুর শর্মা একজন আইনজীবী হন।

এবিভিপিতে নূপুর শর্মার যোগদান

ছাত্রী অবস্থায় তিনি সংঘ পরিবারের শিক্ষার্থী শাখা অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদে (এবিভিপি) যোগদান করেন। ২০০৮ সালে তিনি দিল্লি ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস ইউনিয়নের সভাপতিত্বে জয়লাভ করেন।

এবিভিপিতে নূপুর শর্মার কার্যকালের উল্লেখযোগ্য ঘটনা

তার কার্যকালের একটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা হল এবিভিপি জনতার নেতৃত্বে এস.কে.আর. গিলানিকে ‘সাম্প্রদায়িকতা, ফ্যাসিবাদ এবং গণতন্ত্র : অলংকার ও বাস্তবতা’ বিষয়ক একটি সেমিনারে প্রশ্নবাণে জর্জরিত করা। তিনি সেই রাতেই একটি টেলিভিশন অনুষ্ঠানে হাজির হন ও তীব্র প্রতিক্রিয়া জানান।

বিজেপিতে নূপুর শর্মার যোগদান

নূপুর শর্মা ২০১০-২০১১ সালে লন্ডন থেকে ফিরে এসে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) কর্মী হয়েছিলেন। তিনি ২০১৩ সালে দিল্লি বিজেপির ওয়ার্কিং কমিটির সদস্য হন।

উর্ধ্বতন নেতাদের সাথে নূপুর শর্মার কাজ

তিনি অরবিন্দ প্রধান, অরুণ জেটলি ও অমিত শাহের মতো উর্ধ্বতন নেতাদের সাথে কাজ করেছেন বলে জানা যায়।

অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধে নূপুর শর্মার প্রতিদ্বন্দ্বিতা

নূপুর শর্মাকে ২০১৫ সালে ২০১৫ সালের দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে আম আদমী পার্টির অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য সুযোগ দেওয়া হয়। তখন তার বয়স ছিল ৩০ বছর। তিনি ৩১,০০০ ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পরাজিত হন।

দিল্লীর প্রাতিষ্ঠানিক মুখপাত্র নূপুর শর্মা

এরপর তিনি মনোজ তিওয়ারীর অধীনে বিজেপির দিল্লি ইউনিটের প্রাতিষ্ঠানিক মুখপাত্র হিসেবে নিযুক্ত হন।

বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র নূপুর শর্মা

২০২০ সালে জগৎ প্রকাশ নাড্ডার সভাপতিত্বে বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র হিসাবে নূপুর শর্মা নিযুক্ত হন। ২০২২ সালের জুন মাস পর্যন্ত তিনি ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) জাতীয় মুখপাত্র ছিলেন।

টেলিভিশন বিতর্কে নূপুর শর্মার উপস্থিতি

  • (১) দিল্লির একজন বিজেপি নেতার মতে, নূপুর শর্মা যখন দিল্লি ইউনিটের অংশ ছিলেন তখন প্রায়শই তার আইনী বুদ্ধিমত্তা, জাতীয় সমস্যাগুলোর সঠিক জ্ঞান ও দ্বিভাষিক দক্ষতার জন্য জনপ্রিয় হয়েছিলেন।
  • (২) এই বিশেষ দক্ষতার কারণে জাতীয় ইস্যুতে টিভি বিতর্কের জন্য তাকে পাঠানো হত। টেলিভিশন বিতর্কে নিয়মিত উপস্থিত হওয়ার সাথে সাথে তাকে তরুণ, উদ্যমী ও উজ্জ্বল হিসেবে দেখা যায়।

নূপুর শর্মার মন্তব্যে টুইটারে ক্ষোভের সৃষ্টি

বিরোধী প্যানেলিস্টদের বিরুদ্ধে নূপুর শর্মা বেশ কিছু অপমানজনক মন্তব্য করেছেন যা টুইটারে ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে বলে লিপিবদ্ধ করা হয়।

নূপুর শর্মার বিরুদ্ধে কলকাতা পুলিশের মামলা

২০০২ সালের গুজরাট দাঙ্গার একটি ছবি শেয়ার করার জন্য ও পশ্চিমবঙ্গে সহিংসতার চিত্র তুলে ধরার জন্য ২০১৭ সালে তার বিরুদ্ধে কলকাতা পুলিশ মামলা করেছিল।

হজরত মহম্মদ সম্পর্কে নূপুর শর্মার মন্তব্য

  • (১) ২৬ মে ২০২২ সালে নূপুর শর্মা টাইমস নাউ টেলিভিশন চ্যানেলে জ্ঞানবাপী মসজিদ বিবাদের উপর একটি বিতর্কে অংশ নিয়েছিলেন। এই সময় তিনি মহম্মদের স্ত্রী আয়েশার বিয়ের সময় ও বিবাহের সমাপ্তি সম্পর্কে বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন। বিষয়টি অপমানজনক দৃষ্টিতে দেখা হয়।
  • (২) তার মন্তব্যের ভিডিও ক্লিপটি সামাজিক মাধ্যমের একটি ফ্যাক্ট চেকিং ওয়েবসাইট অল্ট নিউজের সহ প্রতিষ্ঠাতা মহম্মদ জুবায়ের শেয়ার করেন। শর্মা পরে অভিযোগ করেন যে এটি একটি “খুব বেশি সম্পাদিত ও নির্বাচিত মুহূর্ত”, যা অল্ট নিউজ দ্বারা অস্বীকার করা হয় এবং প্রসঙ্গ দেখানোর জন্য একটি দীর্ঘ ক্লিপ অন্তর্ভুক্ত করা হয়।
  • (৩) ঘটনার সমালোচনার পর টাইমস নাউ পরের দিন তার ইউটিউব চ্যানেল থেকে অনুষ্ঠানটির ভিডিও মুছে দেয়। পরবর্তীকালে নূপুর শর্মা বলেছিলেন যে তিনি ধর্ষণ ও হত্যার হুমকি পেতে শুরু করেছেন যার জন্য জুবায়ের দায়ী। দিল্লি পুলিশ তাকে নিরাপত্তা দেয়।
  • (৪) পরের দিন মুম্বাইয়ের পাইধোনি থানায় নূপুর শর্মার বিরুদ্ধে একটি পুলিশ এফআইআর নথিভুক্ত করা হয় যেখানে তার বিরুদ্ধে “ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত” করার অভিযোগ আনা হয়েছিল।
  • (৫) মহম্মদ ও ইসলামের বিরুদ্ধে নূপুর শর্মার “অপমানজনক, মিথ্যা এবং আঘাতমূলক” শব্দ ব্যবহারের জন্য হায়দ্রাবাদে সর্বভারতীয় মজলিস-ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমিনের নেতা ও সংসদ সদস্য আসাদউদ্দিন ওয়াইসির এফআইআর সহ দেশের বিভিন্ন শহরে একাধিক এফআইআর নথিভুক্ত করা হয়েছিল।
  • (৬) ৩ জুন তার মন্তব্যের প্রতিবাদে কানপুরের একটি মুসলিম সংগঠনের দ্বারা একটি হরতাল ডাকা হয়েছিল। এই হরতালে সহিংসতা শুরু হয় ও ৪০ জন আহত হয়। তার মন্তব্য আন্তর্জাতিকভাবেও সামাজিক মাধ্যমে ব্যাপকভাবে শেয়ার করা হয়েছে।
  • (৭) ৪ জুনের মধ্যে উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদ এবং তুরস্কের সমস্ত দেশের শীর্ষ ১০ টি হ্যাশট্যাগের মধ্যে “নবী মহম্মদের অবমাননা” উপস্থিত ছিল। জর্ডন, লিবিয়া, আফগানিস্তান, ইন্দোনেশিয়া ও পাকিস্তানের সরকার এই মন্তব্যের নিন্দা করেছে।
  • (৮) ওমানের প্রধান মুফতি তার এই মন্তব্যকে “উদ্ধত ও অশ্লীল অভদ্রতা” বলে অভিহিত করেছেন এবং একে প্রতিটি মুসলমানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। তিনি সমস্ত ভারতীয় পণ্য বয়কট ও ওমানে সমস্ত ভারতীয় বিনিয়োগ বাজেয়াপ্ত করার আহ্বান জানান।
  • (৯) কাতার সরকার ভারতীয় রাষ্ট্রদূতকে তলব করে ও মন্তব্যের জন্য অবিলম্বে নিন্দা ও ক্ষমা চাইতে বলে। কুয়েত ও ইরানও ভারতীয় রাষ্ট্রদূতদের ডেকেছে এবং তাদের প্রতিবাদপত্র দিয়েছে।
  • (১০) ৫ জুন নূপুর শর্মাকে বিজেপি থেকে বরখাস্ত করা হয়। দলীয় বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “বিজেপি যে কোনো ধর্মের কোনো ধর্মীয় ব্যক্তিত্বের অবমাননার তীব্র নিন্দা করে।”
  • (১১) পরবর্তীতে নূপুর শর্মা বলেছিলেন যে তিনি “নিঃশর্তভাবে” তার বিবৃতি প্রত্যাহার করে নিচ্ছেন, তবে হিন্দু দেবতা শিবের প্রতি “নিরন্তর অপমান এবং অবজ্ঞা” করার প্রতিক্রিয়া হিসেবে দাবি করে তাদের ন্যায্যতা দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন।
  • (১২) বিজেপি রাজনীতিবিদ সহ অনেক বিজেপি সমর্থক নূপুর শর্মার সমর্থনে সমাবেশের আয়োজন করে এবং তাকে বরখাস্ত করার জন্য ও আন্তর্জাতিক চাপের মুখে নত হওয়ার জন্য দল ও সরকারের সমালোচনা করে।
  • (১৩) ২০২২ সালের জুন মাসে মুম্বাই পুলিশের একটি দল শর্মাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে দিল্লিতে আসে, ৫ দিন ধরে ক্যাম্প করেও তারা তাকে খুঁজে পায়নি।
  • (১৪) কানহাইয়া লাল নামে একজন হিন্দু দর্জি নূপুর শর্মার সমর্থনে সামাজিক মাধ্যমে একটি পোস্ট শেয়ার করার অভিযোগে ভারতের রাজস্থান রাজ্যের উদয়পুরে ২৮ জুন ২০২২-এ দুই মুসলিম আততায়ীর হাতে খুন হন।

পার্টি থেকে বরখাস্ত নূপুর শর্মা

২০২২ সালের জুন মাসে ইসলামি নবি মহম্মদ ও তার তৃতীয় স্ত্রী আয়েশার বয়স, তাদের বিয়ের সময় এবং বিবাহের সমাপ্তি বিতর্কিত মন্তব্যের কারণে তাকে পার্টি থেকে বরখাস্ত করা হয়।

উপসংহার :- প্রাক্তন বিজেপি মুখপাত্র নূপুর শর্মার পয়গম্বর মন্তব্যে উত্তাল হয়েছিল গোটা দেশ। তার বিরুদ্ধে একাধিক রাজ্যে এফ আই আর হলেও সুপ্রিম কোর্টের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়, আপাতত কোনও রাজ্যের পুলিশ নূপুর শর্মাকে গ্রেফতার করতে পারবে না।

(FAQ) ভারতীয় রাজনীতিবিদ নূপুর শর্মা সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. নূপুর শর্মা কে ছিলেন?

নূপুর শর্মা একজন আইনজীবী ও রাজনীতিবিদ ও ভারতীয় জনতা পার্টির প্রাক্তন জাতীয় মুখপাত্র।

২. নূপুর শর্মা কখন কোথায় জন্মগ্রহণ করেন?

২৩ এপ্রিল ১৯৮৫ সালে নতুন দিল্লিতে।

৩. বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র হিসেবে নূপুর শর্মার সময়কাল কত?

২০২০-২০২২ সাল।

৪. নূপুর শর্মা কার সম্পর্কে বিতর্কিত মন্তব্য করেন?

হজরত মহম্মদ।

Leave a Comment