অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী অজয়কুমার মুখোপাধ্যায় -এর জন্ম, বংশ পরিচয়, বিবেকানন্দের প্রভাব, অসহযোগ আন্দোলনে যোগদান, বিদ্যুৎ বাহিনী গঠন, কংগ্রেসের প্রার্থী হিসেবে স্বীকৃতি, সেচ মন্ত্রী রূপে কৃষির উন্নতি, পশ্চিমবঙ্গের প্রথম অকংগ্রেসি মুখ্যমন্ত্রী, অনশন অবস্থান, রাজনীতি ত্যাগ, সম্মাননা, শেষ জীবন ও তার মৃত্যু সম্পর্কে জানবো।

Table of Contents

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়

জন্ম১৫ এপ্রিল ১৯০১ খ্রিষ্টাব্দ
মৃত্যু২৭ মে ১৯৮৬ খ্রিস্টাব্দ
পরিচিতিপশ্চিমবঙ্গের চতুর্থ ও ষষ্ঠ মুখ্যমন্ত্রী
অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়

ভূমিকা :- ভারতীয় বাঙালি স্বাধীনতা সংগ্রামী তথা পশ্চিমবঙ্গের চতুর্থ ও ষষ্ঠ মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়।

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়ের জন্ম

বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ্ অজয়কুমার মুখোপাধ্যায় ১৫ এপ্রিল ১৯০১ খ্রিস্টাব্দে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তমলুকের মালিজঙ্গলে জন্মগ্রহণ করেন।

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়ের বংশ পরিচয়

তার পিতা শরৎ মুখোপাধ্যায় ছিলেন আইনজীবী। তাদের আদি নিবাস ছিল হুগলি জেলায়।

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়ের উপর বিবেকানন্দের প্রভাব

অজয় মুখোপাধ্যায় যৌবনে স্বামী বিবেকানন্দ -এর দ্বারা অত্যন্ত প্রভাবিত হয়েছিলেন।

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়ের অসহযোগ আন্দোলনে যোগদান

প্রেসিডেন্সি কলেজে পড়ার সময় তিনি অসহযোগ আন্দোলনে যোগদান করে পড়া ছেড়ে দেন। জীবনের দীর্ঘ সময় জেলে বা অন্তরীন অবস্থায় কাটিয়েছেন তিনি।

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়ের বিদ্যুৎবাহিনী

১৯৪২ খ্রিস্টাব্দে তার তৈরী বিদ্যুৎবাহিনী তাম্রলিপ্ত জাতীয় সরকার গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল। এই বিদ্যুৎ বাহিনী দমন করতে ব্রিটিশ সরকারকে যথেষ্ট বেগ পেতে হয়েছিল।

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায় কংগ্রেসের প্রার্থী

১৯৫২ সালে দেশের প্রথম সাধারণ উপনির্বাচনে তমলুক বিধানসভা কেন্দ্র থেকে কংগ্রেস প্রার্থী হন। জয়ী হয়ে মুখ্যমন্ত্রী বিধানচন্দ্র রায় -এর মন্ত্রিসভার সেচ ও জলপথ বিভাগের মন্ত্রী পদ গ্রহণ করেন।

সেচ মন্ত্রী

তিনি ১৯৬৩ সালে প্রথম বিধানসভার সদস্য ও সেচমন্ত্রী হয়েছিলেন। পরে মন্ত্রীত্ব ত্যাগ করে কংগ্রেস সংগঠন গড়ে তোলার কাজে তিনি আত্মনিয়োগ করেছিলেন।

কৃষিতে উন্নতি

সেচ মন্ত্রী হিসেবে তিনি গ্রাম বাংলার অনেক জলাভূমি সংস্কার করেন। ফলে সমগ্ৰ পশ্চিমবঙ্গ বিশেষ করে তার জন্মভূমি মেদিনীপুর জেলা কৃষিক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নতি লাভ করে।

তমলুক মহকুমা হাসপাতাল

১৯৬২ সালে তার প্রচেষ্টায় তমলুকে ১২৫ শয্যা বিশিষ্ট মহকুমা হাসপাতাল তৈরি হয়। এক্ষেত্রে তৎকালীন ১২ লক্ষ টাকা খরচ হয়েছিল।

কংগ্রেসের সভাপতি ও বাংলা কংগ্রেস গঠন

১৯৬৪ সালে তিনি প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি হন। জাতীয় কংগ্রেসের সঙ্গে যুক্ত থাকলেও পরে প্রফুল্লচন্দ্র সেন ও অতুল্য ঘোষের সাথে মতবিরোধ হলে কংগ্রেস ত্যাগ করে নলিনাক্ষ সান্যালের সাথে বাংলা কংগ্রেস দল গঠন করেন।

যুক্তফ্রন্টের মুখ্যমন্ত্রী

সিপিআই(এম)-এর সহযোগিতায় দুবার যুক্তফ্রন্ট সরকার পরিচালনা করেন তিনি। ১৫ মার্চ ১৯৬৭ – ২ নভেম্বর ১৯৬৭ খ্রিস্টাব্দ এবং ২৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯ – ১৯ মার্চ ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত তিনি যুক্তফ্রন্টের মুখ্যমন্ত্রী পদে আসীন ছিলেন।

অকংগ্রেসি মুখ্যমন্ত্রী

পশ্চিমবঙ্গে প্রথম অকংগ্রেসি সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়।

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়ের অনশন অবস্থান

হানাহানির প্রতিবাদে ১৯৬৯ সালের ১ ডিসেম্বর মধ্য কলকাতার কার্জন পার্কে (বর্তমানে সুরেন্দ্রনাথ ব্যানার্জি পার্ক) অনশন অবস্থান শুরু করেন মুখ্যমন্ত্রী অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়। তাঁর সঙ্গে ছিলেন বাংলা কংগ্রেসের বিধায়ক এবং প্রাক্তন স্বাধীনতা সংগ্রামী হরিদাস মিত্র। এই হরিদাসেরই পুত্র ড. অমিত মিত্র বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অর্থমন্ত্রী।

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়ের রাজনীতি ত্যাগ

১৯৭৭ সালে লোকসভা নির্বাচনে স্বাধীনতা আন্দোলনের সহযোদ্ধা সতীশ সামন্ত সুশীলকুমার ধাড়ার কাছে পরাজিত হলে তিনি রাজনীতি থেকে অবসর নেন।

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়কে সম্মাননা

১৯৭৭ সালে অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়কে ভারতের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান পদ্মবিভূষণ অভিধায় ভূষিত করা হয়।

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়ের শেষ জীবন

অকৃতদার অজয়কুমার মুখোপাধ্যায় শেষ জীবনে নিজেকে রাজনীতি থেকে সরিয়ে নেন। সর্বজনশ্রদ্ধেয় এবং সৎ রাজনীতিবিদ হিসেবে বাংলার রাজনীতিতে আজো তিনি উদাহরণস্বরূপ হয়ে আছেন।

অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যু

লোকচক্ষুর অন্তরালে এবং নিতান্তই অবহেলায় ২৭ মে ১৯৮৬  খ্রিস্টাব্দে মারা যান প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অজয়কুমার মুখোপাধ্যায়।

(FAQ) অজয়কুমার মুখোপাধ্যায় সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. এখনও পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে কতবার রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হয়েছে?

পাঁচ বার।

২. পশ্চিমবঙ্গের প্রথম অকংগ্রেসি মুখ্যমন্ত্রী কে ছিলেন?

অজয় মুখোপাধ্যায়।

৩. পশ্চিমবঙ্গের আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল বাংলা কংগ্রেস কে প্রতিষ্ঠা করেন?

অজয় মুখোপাধ্যায় ও নলিনাক্ষ সান্যাল।

Leave a Reply

Translate »