সুজাতা

প্রাচীন ভারতের কোপনস্বভাবা নারী সুজাতা প্রসঙ্গে সুজাতার পরিচয়, সুজাতার স্বভাব চরিত্র, অনাথপিণ্ডদ -এর বাড়িতে বুদ্ধদেবের উপস্থিতি, গৌতম বুদ্ধের নিকট সুজাতার চরিত্র বর্ণনা, সুজাতা ও বুদ্ধদেবের সাক্ষাৎ এবং সুজাতা ও গৌতম বুদ্ধের কথোপকথন সম্পর্কে জানবো।

কোপনস্বভাবা নারী সুজাতা

ঐতিহাসিক চরিত্রকোপনস্বভাবা সুজাতা
পরিচিতিঅনাথপিণ্ডদ -এর পুত্রবধূ
স্বভাবকলহপ্রিয়া
পরিবর্তনগৌতম বুদ্ধের সংস্পর্শে
কোপনস্বভাবা নারী সুজাতা

ভূমিকা :- বুদ্ধদেবের সাধনার সময় যে ধনী ভূম্যধিকারীর পত্নী সুজাতা পায়সান্ন দ্বারা বুদ্ধদেবকে সিদ্ধিলাভের পক্ষে সাহায্য করেছিলেন, তাঁর কথা আমরা পূর্বেই বলেছি। আমরা আর একজন সুজাতার কথা বলছি, এই সুজাতা কোপনস্বভাবা এবং অত্যন্ত কলহপ্রিয়া ছিলেন, কিন্তু শিক্ষা এবং সদুপদেশ দ্বারা মানুষের চিত্তের কিরূপ পরিবর্তন ঘটতে পারে, এই সুজাতার চরিত্র হতে তা বেশ জানতে পারা যায়।

সুজাতার পরিচয়

অনাথপিণ্ডদ-এর কথা পূর্বেই সুপ্রিয়ার প্রসঙ্গে বলেছি। এই সুজাতা ছিলেন অনাথপিণ্ডদ-এর এক পুত্রবধূ।

সুজাতা স্বভাব চরিত্র

এই সুজাতার রুক্ষ স্বভাব ও দুর্ব্যবহারের জন্য শ্রেষ্ঠি পরিবারের সকলেই সন্ত্রস্ত থাকতেন। সুজাতা ধনী পিতার আদরিণী কন্যা ছিলেন বলে কাউকেও সম্মান করে চলতে জানতেন না, কিন্তু বুদ্ধদেবের উপদেশ মন্ত্রে সুজাতার চরিত্রে আশ্চর্যরূপ পরিবর্তন ঘটেছিল।

অনাথপিণ্ডদের বাড়িতে বুদ্ধদেবের উপস্থিতি

  • (১) একদিন বুদ্ধদেব ভিক্ষাপ্রার্থিরূপে পর্যটন করতে করতে বণিক অনাথপিণ্ডদ-এর বাড়ী এসে উপনীত হলেন। বুদ্ধদেব যখন অনাথপিণ্ডদ -এর বাড়ীতে উপস্থিত হলেন, সেই সময়ে বাড়ীর মধ্যে ভয়ানক কলহ ও মহাকলরব চলছিল।
  • (২) বুদ্ধদেব একজন সম্ভ্রান্ত শ্রেষ্ঠীর বাড়ীর অন্তঃপুরমধ্যে এইরূপ কলরব শুনতে পেয়ে একটু আশ্চর্যান্বিত হলেন এবং অনাথপিণ্ডকে তার কারণ জিজ্ঞাসা করে বললেন “আপনার বাড়ীতে এইরূপ গোলমাল কেন ? মনে হয় যেন মেছুনীদের মাছ চুরি গিয়েছে “

গৌতম বুদ্ধের নিকট সুজাতার চরিত্র বর্ণনা

  • (১) অনাথপিণ্ডদ লজ্জিত হয়ে দুঃখের সাথে সমুদয় কথা প্রকাশ করে বললেন “আমার একটি পুত্রবধূ সুজাতা, বড়ঘরের মেয়ে, সে আজ আমার বাড়ীতে এসেছে। এই পুত্রবধুটি একান্ত অবাধ্য, কারও কথা বা উপদেশ সে মানতে চায় না; স্বামীর কথাও শোনে না, শ্বশুরশাশুড়ীর অবমাননা করে বুদ্ধের প্রতিও তাঁর কোনও শ্রদ্ধা কিংবা ভক্তি নেই।”
  • (২) বুদ্ধদেব এইরূপ ভাবে অনাথপিণ্ডদ-এর গৃহে উপস্থিত হয়েছিলেন যে, অনাথপিণ্ডদ তাঁকে একজন সাধারণ ভিক্ষু বলেই মনে করেছিলেন। স্বয়ং বুদ্ধদের যে উপস্থিত হয়েছেন তা বুঝতে পারেন নি।

সুজাতা ও বুদ্ধদেবের সাক্ষাৎ

বুদ্ধদেব অনাথপিণ্ডদ কে বললেন “আপনি একবার আপনার পুত্রবধূকে আমার নিকট আসতে আহ্বান করুন।” অনাথপিণ্ডদ বুদ্ধদেবের আদেশ পালন করলেন। সুজাতা বুদ্ধদেবের নিকটে এসে তার সৌম্যমূর্তি দেখে বিস্মিত ও বিমুগ্ধা হলেন।

সুজাতা ও গৌতম বুদ্ধের কথোপকথন

গৌতম বুদ্ধ: বুদ্ধদেব আসন গ্রহণ করে সুজাতাকে সম্বোধন করে বললেন, “সুজাতা, স্ত্রী সাত প্রকারের হয়ে থাকে কেউ ভীমা, কেউ উগ্রচণ্ডা, কেউ কুটিলা ও কলহপ্রিয়া, কেউ প্রিয়ংবদা, কেউ সুশীলা, কেউ সুগৃহিণী, কেউ প্রিয়সখী ও কেউ সেবিকা হয়। বৎসে! তুমি এদের মধ্যে কোন শ্রেণীর অন্তর্গত, তা আমাকে বল।”

সুজাতা: সুজাতা এইরূপ প্রশ্নের মর্ম বুঝতে না পেরে বললেন, “আপনি আমাকে যে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করলেন তার অর্থ আমি ভাল বুঝতে পারলাম না, আমাকে বিষয়টি বেশ পরিষ্কার করে বুঝিয়ে দিন।”

গৌতম বুদ্ধ: তখন বুদ্ধদেব স্মিতমুখে বললেন, “আমি তোমাকে সব কথা বেশ ভাল ভাবে বুঝিয়ে দিচ্ছি, তুমি মনোযোগ দিয়ে শ্রবণ কর।” তারপর একে একে সাত প্রকার স্ত্রীর বর্ণনা করলেন।

গৌতম বুদ্ধ: বুদ্ধদেব বললেন, “অসতী স্ত্রী যারা তারা চপলস্বভাবা ও কুলকলঙ্কিনী হয়ে থাকে। তারা স্বামীকে ভালবাসে না, লোকের নিন্দনীয়া হয়ে এরা সমাজে অধমা স্ত্রীরূপে পরিচিতা হয়। আর যিনি উত্তমা স্ত্রী তিনি সতীলক্ষ্মী ও পবিত্রতার আদর্শস্থানীয়া হয়ে থাকেন, তার কাছে পতিই পরম নিধি বলে বিবেচিত হয়, তিনি দাসীর ন্যায় পতির সেবা করে থাকেন, পতির আজ্ঞা ও উপদেশকে তিনি শিরোধার্য করে চলেন।”

গৌতম বুদ্ধ: এই ভাবে উত্তমা, মধ্যমা এবং অধমা স্ত্রীলোকদের বিষয় বলে বুদ্ধদেব বলেন, “সুজাতা, তুমি কোন শ্রেণীর স্ত্রী হতে ইচ্ছা কর?”

সুজাতা: সুজাতা তখন সব কথা বুঝতে পেরে এবং বুদ্ধদেবের পরিচয় জানতে পেরে বললেন, “প্রভু! আপনি আমাকে পতিব্রতা সতী স্ত্রী বলে মনে করবেন। আমি অন্য কোনো শ্রেণীর স্ত্রী হতে ইচ্ছা করি না।”

গৌতম বুদ্ধ: তখন বুদ্ধদেব বললেন, তুমি সতী ও পতিব্রতা স্ত্রীরূপে পরিচিত হতে ইচ্ছা করেছ জেনে আমি প্রীতি লাভ করলাম। তবে মনে রাখবে যে, স্বামী-স্ত্রী এই দুইজনের মধ্যে উভয়েরই উভয়ের প্রতি কর্তব্য আছে। প্রতি স্বামীর কর্তব্য হচ্ছে সম্মান প্রদর্শন, ভালবাসা, একনিষ্ঠতা, ভরণপোষণ ও বেশভূষার ব্যাপারে তুষ্টিসাধন আনা। স্বামীর প্রতি স্ত্রীর কর্তব্য হচ্ছে গৃহকার্যে দক্ষতা, অতিথিসেবা, সতীত্ব রক্ষা, মিতব্যয়িতা এবং শ্রমশীলতা। তুমি এই সকল উপদেশ পালন করে চলতে পারবে ত।

সুজাতা: সুজাতা বুদ্ধদেবের চরণ স্পর্শ করে বললেন, “হ্যাঁ প্রভূ! আমি কায়মনোবাক্যে আপনার এই আদেশ ও উপদেশ মেনে চলব।” বুদ্ধদেব তখন প্রসন্ন মঙ্গল-হাস্যে সুজাতাকে আশীর্বাদ করে ভিক্ষাপাত্র হস্তে পথে বার হয়ে পড়লেন।

উপসংহার:- সেদিন থেকে কলহপ্রিয়া, কোপনস্বভাবা সুজাতার চরিত্রে পরিবর্তন ঘটল তাঁর বিনীত ও সুমিষ্ট ব্যবহার, পাতিব্রতা, গুরুজনের সেবা ও সত্যধর্ম পালন করে চলা প্রভৃতি বিবিধ গুণ তাঁকে আদর্শ মহিলার গুণগরিমায় ভূষিত করেছিল।

(FAQ) সুজাতা সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য?

১. সুজাতা কে ছিলেন?

বণিক শ্রেষ্ঠ অনাথপিণ্ডদ -এর পুত্রবধূ।

২. সুজাতার স্বভাব চরিত্র কেমন ছিল?

কোপনস্বভাবা ও অত্যন্ত কলহপ্রিয়া।

৩. কার সংস্পর্শে এসে সুজাতা পরিবর্তন ঘটে?

গৌতম বুদ্ধ।

Leave a Comment