প্লেটো: মহান গ্রিক দার্শনিক (Plato)

আজ আমরা মহান গ্রিক দার্শনিক প্লেটোর জন্ম পরিচয়, পিতা ও মাতা; বংশ পরিচয়, প্লেটো নামের কারণ, শৈশব ও শিক্ষা, বিশেষ গুণ, গ্রন্থাবলি সম্পর্কে জানবো ।

Table of Contents

মহান গ্রিক দার্শনিক প্লেটো (Plato)

জন্ম৪২৭ খ্রিস্টপূর্ব
যুগ প্রাচীন দর্শন
ধারাপ্লেটোবাদ
ভাবগুরুসক্রেটিস, হোমার, পিথাগোরাস, হেরাক্লিটাস প্রমুখ।
ভাবশিষ্যএরিস্টটল, সিসেরো, প্লুটার্ক, বৈরাগ্য, রেঁনে দেকার্তে, টমাস হবস প্রমুখ।
মৃত্যু৩৪৭ খ্রিস্টপূর্ব
দার্শনিক প্লেটো

ভূমিকা :- প্লেটো বিশ্ববিখ্যাত গ্রিক দার্শনিক। তিনি দার্শনিক সক্রেটিস -এর ছাত্র ছিলেন এবং দার্শনিক এরিস্টটল তার ছাত্র ছিলেন।

প্লেটোর জন্ম পরিচয়

দার্শনিক প্লেটোর সঠিক জন্ম তারিখ জানা যায়নি। প্রাচীন তথ্যসূত্রগুলো অধ্যয়নের মাধ্যমে আধুনিকতম বিশেষজ্ঞরা ধারণা করেছেন প্লেটো ৪২৮ থেকে ৪২৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দের কোন এক সময়ে গ্রিসের এথেন্সে জন্মগ্রহণ করেন।

প্লেটোর পিতা ও মাতা

দার্শনিক প্লেটোর পিতার নাম এরিস্টন ও মায়ের নাম পেরিকটিওন।

প্লেটোর বংশ পরিচয়

ডায়োজিনিস লিরটিয়াসের প্রদত্ত তথ্যমতে প্লেটোর বংশের পূর্বপুরুষ ছিল এথেন্সের রাজা কডরাস এবং মেসেনিয়ার রাজা মেলানথাস। প্লেটোর মা’র পারিবারিক পূর্বপুরুষ ছিল বিখ্যাত এথেনীয় আইনজ্ঞ এবং কবি সোলন। অর্থাৎ প্লেটো মা ও বাবা উভয় দিক দিয়েই বিশেষ বংশমর্যাদার অধিকারী ছিলেন।

প্লেটো নামের কারণ

বলা হয়ে থাকে যে, আয়তাকার কাঁধের অধিকারী ছিলেন বলেই সবাই তাকে প্লেটো নামে ডাকতো।

সুদর্শন প্লেটো

দার্শনিক প্লেটো সুদর্শন ও স্বাস্থ্যবান ছিলেন।

প্লেটোর শৈশব ও শিক্ষা

যে পরিবারে তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলেন তা শিক্ষা গ্রহণের জন্য ছিল সুবিশেষ অনুকূল। এই সুযোগের সঠিক সদ্ব্যবহার করেতে পেরেছিলেন প্লেটো।

  • (১) সমকালীন শিক্ষার সবরকম সুযোগ-সুবিধাই তিনি গ্রহণ করতে পেরেছিলেন।
  • (২) হিরাক্লিটাসের একটি বিখ্যাত দার্শনিক মত ছিল – পরিবর্তনশীল ইন্দ্রিয়জগৎ সম্পর্কে কোন স্থিত জ্ঞান সম্ভব নয়। এরিস্টটল বলেন যে, এই দার্শনিক মতের সাথে প্লেটো বাল্যকালেই পরিচিত হয়েছিলেন।
  • (৩) এছাড়াও প্লেটোর জীবনে এসময় প্রভাব পড়েছিল পারমেনাইডিস এবং পিথাগোরাসের দর্শনের।

প্লেটোর বিশেষ গুণ

দর্শনের প্রতি অনন্যসাধারণ নিষ্ঠা ছাড়াও প্লেটোর বেশ কিছু গুণ ছিল। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল তিনি সৈনিক ও ক্রীড়াবিদ হিসেবে প্রভূত সুখ্যাতি অর্জন করেছিলেন।

গ্রিসের অন্যতম প্রভাবশালী দার্শনিক প্লেটো

প্রাচীন গ্রিসের সবচেয়ে প্রভাবশালী তিনজন দার্শনিকের মধ্যে তিনি দ্বিতীয় উল্লেখযোগ্য স্থানে অবস্থান।

গ্রিসের প্রভাবশালী তিনজন দার্শনিক

প্রাচীন গ্রিকসের দার্শনিকদের মধ্যে প্রথমে ছিলেন সক্রেটিস, দ্বিতীয় প্লেটো এবং শেষ এরিস্টটল। এরাই পশ্চিমা দর্শনের ভিত রচনা করেছেন বলা যায়।

প্লেটোর গৃহত্যাগ

সক্রেটিসের মৃত্যুর পর প্লেটো গৃহত্যাগ করে উদ্দেশ্যহীনভাবে দেশ ভ্রমণে বের হয়ে পড়েন । কেউ কেউ বলেন সক্রেটিসের শিষ্য হওয়ায় এথেন্সবাসীরা প্লেটোর উপরও ক্ষেপে ওঠে । বন্ধুরা তাকে এথেন্স ছেড়ে যাওয়ার পরামর্শ দিলে তিনি দেশত্যাগ করেন ।

এথেন্সের আকাদেমি

তিনি একাধারে গণিতজ্ঞ এবং দার্শনিক ভাষ্যের রচয়িতা হিসেবে খ্যাত। তিনিই পশ্চিমা বিশ্বে উচ্চ শিক্ষার প্রথম প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন, যার নাম এথেন্সের আকাদেমি।

প্লেটোর ওপর সক্রেটিসের প্রভাব

দার্শনিক প্লেটো সক্রেটিসের অনুরক্ত ছাত্র ছিলেন, সক্রেটিসের অনৈতিক মৃত্যু তার জীবনে প্রগাঢ় প্রভাব ফেলেছে।

 প্লেটো ও সক্রেটিস

প্লেটোর জীবনে সবচেয়ে বেশি যিনি প্রভাব ফেলেছিলেন তিনি হলেন তার শিক্ষক মহামতি সক্রেটিস। তার জীবনে সক্রেটিসের প্রভাব অতি সুস্পষ্ট কারণ সক্রেটিসের সব কথোপকথন প্লেটোই লিখে গেছেন। শৈশবকাল থেকেই প্লেটোর সাথে সক্রেটিসের পরিচয় ছিল।

গ্রন্থাবলি

প্লেটো রচিত উল্লেখযোগ্য গ্রন্থাবলি ও বিষয়বস্তু হল –

(১) এপোলজি(Apology)

এথেন্সের আদালতে সক্রেটিস কিভাবে আত্মপক্ষ সমর্থন করেন, এই গ্রন্থে প্লেটো তারই বর্ণনা দিয়েছেন,

(২) ক্রিটো(Crito)

এই গ্ৰন্থে সক্রেটিসকে একজন বিশ্বস্ত রাজভক্ত হিসেবে দেখানো হয়েছে।

(৩) ইউথ্রিফ্রন(Euthyphron)

ধর্মের প্রকৃতি আলোচিত হয়েছে এই গ্ৰন্থে।

(৪) ল্যচেস(Laches)

এই গ্ৰন্থে সাহসিকতার দিকটি পরিস্ফুট হয়েছে।

(৫) আইয়ন(Ion)

অনুধ্যানবিহীন সেনাপতি ও কবি ব্যক্তি সম্পর্কিত বিষয় আলোচিত হয়েছে এই গ্ৰন্থে।

(৬) প্রোটাগোরাস(Protagoras)

প্লেটোর অযথার্থবাদ ও সক্রেটিসের যথার্থবাদের আলোচনা করা হয়েছে এই গ্ৰন্থে।

(৭) চারমাইডিস(Charmydes)

এই গ্ৰন্থে মিতাচার সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।

(৮) লাইসিস(Lysis)

বন্ধুত্ব সম্পর্কে ব্যখ্যা আছে।

(৯) রিপাবলিক (The Republic)

The Republic গ্রন্থটিতে আদর্শ রাষ্ট্রের বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হয়েছে।

(১০) জর্জিয়াস (Gorgias)

জ্ঞান ও শক্তির তুলনামূলক উৎকৃষ্টতা সম্বন্ধে ব্যাখ্যা আছে।

(১১) মেনো (Meno)

সত্যতা ও জ্ঞানের মাত্রাভেদ, সহজাত ও লৌকিক ধারণার প্রয়োগিক মূল্য সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।

(১২) ইউথিডেমাস (Euthydemus)

সোফিস্টদের ক্ষেত্রে সঠিক আদর্শগত মান বিষয়ক ধারণা দেওয়া হয়েছে।

(১৩) ক্রেটিলাস(Cratylus)

ভাষাতত্ত্ব সম্পর্কে ব্যাখ্যা আছে।

(১৪) ফিডো (Phaedo)

আত্মার অমরতা প্রসঙ্গে ধারণা আছে।

(১৫) ফিড্রাস(Phaedrus)

তার্কিকদের বিচারের প্রতিবাদ করে লেখা এই গ্ৰন্থ।

(১৬) থিয়্যাটিটাস(Theaetetus)

রাষ্ট্র ও দর্শন তথা ইন্দ্রিয়লব্ধ ও বৌদ্ধিক জ্ঞানের অসঙ্গতি সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।

(১৭) পারমেনাইডিস(Parmenides)

সত্তা ও জগতের সম্পর্ক বর্ণিত হয়েছে।

(১৮) সোফিস্ট(Sophist)

সোফিস্টদের ইন্দ্রিয়লব্ধ বিচ্ছিন্ন জ্ঞানের অসারতা এবং সার্বিক প্রজ্ঞালব্ধ জ্ঞানের যৌক্তিকতা প্রদর্শিত হয়েছে।

(১৯) ফাইলিবাস(Philebus)

সুখ ও শুভের ধারণা,

(২০) টাইমীয়াস(Timaeus)

সৃষ্টিতত্ত্ব এবং

(২১) লজ(Laws)

রিপাবলিকে স্বীয় মন্তব্যের আংশিক প্রত্যাহার এবং রাষ্ট্র ও আইন বিষয়ে মূল্যবান আলোচনা সংযোজিত হয়েছে।

সাম্যবাদ

(১) প্লেটো তার দি রিপাবলিক গ্রন্থে সাম্যবাদ নিয়ে আলোচনা করেছেন। তিনি তৎকালীন আর্থ-সামাজিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে সাম্যবাদ-এর ধারণা দিয়েছিলেন।

(২) আধুনিক সাম্যবাদ হলো প্লেটোর কাছ থেকে ধার করা সাম্যবাদ। আধুনিক সাম্যবাদে শুধু ব্যক্তিগত সম্পত্তির বিলোপের কথা বলা হয়। আসলে দেখা যায়, প্লেটোর সাম্যবাদের কিছু অংশ বর্তমানেও বাস্তব।

মৃত্যু যাত্রায় প্লেটো

মহান রাষ্ট্রচিন্তাবিদ প্লেটো খ্রিষ্টপূর্ব ৩৪৭ অব্দে ৮০ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন।

  • (১) একটি বিকৃত গল্পের পাণ্ডুলিপির সূত্র থেকে জানা যায়, একটি ছোট মেয়ে তার কাছে বাঁশি বাজানো অবস্থায় তিনি তাঁর বিছানায় স্বাভাবিকভাবে মৃত্যুবরণ করেন।
  • (২) আরেক বর্ণনা অনুযায়ী, প্লেটো একটি বিয়ের ভোজ খেতে গেলে সেখানেই মারা যান।

উপসংহার :- যুগে যুগে মানুষ প্লেটোর দর্শন নিয়ে ভেবেছে, অনুপ্রাণিত হয়েছে। বিশেষভাবে পশ্চিমাদের দর্শন ব্যাপকভাবে প্লেটোর দর্শন দ্বারা প্রভাবিত।

(FAQ) প্লেটো সম্পর্কে জিজ্ঞাস্য ?

প্লেটোর প্রকৃত নাম কী ?

এরিসটোফ্লেস।

প্রাচীন দার্শনিক প্লেটোর দুটি গ্রন্থের নাম লেখ ?

রিপাবলিক ও সাম্যবাদ

প্লেটোর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম কি ?

আকাদেমি

Leave a Reply

Translate »